দেশজুড়ে ভয়াবহ সংকট, দীর্ঘ ছ’বছর পরে বিদেশ থেকে কয়লা আমদানি করবে ভারত

04:22 PM May 29, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: এমাসের শুরুতেই দিল্লি-সহ বহু রাজ্যে বিদ্যুতের সংকট (Power Cut) দেখা দিয়েছিল। মনে করা হচ্ছিল তার অন্যতম কারণ কয়লার (Coal) ঘাটতি। চলতি বছরের সেপ্টেম্বরের মধ্যে দেশে কয়লার চাহিদায় ব্যাপক ঘাটতি দেখা দিতে পারে, তৈরি হয়েছে এমন আশঙ্কাও। অত্যধিক বিদ্যুতের চাহিদার ফলেই এই সংকট দেখা দিতে পারে। দেশের বিদ্যুৎমন্ত্রকের (Power Ministry) এক অভ্যন্তরীণ রিপোর্ট থেকে সংবাদ সংস্থা রয়টার্স এমনটাই জানতে পেরেছে। এইসঙ্গে জানা গিয়েছে, সেই পরিস্থিতি মোকাবিলায় এবার বিদেশ থেকে কয়লা কিনতে (Coal Import) চলেছে কোল ইন্ডিয়া (Coal India)।

Advertisement

[আরও পড়ুন: আধার কার্ডের জেরক্স জমা দেওয়ার আগে সাবধান, সতর্ক করল কেন্দ্র]

উল্লেখ্য, এর আগে এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল ২০১৫ সালে। চাহিদার তুলনায় শক্তির যোগান কমে গিয়েছিল সেই সময়। উত্তরোত্তর বিদ্যুতের চাহিদা বৃদ্ধির কারণে সেই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে ফের। যার জেরে দেশজুড়ে অন্ধকার নামার আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। রয়টার্সের রিপোর্ট থেকে জানা গিয়েছে, কেন্দ্রের আশঙ্কা কয়লার সরবরাহের তুলনায় চাহিদা ১৫ শতাংশ বাড়তে পারে। ফলে সব মিলিয়ে ৪ কোটি ২৫ লক্ষ টন ঘাটতি হতে পারে কয়লার। সেই ঘাটতি মেটাতেই বিদেশ থেকে কয়লা আমদানিতে কোল ইন্ডিয়াকে সবুজ সিগন্যাল দিয়েছে কেন্দ্র। এই বিষয়ে কোল ইন্ডিয়াকে চিঠি দিয়ে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে সরকারি তরফে।

[আরও পড়ুন: এক বছরে দেশে জাল নোট বেড়ে দ্বিগুণ! রিজার্ভ ব্যাংকের তথ্য তুলে মোদিকে তোপ তৃণমূলের]

ভারতে বাৎসরিক বিদ্যুতের চাহিদা ৩৮ বছরের মধ্যে সবচেয়ে দ্রুত হারে বাড়ছে। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ধাক্কায় সরবরাহ কমার ফলে সারা বিশ্বে কয়লার দামও রেকর্ড ছুঁয়ে ফেলছে। এদিকে দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনে মোট জ্বালানির ৭০ শতাংশই আসে কয়লা থেকে। সেপ্টেম্বরের শেষে বিদ্যুতের চাহিদা মেটাতে দেশে কয়লা প্রয়োজন হতে পারে ১৯ কোটি ৭৩ লক্ষ টন। কিন্তু কয়লা সরবরাহ ১৫ কোটি ৪৭ লক্ষ টনের বেশি হবে না বলেই আশঙ্কা কেন্দ্রীয় মন্ত্রকের। অর্থাৎ ৪ কোটি ২৫ লক্ষ টনের ঘাটতি তৈরি হবে।

Advertising
Advertising

এই অবস্থায় শুধুমাত্র দেশের খনিগুলির উপর ভরসা না করে কোল ইন্ডিয়াকে বিকল্প ব্যবস্থায় নজর দিতে বলেছে কেন্দ্র। এর আগে বিদ্যুৎ সংকটের বিষয়ে রাজ্যের বিদ্যুৎ সরবরাহকারী সংস্থাগুলিকে সতর্কও করেছিল কেন্দ্রের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রক।

Advertisement
Next