তপন দত্ত হত্যা মামলা: তদন্ত করবে CBI, সিঙ্গল বেঞ্চের রায় বহাল হাই কোর্টের ডিভিশন বেঞ্চে

12:30 PM Sep 30, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:  পরিবেশবিদ তপন দত্ত খুনের মামলার তদন্তে সিবিআইয়ের উপরই আস্থা রাখল কলকাতা হাই কোর্টের (Calcutta HC) প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ। শুক্রবার প্রধান বিচারপতি প্রকাশ শ্রীবাস্তবের বেঞ্চ সাফ জানিয়ে দিল, সিআইডি বা রাজ্য পুলিশ নয়, যেভাবে সিবিআই (CBI) এই মামলার তদন্ত করছিল, সেভাবেই কাজ করবে। এর আগে তপন দত্ত হত্যামামলায় সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিলেন বিচারপতি রাজাশেখর মান্থা। সেই নির্দেশের বিরোধিতায় সিআইডি-কে (CID) দিয়ে তদন্তের আবেদন জানিয়ে অন্যতম অভিযুক্ত ষষ্ঠী গায়েন ও রাজ্য সরকার পালটা ডিভিশন বেঞ্চে যায়। শুক্রবার ডিভিশন বেঞ্চের রায়ে সেই মামলাটি খারিজ হয়ে গেল।

Advertisement

২০১১ সালের ৬ মে খুন হয়েছিলেন বালির পরিবেশবিদ তপন দত্ত। তিনি এলাকায় সক্রিয় তৃণমূল কর্মী হিসেবেও পরিচিত ছিলেন। জলাভূমি ভরাটের প্রতিবাদ করায় তাঁকে খুন করা হয় বলে অভিযোগ। এই খুনে কাঠগড়ায় ওঠে তৃণমূলের (TMC) নেতা-কর্মীরাই। খুন হওয়া তৃণমূল কর্মীর স্ত্রী প্রতিমা দত্তর করা এফআইআরে নাম ছিল রাজ্যের মন্ত্রী অরূপ রায়-সহ ১৩ জন তৃণমূল নেতা-কর্মীর। তদন্তভার গ্রহণ করেছিল সিআইডি। কিন্তু ১১ বছর পেরিয়ে গেলেও মেলেনি সুবিচার।

[আরও পড়ুন: পুজোর উপহার! দেউচা-পাঁচামি প্রকল্পে সরকারি প্যাকেজে মিলবে আরও আর্থিক সাহায্য]

এরপর মামলার জল গড়ায় হাই কোর্ট, সুপ্রিম কোর্ট (Supreme Court) পর্যন্ত। শীর্ষ আদালত হাই কোর্টে মামলার দ্রুত নিষ্পত্তির নির্দেশ দেয়। উচ্চ আদালতের বিচারপতি রাজাশেখর মান্থার বেঞ্চ এরপর সিবিআইয়ের হাতে তদন্তভার তুলে দিয়ে তা দ্রুত কিনারা করার কথা বলে।  সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে এবং সিআইডি-কে দিয়ে তদন্ত করানোর দাবিতে ডিভিশন বেঞ্চে মামলা হয়। মামলাকারী ছিলেন এই হত্যাকাণ্ডের অন্যতম অভিযুক্ত ষষ্ঠী গায়েন। কিন্তু সেই আবেদন শুক্রবার খারিজ করে দেয় প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চে। সিবিআই-ই তদন্ত করবে তপন দত্ত হত্যামামলার। তপন দত্তর পরিবার, বিশেষত তাঁর স্ত্রী প্রতিমাদেবী বরাবর সিবিআই তদন্তেই আস্থা রেখেছিলেন। এবার তাঁর আশা, দ্রুতই ধরা পড়ে কড়া শাস্তি পাবে স্বামীর প্রকৃত খুনিরা। 

Advertising
Advertising

[আরও পড়ুন: কংগ্রেসের সভাপতি নির্বাচনে ‘নাটক’ অব্যাহত, মনোনয়ন জমা দেবেন মল্লিকার্জুন খাড়গে!]

Advertisement
Next