ভরা বাজারে নমাজ পাঠ, হরিদ্বারে গ্রেপ্তার ৮

01:40 PM Jul 23, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ভরা বাজারে নমাজ পাঠ করায় গ্রেপ্তার আট। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরাখণ্ডের পুণ্যভূমি হরিদ্বারে। শুক্রবার স্থানীয় পুলিশ জানিয়েছে, অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করে আদালতে পেশ করা হয়। সেখান ধৃতদের জামিন মঞ্জুর করেন বিচারক।

Advertisement

জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় হরিদ্বারের একটি সপ্তাহিক বাজারে নমাজ পাঠ শুরু করেন আট ব্যক্তি। এই বিষয়ে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পুলিশ বাহিনী। ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৫১ নম্বর ধারায় গ্রেপ্তার করা হয় অভিযুক্তদের। ধৃতদের নাম হচ্ছে–নিজাম, নাসিম, সাজ্জাদ আহমেদ, মুরসালিন, আশরফ, আসগার, মুস্তফা ও ইকরাম। হরিদ্বারের পুলিশ সুপার স্বতন্ত্র কুমার জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় শিবালিক নগর কলোনি বাজার থেকে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁদের আদালতে পেশ করা হয়। সেখান ধৃতদের জামিন মঞ্জুর করেন বিচারক।

[আরও পড়ুন: ‘স্বাধীনতা দিবসের দু’দিন আগে থেকেই বাড়িতে টাঙান জাতীয় পতাকা’, আরজি প্রধানমন্ত্রীর]

উল্লেখ্য, স্কুল-কলেজে হিজাব পরা থেকে শুরু করে প্রকাশ্যে নমাজ পাঠ নিয়ে বিতর্ক কিছু কম নয়। বিশেষ করে, কর্ণাটকের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিতে হিজাব বিতর্কের পর থেকেই এহেন ঘটনা বৃদ্ধি পেয়েছে। সম্প্রতি, লখনউয়ের লুলু মলের ভিতর নমাজ পড়ার একটি ভিডিয়ো ভাইরাল হতেই সোচ্চার হিন্দু মহাসভা। ধর্মীয় এই সংগঠনের তরফে ওই শপিং মল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করা হয়। তারপরই নয়া ফরমান জারি করে মল কর্তৃপক্ষ জানিয়ে দেয়, “সকল ধর্মকেই আমরা শ্রদ্ধা করি। কিন্তু, শপিং মলের ভিতর কোনও ধর্মীয় পাঠ কিংবা প্রার্থনা করার অনুমতি দেওয়া যাবে না।” এই মর্মে একটি নোটিস টাঙানো হয়েছে শপিং মলের বাইরে।

Advertising
Advertising

সম্প্রতি, হজরত মহম্মদকে নিয়ে বিজেপি নেত্রী নূপুর শর্মার মন্তব্যে উত্তাল হয়ে ওঠে গোটা দেশ। চাপের মুখে ওই নেত্রীকে বহিষ্কার করেছিল গেরুয়া শিবির। যে ঘটনার জেরে গোটা দেশ অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে। বহিষ্কৃত বিজেপি (BJP) নেত্রীকে গ্রেপ্তারির দাবিতে রাস্তায় নামে হাজার হাজার প্রতিবাদী। তাদের দাবি, ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করেছেন নূপুর। সবমিলিয়ে, মৌলবাদী ও দক্ষিণপন্থীদের সংঘাতে দেশের পরিস্থিতি ক্রমে উদ্বেগজন হয়ে উঠছে বলেই মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

[আরও পড়ুন: অবিবাহিত বলে গর্ভপাতের অধিকার কেড়ে নেওয়া যায় না, রায় সুপ্রিম কোর্টের]

Advertisement
Next