দোষী সাব্যস্ত হতেই আদালত থেকে পালিয়েছিলেন, এক বছরের কারাদণ্ড যোগীর মন্ত্রীর

05:25 PM Aug 08, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আদালতে দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পরেই পালিয়ে গিয়েছিলেন উত্তরপ্রদেশের মন্ত্রী (Uttar Pradesh) রাকেশ সচন। সোমবার ফের তাঁকে আদালতে পেশ করা হয়। তখনই কানপুরের আদালত জানিয়ে দেয়, এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হচ্ছে রাকেশকে। সেই সঙ্গেই আদালত ছেড়ে চলে যাওয়ার ঘটনা নিয়ে আলাদা করে তদন্ত হবে বলে জানানো হয়েছে। প্রসঙ্গত, ১৯৯১ সালে বেআইনি অস্ত্র রাখার অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন রাকেশ (Rakesh Sachan)।

Advertisement

রবিবারই কানপুরের আদালতে রাকেশকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়। সেই সময়েই সাজা ঘোষণা করার কথা ছিল। কিন্তু রায়ের কপি সঙ্গে নিয়ে আদালত ছেড়ে চলে যান রাকেশ। সঙ্গে ছিলেন তাঁর অনুগামীরাও। সেই ঘটনার পরে সরকারি ভাবে অভিযোগ দায়ের করা হয় আদালতের রিডারের তরফ থেকে। সোমবার কানপুর আদালত জানিয়েছে, সেই ঘটনার তদন্ত করা হবে।

[আরও পড়ুন: ‘স্পর্শকাতর মামলা যায় কয়েকজন নির্দিষ্ট বিচারপতির কাছে’, ‘সুপ্রিম অনাস্থা’য় বিতর্কিত মন্তব্য সিব্বলের]

তবে পালিয়ে যাওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন রাকেশ। তিনি বলেছিলেন, “জীবনে আমি কখনও পালাইনি। এসবই আমার বিরুদ্ধে ওঠা ভিত্তিহীন অভিযোগ। আমি এদিন আদালতে যাই ১১টা নাগাদ। অনুরোধ করি, মামলার শুনানি তাড়াতাড়ি করতে কারণ আমার অন্য ব্যস্ততা ছিল। এরপর আমি সেখান থেকে চলে যাই। চার ঘণ্টার জন্য একটি অনুষ্ঠানে আমাকে থাকতে হয়েছিল। এছাড়াও অন্যান্য কাজ ছিল। এরপরই আমার কানে আসে এই ধরনের অভিযোগ।”

Advertising
Advertising

একই অবস্থান বজায় রেখে সোমবার আদালত (Kanpur Court) চত্বরে দাঁড়িয়ে তিনি বলেছেন, “আমি নিজের ইচ্ছায় আজ আদালতে এসেছি। আমাকে কোনও নোটিস পাঠানো হয়নি। কিন্তু মিডিয়া আমাকে নিয়ে উলটো পালটা প্রচার চালাচ্ছে। তাদের জবাব দেওয়ার জন্যই এসেছি।” সেই সঙ্গে আরও জানিয়েছেন, আদালত যা রায় দেবে সেটাই মাথা পেতে নেবেন তিনি।

কিন্তু এক বছরের জেল হলেও আগে থেকেই জামিনের আরজি মঞ্জুর করিয়ে রেখেছিলেন রাকেশ সচন। কুড়ি হাজার টাকা বন্ডের বিনিময়ে তাঁকে জামিনে থাকার অনুমতি দিয়েছিল আদালত। সোমবার রাকেশ বলেছেন, “আমি আদালতকে সম্মান করি। কিন্তু এই রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চতর আদালতে আবেদন করব।” প্রসঙ্গত, ২০২২ সালের উত্তরপ্রদেশ বিধানসভা নির্বাচনের আগেই কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন রাকেশ সচন।

[আরও পড়ুন: ডেরেকের মুখে নিজের মায়ের কাহিনি! বিদায়ী অনুষ্ঠানে চোখের জলে ভাসলেন উপরাষ্ট্রপতি বেঙ্কাইয়া নাইডু]

Advertisement
Next