এবার অশোক গেহলটের ভাইয়ের বাড়িতে সিবিআই হানা, ‘প্রতিহিংসার রাজনীতি’, দাবি কংগ্রেসের

12:49 PM Jun 17, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ফের কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার রোষের মুখে কংগ্রেস (Congress)। রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলটের (Ashok Gehlot) ভাই অগ্রসেন গেহলটের বাড়িতে তল্লাশি চালাল সিবিআই। সূত্র মারফত জানা গিয়েছে, অশোক গেহলটের ব্যবসার অফিসেও তল্লাশি চালিয়েছে সিবিআই। ইতিমধ্যেই কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধীকে তিনদিন ধরে ম্যারাথন জেরা করেছে ইডি। তারপরে ফের কংগ্রেসকে নিশানা করায় সরব হয়েছেন দলীয় নেতৃত্ব। কেন্দ্র প্রতিহিংসার রাজনীতি করছে বলে দাবি করেছেন তাঁরা।

Advertisement

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1652782001027-0'); });

জানা গিয়েছে, যোধপুরে অগ্রসেন গেহলটের (Ashok Gehlot Brother) বাড়িতে তল্লাশি চালিয়েছে সিবিআই (CBI)। সেই সঙ্গে আরও কয়েকটি জায়গায় তল্লাশি চালানো হবে বলে জানা গিয়েছে। প্রসঙ্গত, সার রপ্তানি মামলায় ইতিমধ্যেই ইডির নজরে রয়েছেন রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রীর ভাই। দিল্লিতে ইউপিএ সরকার থাকাকালীন বেআইনিভাবে সার রপ্তানি করার অভিযোগ রয়েছে অগ্রসেন গেহলটের বিরুদ্ধে।

Advertising
Advertising

[আরও পড়ুন: দক্ষিণ কাশ্মীরে পুলিশ-জঙ্গি সংঘর্ষ, নিকেশ ৪ হিজাব জেহাদি]

তাঁর বাড়িতে সিবিআই তল্লাশি (CBI Raid) নিয়ে সরব হয়েছেন কংগ্রেস নেতা জয়রাম রমেশ। টুইট করে তিনি লিখেছেন, “প্রতিহিংসার রাজনীতি সমস্ত সীমা ছাড়িয়ে গিয়েছে। গত তিন দিন ধরে দিল্লিতে প্রতিবাদ করেছেন কংগ্রেস নেতা কর্মীরা। তাঁদের নেতৃত্বের অন্যতম মুখ ছিলেন অশোক গেহলট। সেই জন্যই মোদি সরকার এই পদক্ষেপ করেছে। এই ঘটনায় আমরা চুপ করে থাকব না।”

ইডির তরফে বলা হয়েছে, ২০০৭ ও ২০০৯ সালে বেআইনি ভাবে সার রপ্তানিতে যুক্ত ছিল অগ্রসেনের সংস্থা অনুপম কৃষি। কৃষকদের জন্য বরাদ্দ সার বিদেশে বিক্রি করা হয়েছিল বলে জানিয়েছে ইডি। ভরতুকি দেওয়া সার বিক্রি করার জন্যই অগ্রসেনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়। প্রসঙ্গত, ন্যাশনাল হেরাল্ড মামলায় টানা তিনদিন জেরা করা হয়েছে কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধীকে (Rahul Gandhi)। আপাতত তাঁকে বিরতি দিয়েছে তদন্তকারী সংস্থা। সেই আবহেই ফের কংগ্রেসের বিরুদ্ধে সক্রিয় হয়েছে কেন্দ্র।

[আরও পড়ুন: দেশজুড়ে বিক্ষোভের জের, সেনায় ‘অগ্নিবীর’ নিয়োগের নিয়মে বড়সড় বদল আনল কেন্দ্র

Advertisement
Next