বিরোধিতা করলেই পড়তে হবে রোষে! রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে মোদিকে খুশি করতে মরিয়া আঞ্চলিক দলগুলি

10:56 AM Jun 24, 2022 |
Advertisement

বুদ্ধদেব সেনগুপ্ত, নয়াদিল্লি: রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে (President Election) মোদির (PM Modi) চালে কুপোকাত আঞ্চলিক দলের নেতারা। কে কত ভাল ও কাছের, প্রমাণ করতে মরিয়া দলের শীর্ষনেতারা। তবে কেউ প্রকাশ্যে তো কেউ জল খাচ্ছেন ডুবে ডুবে। বুধবারই বিহার, ওড়িশা ও ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রীরা প্রকাশ্যেই এনডিএ প্রার্থী দ্রৌপদী মুর্মুকে সমর্থন করবেন বলে ঘোষণা করেন। পিছিয়ে পড়ছেন বুঝে আরও একধাপ এগিয়ে এনডিএ পদপ্রার্থীর মনোনয়নে তাঁদের বিধায়ক ও সাংসদরা স্বাক্ষরও করেন।

Advertisement

প্রধানমন্ত্রী হায়দরাবাদে গেলে তাঁর সঙ্গে দেখা করার ইঙ্গিত দিয়েছেন তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাও। পিছিয়ে নেই এআইডিএমকে। দ্রৌপদী মুর্মুকে সমর্থনের সিদ্ধান্ত নিয়ে রেখেছেন তামিল রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী পালানিস্বামী ও উপমুখ্যমন্ত্রী পনিরসেলভমরা। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অর্থনৈতিক প্রতিবন্ধকতা তৈরির আশঙ্কা থেকেই ‘ভাল ছেলে’ হওয়ার দৌড় বলে মনে করা হচ্ছে।

[আরও পড়ুন: সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ভঙ্গের অভিযোগ, এবার নূপুর শর্মাকে তলব আমহার্স্ট স্ট্রিট থানার]

সবচেয়ে সমস্যায় ঝাড়খণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন। রাজ্যে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট সরকার চলছে। কয়েকদিন আগেও রাজ্যসভার একটি আসন নিয়ে দফায় দফায় কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গে কথা বলতে দেখা গিয়েছে তাঁকে। সেই তিনিই আবার রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে এনডিএ প্রার্থীকে সমর্থনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। রাজ্যে আদিবাসী ভোটের অঙ্কেই হেমন্তের দু’রকমের অবস্থান বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল। পিছিয়ে নেই পাশের দুই রাজ্য বিহার ও ওড়িশাও। প্রধানমন্ত্রীর এক ফোনে সব অভিমান ভুলে দ্রৌপদীকে সমর্থনের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার। ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়েক শুধু সমর্থন করেই বসে থাকেননি। রাজ্যের অন্য দলের বিধায়ক ও সাংসদদের কাছে এনডিএ প্রার্থীকে সমর্থনের আবেদনের পাশাপাশি এনডিএ প্রার্থীর মনোনয়নে দলের সাংসদ ও বিধায়কদেরও স্বাক্ষর করার নির্দেশ দেন।

Advertising
Advertising

দক্ষিণের দুই দল তামিলনাড়ুর এআইডিএমকে ও অন্ধ্রপ্রদেশের ওয়াইএসআর কংগ্রেস সরাসরি দ্রৌপদী মুর্মুকে সমর্থন করবে বলে জানালেও আরেক দল টিআরএস অবস্থান এখনও স্পষ্ট করেনি। পরপর দু’বার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের সুযোগ এড়িয়েছিলেন টিআরএস প্রধান কে চন্দ্রশেখর রাও। কিন্তু তিনিও ‘ভাল ছেলে’ হওয়ার দৌড়ে অংশ নেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে সূত্রের খবর। আগামী মাসের প্রথমেই দলের বৈঠকে হায়দরাবাদে যাওয়ার কর্মসূচি রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর। সেখানে মোদি ও চন্দ্রশেখর রাওয়ের কথা হতে পারে।

[আরও পড়ুন: সরানো হল কল্যাণময়কে, মধ্যশিক্ষা পর্ষদ সভাপতির দায়িত্ব পাচ্ছেন রামানুজ গঙ্গোপাধ্যায়]

রাজ্যের অর্থনীতি ও উন্নয়ন সিংহভাগই নির্ভর করে কেন্দ্রীয় সাহায্যের ওপর। আর তা হাড়হাড়ে টের পাচ্ছে বাংলা। শুধুমাত্র বিরোধিতার কারণেই প্রতিক্ষেত্রে অর্থনেতিক প্রতিবন্ধকতা তৈরির অভিযোগ করে চলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। কোনও কারণ ছাড়াই লক্ষ কোটি টাকা আটকে রাখার অভিযোগ করেছেন। এনডিএ পদপ্রার্থীর বিরোধিতা করলে পরিণাম কী হতে পারে তা বুঝেই বিভিন্ন দল সমর্থনের সিদ্ধান্ত নিচ্ছে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

Advertisement
Next