ডেরেকের মুখে নিজের মায়ের কাহিনি! বিদায়ী অনুষ্ঠানে চোখের জলে ভাসলেন উপরাষ্ট্রপতি বেঙ্কাইয়া নাইডু

06:04 PM Aug 08, 2022 |
Advertisement

নন্দিতা রায়, নয়াদিল্লি: বিদায়ী সংবর্ধনায় আবেগপ্রবণ হয়ে পড়লেন রাজ্যসভার (Rajya Sabha) চেয়ারম্যান তথা উপরাষ্ট্রপতি বেঙ্কাইয়া নায়ডু (Venkaiah Naidu )। রুমাল দিয়ে চোখের জল মুছতেও দেখা গেল তাঁকে। সোমবার রাজ্যসভায় নায়ডুর বিদায়ী ভাষণ ছিল। সেখানে তৃতীয় বক্তা হিসেবে তৃণমূলের (TMC) রাজ্যসভার দলনেতা ডেরেক ও ব্রায়েন নিজের বক্তব্যের শুরুই করেন নায়ডুর শৈশবের গল্প দিয়ে। একবছরের ছেলেকে কোলে নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকা বেঙ্কাইয়া নায়ডুর মাকে গুঁতো মেরেছিল একটি ষাঁড়। সেই ঘটনায় ছোট্ট ছেলেটি বেঁচে গেলেও মায়ের মৃত্যু হয়। নিজের জায়গায় দাঁড়িয়ে ডেরেক যখন এই কাহিনী বর্ণনা করছেন, তখন চেয়ারে বসা বছর তিয়াত্তরের বেঙ্কাইয়ার চোখে জল। বার কয়েক রুমাল দিয়ে মুছে তিনি স্বাভাবিক থাকারও চেষ্টা করেন।

Advertisement

এদিন ডেরেক (Derek O Brien)তাঁর বক্তব্যের শুরুটা করেছিলেন এইভাবে – “গ্রামে একটি পরিবার ছিল, যেখানে ৮টি ষাঁড় ছিল। একদিন তাদের মধ্যে একটি ঝাঁপিয়ে পড়ে এবং শিং দিয়ে পরিবারেরই মহিলাকে আক্রমণ করে। তাঁর কোলে এক বছরের বাচ্চা ছিল। বাচ্চাটিকে কোল থেকে তড়িঘড়ি মাটিতে ফেলে দেন মহিলা। ষাঁড়ের গুঁতো খাওয়া মহিলাকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু তিনি মারা যান। সেদিন তাঁর কোলের সেই শিশুর নাম বেঙ্কাইয়া নাইডু।” মাত্র এক বছর বয়সে মা হারানোর যন্ত্রণার কথা এদিন উল্লেখ করেছেন ডেরেক।

[আরও পড়ুন: আধুনিক যুগের ‘সহমরণ’! শোকে স্বামীর চিতার কাছেই গায়ে আগুন দিয়ে আত্মঘাতী স্ত্রী]

 এদিকে, এদিন নায়ডুর বিদায়ী সংবর্ধনার প্রথম বক্তা ছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (PM Narendra Modi)। তাঁর সঙ্গে দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবন কাটানো থেকে শুরু করে বেঙ্কাইয়ার ‘ওয়ান লাইনার, উইন লাইনার’ বলে প্রশংসায় মুখর হয়েছেন মোদি। তিনি বলেন, ”আমি প্রত্যেক সাংসদ এবং যুবকদের বলতে চাই যে তাঁরা সমাজ, দেশ এবং গণতন্ত্র সম্পর্কে আপনার কাছ থেকে অনেক কিছু শিখতে পারে। আপনার অভিজ্ঞতা আমাদের তরুণদের পথ দেখাবে, গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করবে। আমি আপনার বই উল্লেখ করলাম, তার কারণ হল আপনার শব্দ প্রতিভা প্রতিফলিত হয়, যার জন্য আপনি পরিচিত। আপনার ওয়ান লাইনার উইন লাইনার। এরপর আর কিছু বলার দরকার নেই।”

Advertising
Advertising

[আরও পড়ুন: পা ফোলায় পারছেন না হাঁটতে, সেলের বাইরেই মগে করে স্নান সারছেন পার্থ]

মোদির পরেই দ্বিতীয় বক্তা হিসেবে রাজ্যসভার বিরোধী দলনেতা মল্লিকার্জুন খাড়গে নায়ডুর বর্ণময় রাজনৈতিক কর্মজীবনের কথা তুলে ধরেন। একাধিকবার রাজ্যসভার সদস্য থাকার পর সেই সভারই চেয়ারম্যানের দায়িত্ব সামলে তিনি এক বৃত্ত সম্পন্ন করেছেন বলে মত খাড়গের। প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ী যে রাজ্যসভার অভিজ্ঞতা না থাকলে একজন নেতার রাজনৈতিক জীবন পূর্ণ হয় না বলে মনে করতেন, সে কথা উল্লেখ করে বেঙ্কাইয়াকে ‘সেরা উদাহরণ’ বলে তুলে ধরেছেন।

সোমবারই সংসদের বাদল অধিবেশন শেষ হল। ১৩ তারিখ পর্যন্ত অধিবেশন চলার কথা থাকলেও তা আগেই ইতি টানা হল। আগামী বুধবার উপরাষ্ট্রপতি এবং রাজ্যসভার চেয়ারম্যান পদে নায়ডুর মেয়াদ শেষ হচ্ছে। বৃহস্পতিবার নবনির্বাচিত উপরাষ্ট্রপতি জগদীপ ধনকড় (Jagdeep Dhankhar) দায়িত্বভার গ্রহণ করবেন।

Advertisement
Next