ইয়াসিন মালিককে নিয়ে মেহবুবার বিতর্কিত মন্তব্য, পালটা তোপ শহিদ বায়ুসেনা অফিসারের স্ত্রীর

09:20 PM May 25, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: জঙ্গিনেতা ইয়াসিন মালিকের বিচারপ্রক্রিয়া নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করলেন জম্মু-কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি। তারই পালটা দিলেন মালিকের হাতে খুন ভারতীয় বায়ুসেনার আধিকারিক রবি খান্নার স্ত্রী নির্মল খান্না। তাঁর মন্তব্য, ‘মেহবুবার ট্র্যাক রেকর্ড সবার জানা।’

Advertisement

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1652782001027-0'); });

[আরও পড়ুন: সরকারের অনুমতি ছাড়াই লন্ডন সফর! নয়া বিতর্কে রাহুল গান্ধী]

বুধবার কাশ্মীরের জঙ্গিনেতা ইয়াসিন মালিককে (Yasin Malik)জঙ্গিদের আর্থিক মদত দেওয়ার অপরাধে যাবজ্জীবন জেলের সাজা দিয়েছে আদালত। নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন ‘জম্মু-কাশ্মীর লিবারেশন ফ্রন্টে’র (JKLF) প্রধানকে জঙ্গিদের অর্থসাহায্যের অপরাধে ১০ লক্ষ টাকার জরিমানাও করেছে দিল্লিতে এনআইএ-র বিশেষ আদালত। এদিন মালিকের বিচারপ্রক্রিয়া নিয়ে তীব্র আপত্তি জানিয়ে মেহবুবা মুফতি বলেন, “ভারতের থেকে পাকিস্তানের বিচারব্যবস্থা ভাল। কাউকে মৃত্যুদণ্ড দিয়ে কাশ্মীর সমস্যার সমাধান হবে না।”

মুফতির মন্তব্যের পরই প্রতিবাদে সরব হন মালিকের হাতে খুন ভারতীয় বায়ুসেনার আধিকারিক রবি খান্নার স্ত্রী নির্মল খান্না। তিনি বলেন, “‘মেহবুবার ট্র্যাক রেকর্ড সবার জানা। তিনি এমন কথা কেন বলছেন তা সবাই জানে। আজ থেকে ৩২ বছর আগে আমার স্বামীকে খুন করা হয়েছিল। কিন্তু ইয়াসিন মালিক আজও বেঁচে আছে। আমার স্বামীর শরীরে ২৮টি গুলি বিঁধেছিল। তাঁর মৃতদেহের পাশে দাঁড়িয়ে অনেকেই নৃত্য করছিলেন। আমি সেদিন কথা কখনও ভুলতে পরি না। ইয়াসিনের মৃত্যুদণ্ড হওয়া উচিত।”

Advertising
Advertising

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1652782050143-0'); });

উল্লেখ্য, বহুদিন ধরেই জম্মু ও কাশ্মীরের বিভিন্ন জায়গায় বিচ্ছিন্নতাবাদী কাজকর্ম চালানোর ও তা প্রচার করার অভিযোগ রয়েছে জম্মু কাশ্মীর লিবারেশন ফ্রন্টের নেতা ইয়াসিন মালিকের (Yasin Malik) বিরুদ্ধে। এই কারণে একাধিকবার গৃহবন্দিও করে রাখা হয় তাকে। ইয়াসিনের সংগঠন জম্মু কাশ্মীর লিবারেশন ফ্রন্টকে (JKLF) আগেই নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। বছর দুই আগেই তাকে জঙ্গিদের মদত দেওয়ার অভিযোগে গ্রেপ্তার করে এনআইএ। তারপর থেকে জেলেই রয়েছে ইয়াসিন।

প্রসঙ্গত ২০১৯ সালে পুলওয়ামা হামলার পর উপত্যকায় জোর ধরপাকড় শুরু করে ভারতীয় সেনা। তখনই ইয়াসিন মালিক-সহ বেশ কিছু বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতার জঙ্গিযোগের অভিযোগ প্রকাশ্যে আসে। সেসময়ে গ্রেপ্তার হয় ইয়াসিন। ইয়াসিনের সাজা ঘোষণার পর আজ কাশ্মীর উপত্যকায় অশান্তির আশঙ্কা করা হচ্ছে। তাই শ্রীনগর-সহ একাধিক এলাকায় কারফিউ জারি করা হয়েছে।

[আরও পড়ুন: ট্রেকিং করতে গিয়ে ভয়াবহ দুর্ঘটনা, গাড়ির সিলিন্ডার ফেটে মৃত ৫ বাঙালি পর্যটক]

Advertisement
Next