‘যা কিছু ভাল, তা আমার প্রাপ্য’, ২১৫ কোটি টাকার তোলাবাজির অভিযোগ উঠতেই খোলা চিঠি জ্যাকলিনের

09:23 PM Aug 17, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: নতুন করে বিপাকে পড়েছেন বলিউড অভিনেত্রী জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজ। আর বিপাকে পড়েই কীভাবে নিজেকে বাঁচাবেন তাই খুঁজে বেড়াচ্ছেন অভিনেত্রী। সে কারণেই হয়তো প্রকাশ্যে মুখ না খুলে নানারকম দার্শনিক চিন্তায় ডুব দিচ্ছেন জ্যাকলিন। তাঁর কথায়, তিনি সাহসী। সব বাধা অতিক্রম করে এগিয়ে যাবেন!

Advertisement

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1652782001027-0'); });

গপ্পোটা একটু বিশদে বলা যাক। সম্প্রতি জ্যাকলিনের বিরুদ্ধে ২১৫ কোটি টাকার তোলাবাজির অভিযোগ এনেছে ইডি। নিন্দুকদরা মনে করছেন, এই অভিযোগের কারণেই ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে জ্যাকলিন নিজের মনের কথা শেয়ার করেছেন, কিন্তু আসল কথা আড়ালে রেখে। জ্যাকলিন (Jacqueline Fernandez) ইনস্টায় লিখলেন, ”যা কিছু ভাল, তা আমার প্রাপ্য। আমি যেমন, সে ভাবেই নিজেকে গ্রহণ করেছি। সব ঠিক হয়ে যাবে। আমি সাহসী। নিজের সব স্বপ্ন পূরণ করব। আমি পারবই।”

window.unibots = window.unibots || { cmd: [] }; unibots.cmd.push(()=>{ unibotsPlayer('sangbadpratidin'); });

গত বছরই অফ ক্যামেরায় শিরোনামে উঠে এসেছিল জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজ। আর্থিক কেলেঙ্কারিতে অভিযুক্ত সুকেশ চন্দ্রশেখরের (Sukesh Chandrasekhar) সঙ্গে জ্যাকলিনের সম্পর্কের কথা প্রকাশ্যে আসে। ২০০ কোটি টাকার প্রতারণা এবং আরও ২০টি আর্থিক তছরুপের মামলায় নাম জড়ানোয় দিল্লির রোহিণী জেলে বন্দি ‘ঠগবাজ’ চন্দ্রশেখর। জ্যাকলিনের সঙ্গে এই সুকেশের অন্তরঙ্গ মুহূর্তের একটি ছবিও ছড়িয়ে পড়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়। সূত্রানুসারে, সেই সময় অন্তর্বর্তীকালীন জামিনে মুক্ত ছিল চন্দ্রশেখর। ইডি সূত্রে এও জানা গিয়েছিল, চেন্নাইয়ে চারবার সাক্ষাৎ হয় জ্যাকলিন ও চন্দ্রশেখরের। অভিযোগ, সুকেশের হাতে যে আইফোন ১২ রয়েছে, তা দিয়েই তিনি ইজরায়েলের সিমকার্ডের সাহায্যে প্রতারণা করছিলেন।

Advertising
Advertising

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1652782050143-0'); });

[আরও পড়ুন: কীভাবে এল ‘ব্রহ্মাস্ত্র’ ছবির আইডিয়া? গোপন তথ্য ফাঁস করলেন পরিচালক অয়ন]

এরপর থেকেই ইডির নিশানায় জ্যাকলিন। গত বছর ডিসেম্বরে মুম্বই বিমানবন্দরে আটকানো হয় জ্যাকলিনকে। অভিনেত্রীকে ৮ ডিসেম্বর ইডি দপ্তরে হাজিরার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। পাঁচ ঘণ্টা ধরে ইডি আধিকারিকরা জেরা করেন শ্রীলঙ্কান সুন্দরীকে। আর্থিক তছরুপ প্রতিরোধ মামলার (PMLA) আওতায় জ্যাকলিনের অবৈধ সম্পত্তিও নাকি বাজেয়াপ্ত ইডি।

শোনা যায়, এর আগে সুকেশের কাছ থেকে গুচ্চির ব্যাগ, জিমের পোশাক, দামি ব্র্যান্ডের জুতো, দু’টি হীরের আংটি, একাধিক ব্রেসলেট পেয়েছিলেন ইডি অফিসাররা। সূত্রের খবর মানলে, ইডি অফিসাররা মনে করছেন ঠগবাজ সুকেশের কাণ্ড কারখানা সম্পর্কে জানতেন জ্যাকলিন। তাঁর এই কাজের লাভও পেতেন। অনেকে মনে করছেন, এই জন্যই নায়িকার বিরুদ্ধে ২১৫ কোটি টাকার তোলাবাজির অভিযোগ আনা হয়েছে।

[আরও পড়ুন: শেষ হয়ে যাচ্ছে ধারাবাহিক ‘খড়কুটো’, অন্তিম পর্বে থাকছে চমক, জানালেন নায়িকা তৃণা]

Advertisement
Next