উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনে দলের নির্দেশ অমান্য, শিশির-দিব্যেন্দুর বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা তৃণমূলের

04:26 PM Aug 07, 2022 |
Advertisement

নন্দিতা রায়, নয়াদিল্লি: দলের নির্দেশ অমান্য করে উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনে (Vice President Polls) ভোট দিয়েছিলেন শিশির এবং দিব্যেন্দু অধিকারী। এবার তাঁদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিচ্ছে দল। ইতিমধ্যে দুই সাংসদকে ফের চিঠি দিয়েছেন লোকসভায় তৃণমূলের (TMC) দলনেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। স্পষ্ট বার্তা, দুই সাংসদের আচরণের উপর নজর রাখছে দল।

Advertisement

জগদীপ ধনকড় বনাম মার্গারেট আলভার লড়াইয়ে দলীয় সাংসদদের ভোটদান থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দিয়ে চিঠি দিয়েছিলেন লোকসভায় তৃণমূলের দলনেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় (Sudip Banerjee)। কিন্তু সেই নির্দেশে কার্যত কর্ণপাত করেননি কাঁথি এবং তমলুকের দুই সাংসদ। তাঁদের এহেন আচরণ যে দল মোটেও ভালভাবে নিচ্ছে না তা শনিবারই স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল। রবিবার তাঁদের চিঠি পাঠিয়ে তা আরও একবার বুঝিয়ে দিল দল।

[আরও পড়ুন: লাগাতার উপহাসের প্রতিশোধ, জাদুঘরে ঘাতক জওয়ানের টার্গেট ছিল ৪ সহকর্মী]

Advertising
Advertising

শিশির অধিকারীর সাংসদপদ নিয়ে টানাপোড়েন চলছে। চলছে আইনি লড়াই। তাঁর বিরুদ্ধে আগেই দলত্যাগ বিরোধী আইন প্রয়োগ করে সাংসদ পদ খারিজের দাবি জানিয়ে লোকসভার অধ্যক্ষের দ্বারস্থ হয়েছিলেন তৃণমূলের লোকসভার দলনেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। এথিকস কমিটিও চিঠি দিয়েছিল শিশির অধিকারীকে। পালটা জবাবে কাঁথির সাংসদ জানিয়েছেন, তিনি বিজেপির পতাকা হাতে নেননি। এখনও তৃণমূলেই রয়েছেন। শিশিরের সেই জবাব খতিয়ে দেখছেন আইনজ্ঞরা। এদিকে এই আইনি লড়াইয়ে তৃণমূল সুদীপের দেওয়া সাম্প্রতিক চিঠি দু’টিও ব্যবহার করতে চলেছে বলে সূত্রের খবর। তুলে দেওয়া হতে পারে লোকসভার অধ্যক্ষর হাতে। তবে সেই প্রমাণ কতটা ধোপে টিকবে তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। কারণ, উপরাষ্ট্রপতি নির্বাচনে হুইপ জারি করতে পারে না কোনও দল।

[আরও পড়ুন: টাকা না দিলেই বড় বিপদ, বেছে বেছে ফোন পাচ্ছে ছাত্রীরা, আতঙ্ক দত্তপুকুরে]

এদিকে শিশিরের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ করলেও দিব্যেন্দুর বিরুদ্ধে এখনও কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। এবার তাঁর বিরুদ্ধে তৃণমূল কড়া পদক্ষেপ করে কিনা সেটাই দেখার। শিশির-দিব্যেন্দুর বিরুদ্ধে তৃণমূলের পদক্ষেপ প্রসঙ্গে সাংসদ সৌগত রায় বলেন, “সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় চিঠি দিয়েছেন। ওঁরা দলের নির্দেশ মানেনি। সেই চিঠি লোকসভার অধ্যক্ষর হাতে তুলে দেওয়া হবে। হয় অধ্যক্ষ ব্যবস্থা নেবেন নয়তো দল ব্যবস্থা নেবে।”

Advertisement
Next