‘গোলমাল করে নিযুক্তদের চাকরিও বহাল রাখতে চায় রাজ্য’, জানালেন শিক্ষামন্ত্রী

07:25 PM Sep 28, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: অবৈধভাবে নিযুক্তরা চাকরি ছাড়ুন, চাইছেন কলকাতা হাই কোর্টের (Calcutta High Court) বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। নাহলে কড়া ব্যবস্থা নেবে আদালত। উলটোদিকে, কারোর চাকরি যাক, চায় না রাজ্য। অবৈধভাবে নিযুক্তদের বহাল রেখেই যোগ্যদের নিয়োগ করার পক্ষে সওয়াল শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুর। যদিও মঙ্গলবার তিনি জানিয়েছিলেন, প্রয়োজনে ব্যতিক্রমী নিয়োগ বাতিল করে যোগ্যদের চাকরিতে বহাল করা হবে।

Advertisement

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1652782001027-0'); });

এদিন এক সংবাদমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু (Bratya Basu) জানান, মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, রাজ্য সরকার কারোর চাকরি খেতে চায় না। কারণ তাঁদের চাকরির সঙ্গে পরিবারের সদস্যদের আবেগ জড়িয়ে আছে। যে সমস্ত নিয়োগ নিয়ে সমস্যা রয়েছে, বিতর্ক রয়েছে সেই চাকরিও রক্ষা করতে চাই। অতীতে গোলমাল করেও যদি কেউ চাকরি পেয়ে থাকেন, তাঁদেরও চাকরিও রক্ষা করতে চায় রাজ্য। স্বাভাবিকভাবেই শিক্ষামন্ত্রীর এহেন বক্তব্যে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। 

window.unibots = window.unibots || { cmd: [] }; unibots.cmd.push(()=>{ unibotsPlayer('sangbadpratidin'); });

[আরও পড়ুন: এসএসসি দুর্নীতি: নিজেরা চাকরি ছাড়ুন নাহলে কড়া ব্যবস্থা, অবৈধভাবে নিযুক্তদের হুঁশিয়ারি বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের]

এদিন শিক্ষামন্ত্রী আরও জানিয়েছেন, রাজ্য সরকার নিয়োগ চায়। সকলকে চাকরি দিতে চায়। এবার কোনও সুপারিশে চাকরি হবে না। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন কোনও সুপারিশে চাকরি হবে না। উলটোদিকে এদিন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায় জানিয়েছেন, যারা অবৈধভাবে চাকরি পেয়েছেন তাঁদের নিজের থেকে পদত্যাগ করা উচিত। ৭ নভেম্বরের মধ্যে তাঁরা পদত্যাগ করবেন বলে প্রত্যাশা আদালতের। তা না করে তাঁরা যদি নিজেদের অবস্থানে অনড় থাকেন, তাহলে আদালত কড়া পদক্ষেপ করবে। মামলার নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত কোনও সরকারি চাকরির জন্য তাঁরা আর আবেদন করতে পারবেন না।

Advertising
Advertising

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1652782050143-0'); });

৫৬০-এর বেশি দিন ধরে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন যোগ্য চাকরিপ্রার্থীরা। কলকাতা হাই কোর্টে (Calcutta High Court) একাধিক মামলা হয়েছে। পুজোর আগে প্রায় দেড় হাজার নিয়োগের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। নিয়োগ দুর্নীতি নিয়ে চলছে সিবিআই-ইডি তদন্ত। তারপরেও আন্দোলনের পথ থেকে সরছেন না যোগ্য চাকরিপ্রার্থীরা। 

[আরও পড়ুন: পুজোর মুখে জেলার আশাকর্মীদের জন্য সুখবর, একধাক্কায় প্রায় দ্বিগুণ বোনাস ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর]

মঙ্গলবার আন্দোলনকারী চাকরিপ্রার্থীদের নিয়োগ নিয়ে সদার্থক পদক্ষেপের কথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী। জানান,  ‘ব্যতিক্রমী’ নিয়োগ বাতিল করে বঞ্চিত প্রার্থীদের নিয়োগের পরিকল্পনা করছে শিক্ষাদপ্তর। এই মর্মে কলকাতা হাই কোর্টে হলফনামা জমা করবে স্কুল সার্ভিস কমিশন (SSC)। তবে সম্ভব হলে ব্যতিক্রমী বহাল রেখেই যোগ্যদের নিয়োগের কথা বলেছিলেন তিনি। এদিনও ফের একবার সেই কথাই বললেন শিক্ষামন্ত্রী।  

 

Advertisement
Next