Advertisement

ঠকে যাওয়ার দিন শেষ, এবার QR Code দেখে কিনুন হ্যান্ডলুম বেনারসি

06:42 PM Jul 26, 2021 |
Advertisement
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা (Coronavirus) পরিস্থিতিতে গত বছরের দুর্গাপুজো কেটেছে একেবারে অন্যরকম। গৃহবন্দি পুজোই কেটেছে বেশিরভাগ বাঙালির। চলতি বছরের পরিস্থিতিও তথৈবচ। করোনার একের পর এক ধাক্কায় বাড়ি থেকে বেরনো মানা। পুজোতেও ছবি বদলাবে কিনা, তা স্পষ্ট নয়। সে তো নয় গেল পুজোয় প্যান্ডেল হপিংয়ের কথা। কিন্তু পুজোর কেনাকাটি করতে কোনও বারণ নেই। শাড়ি পরতে ভালবাসলে এবার আপনার কালেকশনে হ্যান্ডলুম বেনারসি থাকতেই হবে। আবার তাতে যদি দেওয়া থাকে QR Code, তবে তো কথাই নেই।

Advertisement

শাড়িতে QR Code থাকার কথা পড়েই নিশ্চয় চমকে গিয়েছেন। ভাবছেন, এ কীভাবে সম্ভব? বিশ্বাস করুন অবাক হওয়ার দিন শেষ। কারণ, ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজির মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে গবেষকদের দাবি, বেনারস হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি নতুন প্রযুক্তির মাধ্যমে হ্যান্ডলুম বেনারসিতে (Handloom Banarasi) বোনা থাকবে QR Code। শাড়িতে দেওয়া থাকবে সংস্থার লোগো, সিল্ক মার্ক। QR Code-এ থাকবে প্রস্তুতকারকের নাম। কোথায় শাড়িটি তৈরি হচ্ছে তাও QR Code-এই উল্লেখ থাকবে। এছাড়া ওই QR Code-এ শাড়ি উৎপাদনের তারিখও লেখা থাকবে।

 

[আরও পড়ুন: এমনটাও সম্ভব! ১৫০০ বাতিল মাস্ক দিয়ে তৈরি হল সুদৃশ্য গাউন]

এবার নিশ্চয়ই ভাবছেন শাড়ির রং আর ডিজাইন দেখে বাছলেই তো হত। এত ঝক্কি পোহানোর কি প্রয়োজন? QR Code চালুর নেপথ্যেও যথেষ্ট কারণ রয়েছে। কারণ, বর্তমানে ১৮-র তরুণী হোন কিংবা ৬০ বছরের বৃদ্ধা, বাড়ির মা-কাকিমা হোন কিংবা সদ্য কলেজে পা রাখা সেলফি তুলতে পারদর্শী টেকস্যাভি বোন-সকলেরই পছন্দ হ্যান্ডলুম শাড়ি। কিন্তু বহু দোকানিই হ্যান্ডলুমের নাম করে অন্য শাড়ি বিক্রি করছেন। তার ফলে প্রতারিত হচ্ছেন ক্রেতারা। তাই সে ঝঞ্ঝাট মুক্ত হতে হ্যান্ডলুম বেনারসিতে QR Code-এর ব্যবহার যে সত্যি অভাবনীয় উদ্যোগ, সে বিষয়ে কোনও সন্দেহ নেই। QR Code শাড়িতে থাকার ফলে আর যাই হোক আপনি যে ঠকবেন না, তা ১০০ শতাংশ নিশ্চিত।

[আরও পড়ুন: প্রতিদিন চায়ের কাপে তুলুন তুফান, ত্বক হয়ে উঠবে আরও সুন্দর]

Advertisement
Next