Advertisement

Film Review: বস্তাপচা গল্পে ঢিলে হল 14 Phere, নিরুপায় বিক্রান্ত-কৃতি

06:33 PM Jul 23, 2021 |
Advertisement
Advertisement

আকাশ মিশ্র: ফল পাকলে মিঠে হয়, কিন্তু বেশি পাকলে পচা! কড়া পাকের সন্দেশ খেতে ভাল, বেশি পাকে তা শক্ত কাঠ! কিন্তু বিয়ের পাক যদি ৭ থেকে ১৪ হয়ে যায়, তখন সেই চোদ্দো পাকের ঠ্যালা সামলানো সত্যিই মুশকিল হয়ে পড়ে। আড়াই ঘণ্টা ধরে চলা নতুন ছবি ‘১৪ ফেরে’ (14 Phere) দেখে যখন মাথা ব্যথা শুরু হবে, ঠিক তখনই মাথায় আসবে, এই বলিউড বস্তাপচা গল্পগুলোকে নিয়ে আর কত ছবি বানাবে!

Advertisement

ওটিটিতে সদ্য মুক্তি পেয়েছে বিক্রান্ত মাসে ও কৃতি খারবান্দার ছবি ‘১৪ ফেরে’ (14 Phere)। ছবির ট্রেলার আশা জাগালেও, পুরো ছবি দেখতে গেলেই বিপত্তি। ১৪ পাকের নাম করে, গল্পে এমন পাক দিলেন পরিচালক, যে শেষমেশ ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি অবস্থা।

[আরও পড়ুন: Film Review: সম্পর্কের টানাপোড়েনে কতটা দাগ কাটল ‘হাসিন দিলরুবা’?]

অদিতি (Kriti Kharbanda) ওরফে কৃতি খারবান্দা আর সঞ্জয় ওরফে বিক্রান্ত মাসে (Vikrant Massey)। দু’ জনে একই কলেজে পড়েন। কলেজ থেকে প্রেম শুরু হয়ে, একই অফিসে। প্রেম তো অনেক হল, এবার তো বিয়ে করার সময়। ঠিক এখানেই শুরু গন্ডগোল। গন্ডগোলের মূল কেন্দ্র জাতপাত! রাজপুতের সঙ্গে জাটের বিয়ে হবে কীভাবে? উপায় খুঁজলেন নায়ক নিজেই। নাটকের দল থেকে ভাড়া করা হল অভিভাবক। তাঁদের নিয়েই বিয়ের প্রস্তুতি। কিন্তু হঠাৎ করেই সব সত্যি সামনে। এটাই চোদ্দো পাকের মূল পাক। আর এই গল্প এগোতে গিয়েই পুরনো কাসুন্দি ঘেঁটে ফেললেন পরিচালক দেবাংশু কুমার।

লাভ ম্যারেজ-অ্যারেঞ্জ ম্যারেজ, বিয়ে নিয়ে ঝামেলা, প্রেমে বাধা, জাতপাতের বিভেদ নিয়ে বলিউডে বহু ছবি তৈরি হয়েছে। তবে সব ছবি যে ‘দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে জায়েঙ্গে’ হবে, তা আশা করাই ভুল। ‘১৪ ফেরে’ ছবিতে পরিচালক যশ চোপড়ার অনুকরণ করলেও, তা বেশ দুর্বল। আর এই দুর্বলতার চাপে পড়েই বিক্রান্ত মাসের মতো ভাল অভিনেতাও নিজের সেরাটা দিতে ভুলে যান। অন্যদিকে অভিনেত্রী কৃতি খারবান্দা গোটা ছবি জুড়ে সুন্দরী পুতুল হয়ে থেকে যান। এই ছবিতে একমাত্র নজর কাড়েন অভিনেত্রী যামিনী দাস (Yamini Das)। ‘হাসিন দিলরুবা’ (Haseen Dilruba) ছবিতেও যামিনীকে দেখা গিয়েছিল বিক্রান্ত মাসের মায়ের চরিত্রে। যামিনী কমিক টাইমিং আপনাকে মুগ্ধ করবে।

শেষমেশ বলতে গেলে ‘১৪ ফেরে’ এমন এক ছবি যেখানে ভাল অভিনেতারা দুর্বল চিত্রনাট্যের ফাঁদে পড়ে নিরুপায় হয়ে পড়েন। ছবির সম্পাদনা যদি একটু নিষ্ঠুরভাবে করা হতো, তাহলে ছবির দ্বিতীয়ভাগ উতরে যেত। তাই ‘১৪ ফেরে’ যদি নাও দেখেন, খুব একটা বড় ক্ষতি হবে না!

[আরও পড়ুন: Web Series Review: শ্রাবন্তী-সোহমের ম্যাজিক তো রইল, কিন্তু ‘দুজনে’ সিরিজ কি জমল?]

Advertisement
Next