Advertisement

ভালবাসার সুরে বাঁধা পড়লেন হরিহরণ-বিক্রম ঘোষ, প্রকাশিত নতুন গান

03:23 PM Feb 23, 2021 |

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ভালবাসা-রাগ-অভিমান, মনের মানুষকে মনের কথা বলতে গান বরাবরই এক বড় আশ্রয়।  রাগে-অনুরাগে যা সহজেই ছুঁয়ে যায় হৃদয়। সেই রকমই আরও একটি গান উপহার দিয়েছেন সংগীতশিল্পী হরিহরণ ও বিক্রম ঘোষ (Bickram Ghosh)। তাঁদের যুগলবন্দিতে ধরা দিয়েছে ‘বাতো বাতো ম্যায়’ (Baaton Baton Mein)।

Advertisement

প্রেমের মরশুম বা ভালবাসার দিন তো শুধুই ক্যালেন্ডারে আটকে পড়া কোনও নির্দিষ্ট সময় নয়। কোনও একটা মাস বা সময়ে আটকে থাকে না। তা তো চিরন্তন অনুভূতি। সেই অনুভূতির উষ্ণতাতেই আঁচ বাড়িয়েছেন হরিহরণ (Hariharan) ও বিক্রম ঘোষ। অ্যালবামের নাম ইশক (Ishq)।

[আরও পড়ুন: সম্পর্কের ফাটল নিয়ে জল্পনার মাঝেই স্ত্রী নুসরতকে ডিভোর্সের নোটিস নিখিলের]

সোমবার সুফিস্কোরের ইউটিউব চ্যানেলে মুক্তি পেয়েছে এই গান। মুক্তির পরেই এই গান শ্রোতাদের ভালবাসার আবেগে ভরিয়ে দিয়েছে। ইতিমধ্যেই এই গানের দর্শক সংখ্যা প্রায় ২ মিলিয়ন।

 

পারকাশন গুরু বিক্রম ঘোষ আর মেলোডি কিং হরিহরণের কণ্ঠের পরশে ভালবাসার নতুন সুর ধরা পড়েছে। প্রেমে দিবসে এই গান মুক্তি পাওয়ার কথা থাকলেও পরে পিছিয়ে যায় মুক্তির দিন। পুরো ভিডিওটি শুটিংয়ের নেপথ্যে অরিন্দম শীল (Arindam Sil)। প্রায় গোটা শহরজুড়েই হয়েছে শুটিং।

জানা গিয়েছে, একদিন আড্ডা দিতে দিতেই হরিহরণ-বিক্রমের মধ্যে ভালবাসার গান তৈরির কথা ওঠে। প্রায় সঙ্গে সঙ্গে বিক্রম রাজি হয়ে যান হরিহরণের প্রস্তাবে। তৈরি করে ফেলেন মনের মতো ৬টি প্রেমের গান। মুম্বইয়ের নিজের স্টুডিওতেই গানগুলি রেকর্ড করে ফেলেন হরিহরণ। তারপরই চলে আসেন কলকাতায়। সারা শহর ঘুরে ঘুরে চলে ভালাবাসার গানের সুরেলা শুটিং। উত্তর কলকাতার বিভিন্ন লোকেশনে হয়েছে ভিডিওটির শুটিং।

 

[আরও পড়ুন: ভোটের আগেই বড় ঘোষণা, দাদাসাহেব ফালকের ধাঁচে ‘সত‌্যজিৎ রায় পুরস্কার’ কেন্দ্রের]

মোট ৬টি গানের মধ্যে প্রথম গানটিতে দেখা গিয়েছে, সৌরসেনী মৈত্রকে (Sauraseni Maitra)। বিপরীতে রমিত রাজ। এছাড়াও দেখা যাবে টলিউডের আরও দুই সুন্দরী প্রিয়াঙ্কা সরকার (Priyanka Sarkar), বিবৃতি চট্টোপাধ্যায়কে (Bibriti Chatterjee)। ‘বাতো বাতো ম্যায়’ গানের কথা লিখেছেন সৌগত গুহ।
উল্লেখ্য, গত বছরের অক্টোবরে সাফল্য পেয়েছিল বিক্রম ঘোষ, রতন কাহারের যুগলবন্দিতে তৈরি ‘গেন্দা ফুল’। তারও নেপথ্যে ছিলেন অরিন্দম শীল। আর এবার হরিহরণের সঙ্গে কাজ করে মুগ্ধ দু’জনই।

Advertisement
Next