স্ত্রীর মৃত্যু হতেই অটো থেকে নামিয়ে দিল চালক, দেহ কাঁধে অন্ধ্র থেকে ওড়িশার পথে যুবক

01:02 PM Feb 09, 2023 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ২০১৬ সালে দানা মাঝি তাঁর স্ত্রীর মৃতদেহ নিয়ে ১২ কিলোমিটার পথ হেঁটেছিলেন। প্রশাসনিক গাফিলতিতে ওই কাজে বাধ্য হয়েছিলেন তিনি। ওই ঘটনায় জাতীয় ও আন্তর্জাতিক মঞ্চে ওড়িশার (Odihsa) মুখ পুড়েছিল। ফের একই ধরনের ঘটনা। অন্ধ্রপ্রদেশের (Andhra Pradesh) হাসপাতাল থেকে ফেরার পথে অটোতে মৃত্যু হয়েছিল ওড়িশার বাসিন্দা এক যুবকের স্ত্রীর। এর পর অটোচালক তাঁদের নিয়ে যেতে অস্বীকার করেন। বাধ্য হয়ে স্ত্রীর দেহ কাঁধে নিয়ে কয়েক কিলোমিটার হাঁটলেন যুবক।

Advertisement

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ওড়িশার কোরাপুটের বাসিন্দা বছর পয়ত্রিশের যুবকের নাম সামুলু পাঙ্গি। দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ ছিলেন তাঁর স্ত্রী ইদি গুরু (৩০)। বিশাখাপত্তনমের সাঙ্গিবালাসার একটি হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছিল তাঁকে। সম্প্রতি চিকিৎসকরা জানান, ইদি চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন না, এমত অবস্থায় তাঁকে বাড়িতে নিয়ে যাওয়াই ভাল। এদিন অটো ভাড়া করে পট্টোঙ্গি ব্লকের নিজের গ্রাম সোরাদায় ফিরছিলেন তাঁরা। কিন্তু মাঝপথে সামুলুর স্ত্রীর মৃত্যু হয়।

[আরও পড়ুন: পাঁচ বছরের GST ফাঁকির অভিযোগ, এবার আদানির সংস্থার বিরুদ্ধে তদন্তে হিমাচলের কংগ্রেস সরকার]

এর পর অটোচালক বাকি পথ তাঁদের নিয়ে যেতে অস্বীকার করে। যদিও তখনও ওড়িশায় নিজের গ্রামে পৌঁছতে বাকি প্রায় ৮০ কিলোমিটার রাস্তা। উপায় না দেখে স্ত্রীকে কাঁধে তুলে হাঁটা শুরু করেন যুবক। এভাবে বেশ কয়েক কিলোমিটার হাঁটার পর কয়েকজন পুলিশকর্মীর নজরে পড়েন সামুলু। তাঁরা দাঁড় করান যুবককে। একটি অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা করে দেন। বাকি পথ তাতে চেপে নিজের বাড়িতে ফেরেন সামুলু। ওড়িশায় এমন ঘটনায় শোরগোল পড়ে গিয়েছে। যদিও শেষ পর্যন্ত সহযোগিতা পেয়ে পুলিশকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন সামুলু পাঙ্গি। 
Advertising
Advertising

Advertisement
Next