Anubrata Mandal: বাড়ির কী অবস্থা? নিজাম প্যালেসে বসে মেয়ের সঙ্গে ফোনে কথা অনুব্রতর

09:30 PM Aug 12, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সিবিআই হেফাজতে মেয়ের সঙ্গে কথা বললেন অনুব্রত মণ্ডল (Anubrata Mandal)। শুক্রবার দু’বার ফোনে কথা হয় তাঁদের। বাড়ির খোঁজখবর নেন গরু পাচার মামলায় ধৃত তৃণমূল নেতা। এছাড়া চিনার পার্কের ফ্ল্যাটের এক কর্মচারীর সঙ্গেও কথা হয় তাঁর। গ্রেপ্তারির পর দলীয় অবস্থান সম্পর্কে জানতে চান অনুব্রত।

Advertisement

সূত্রের খবর, সিবিআই হেফাজতে আপাতত নিজাম প্যালেসের ১৪ তলার গেস্ট হাউসে রয়েছেন বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি। তাঁর জন্য নাকি টিভির বন্দোবস্ত করা হচ্ছে। শুক্রবার বাড়ি থেকে আনা মুড়ি খান। ক্যান্টিনের কোনও খাবার খাননি এদিন। সূত্রের খবর, নিজাম প্যালেসে বসেই মেয়ে সুকন্যার সঙ্গে কথা বলার আরজি জানান অনুব্রত। মানবিকতার খাতিরে আবেদনে সাড়া দেন সিবিআই (CBI) আধিকারিকরা। ফোনে মেয়ের সঙ্গে কথা বলেন অনুব্রত। দু’বার কথা হয় তাঁদের। প্রথমবার ৩ মিনিট এবং পরেরবার ২ মিনিট কথা হয়। সিবিআইয়ের নির্দেশ অনুযায়ী লাউড স্পিকারে কথা হয় বাবা ও মেয়ের। বোলপুরের বাড়ির কী অবস্থা, তা মেয়ের কাছে জানতে চান অনুব্রত।

[আরও পড়ুন: ‘তৃণমূল দলটাই দুর্নীতিগ্রস্ত, প্রত্যেকে জেলে যাবে’, অনুব্রতর গ্রেপ্তারির পর তোপ দিলীপ ঘোষের]

বোলপুরের নিচুপট্টির বাড়ি এক সময় কর্মী-সমর্থকদের ভিড়ে গমগম করত। তবে অনুব্রত মণ্ডলের ‘শারীরিক অসুস্থতা’র সময় থেকে সেই ভিড় কিছুটা কমেই গিয়েছিল। গত বৃহস্পতিবার ‘কেষ্টদা’র গ্রেপ্তারির পর থেকে একেবারেই ফাঁকা বাড়ি। গরু পাচার মামলায় বাবাকে গ্রেপ্তারির পর থেকে দিনভর কেঁদে ভাসাচ্ছেন অনুব্রতকন্যা সুকন্যা। খাওয়াদাওয়াও প্রায় ছেড়েই দিয়েছেন তিনি। বাবার সঙ্গে ফোনে কথা বলার সময়ও নাকি কান্নাকাটি করেন সুকন্যা।

Advertising
Advertising

সিবিআই সূত্রে খবর, চিনার পার্কের এক কর্মচারীর সঙ্গেও কথা বলেন অনুব্রত। নিজাম প্যালেসের ভিজিটার্স রুমেই রয়েছেন তিনি। অনুব্রতর সর্বক্ষণের সঙ্গী ছিলেন ওই কর্মচারী। তাঁর গ্রেপ্তারির পর রাজ্যবাসীর প্রতিক্রিয়া কী? তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্বই বা কী ভাবছে? কর্মীর থেকে এমনই নানা প্রশ্নের জবাব চান অনুব্রত। উল্লেখ্য, জুলাইয়ের শেষ সপ্তাহে এসএসসি নিয়োগ দুর্নীতিতে গ্রেপ্তার হন পার্থ চট্টোপাধ্যায় (Partha Chatterjee) এবং তাঁর ‘ঘনিষ্ঠ’ অর্পিতা মুখোপাধ্যায়। তারপরই পার্থকে মন্ত্রিত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। মহাসচিব পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। গরু পাচার মামলায় এবার সিবিআইয়ের জালে অনুব্রত। সেক্ষেত্রে তাঁর বিরুদ্ধেও তৃণমূলের পক্ষ থেকে কী সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, সেদিকে নজর রয়েছে সকলের।  

[আরও পড়ুন: ইংরাজিতে ক্লাস, ভাষাগত সমস্যায় যাদবপুর ছাড়ছেন মফস্বলের পড়ুয়ারা? গুঞ্জন ওড়াল কর্তৃপক্ষ]

Advertisement
Next