অনুব্রত মণ্ডল ও আত্মীয়দের অ্যাকাউন্টে টাকার পাহাড়, বাজেয়াপ্ত করল CBI

06:32 PM Aug 17, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: অনুব্রত মণ্ডল এবং তাঁর আত্মীয়দের অ্যাকাউন্টে টাকার পাহাড়। বুধবার তৃণমূল নেতা, তাঁর মেয়ে-সহ একাধিক আত্মীয়র ফিক্সড ডিপোজিটের হদিশ পায় কেন্দ্রীয় তদন্তকারী আধিকারিকরা। যেখানে অন্তত ১৭ কোটি টাকা রয়েছে বলে সিবিআই সূত্রে খবর। এক রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের বোলপুরের শাখায় থাকা ওই ফিক্সড ডিপোজিটগুলি ছিল বলে খবর।

Advertisement

 তদন্তকারী আধিকারিকদের সূত্রে খবর, বাজেয়াপ্ত হওয়া ফিক্সড ডিপোজিটগুলির মোট আর্থিক মূল্য ১৬ কোটি ৯৭ লক্ষ টাকা। কেন্দ্রীয় তদন্তকারী আধিকারিকদের সন্দেহ, গরু পাচার মামলায় যে কোটি-কোটি টাকা লেনদেন হয়েছে। সেই অর্থেরই কিছু অংশ ফিক্সড করা ছিল এই অ্যাকাউন্টগুলিতে।

[আরও পড়ুন: টেট পাশ না করেও শিক্ষকতা, অনুব্রতকন্যার বিরুদ্ধে হাই কোর্টে মামলা আইনজীবীর]

এদিন সকালে বোলপুরে পূর্বপল্লির বাড়িতে হানা দেয় সিবিআইয়ের তদন্তকারী আধিকারিকরা। সেখানে অনুব্রতর চাটার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট মণীশ কোঠারিকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। ডাকা হয়েছিল দুই ব্যাংক কর্মীকেও। তারপর তাঁরা রওনা দেয় নিচুপট্টির বাড়িতে। সেখানে মাত্র ১০ মিনিটের জন্য ছিলেন সিবিআই কর্তারা। সূত্রের খবর, অনুব্রতকন্যা সুকন্যা মণ্ডলকে জিজ্ঞাসাবাদের পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু সুকন্যা তদন্তে সহযোগিতা করেনি বলেই দাবি সিবিআইয়ের। এরপর তদন্তকারীদের দল রওনা হানা দেয় বোলপুরের এক ব্যাংকে। সেই শাখার ম্যানেজার এবং আধিকারিকদের সঙ্গে কথা বলে সিবিআই।

Advertising
Advertising

সূত্রের খবর, বোলপুরের ওই ব্যাংকেই অনুব্রত এবং তার আত্মীয়দের একাধিক ফিক্সড ডিপোজিটের হদিশ পায় সিবিআই। ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়ে ওই অ্যাকাউন্টগুলিকে বাজেয়াপ্ত করা হয় বলে খবর। ওই অ্যাকাউন্টগুলিতে এত টাকা কোথা থেকে এল, তা খতিয়ে দেখছে CBI। উল্লেখ্য, এর আগে অনুব্র ও তাঁর মেয়ে সুকন্যার নামে-বেনামে প্রচুর সম্পত্তির হদিশ মিলেছিল। 

[আরও পড়ুন: পুরীর হোটেলে কাকিমার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ অবস্থায় যুবক! কাকার নজরে পড়তেই ভয়ংকর পরিণতি]

ইতিপূর্বে এসএসসি দুর্নীতির তদন্তে নেমে পার্থ চট্টোপাধ্যায় ঘনিষ্ঠ অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের দু’টি ফ্ল্যাট থেকে প্রায় ৫০ কোটি টাকার হদিশ মেলে। উদ্ধার হয় বিপুল সম্পত্তিও। এবার বীরভূমের তৃণমূল জেলা সভাপতি এবং তাঁর আত্মীয়দের অ্যাকাউন্টে বিপুল টাকার হদিশ মিলল। 

Advertisement
Next