Advertisement

দুর্দান্ত কার্যকরী করোনা টিকা, ২ ডোজে কমছে হাসপাতালে ভরতির সম্ভাবনা! বলছে সমীক্ষা

04:54 PM Jun 12, 2021 |
Advertisement
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা টিকার (Corona Vaccine) একটি ডোজ একজন মানুষকে যথেষ্ট সুরক্ষা দিতে পারে ভাইরাস সংক্রমিত হওয়া থেকে এবং সংক্রমিত হলেও হাসপাতালে ভরতি হওয়া থেকেও। তবে, দু’ডোজ টিকা হাসপাতালে ভরতির সম্ভাবনা কমিয়ে দিতে পারে ৭৭ শতাংশ পর্যন্ত। ভেলোরের সিএমসি হাসপাতালের (CMC Vellore) করা একটি সমীক্ষার ফল থেকে এমনই তথ্য পাওয়া গিয়েছে।

Advertisement

চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মীদের মতো একদম প্রথম সারির করোনা যোদ্ধারা (Covid Warrior) টিকার দু’টি ডোজ পাওয়ার পর অনেক সুরক্ষিত বলে ওই সমীক্ষার ফলে জানানো হয়েছে। কেউ সংক্রমিত হলেও, অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সামান্য কিছু উপসর্গ দেখা গেছে। তবে ভারতে ব্যবহৃত টিকা ভাইরাসের কোন চরিত্রের (বি.১.১.৭ বা বেটা এবং বি.১.৬১৭.২ বা ডেল্টা) ক্ষেত্রে বেশি কার্যকর বলা হয়নি ওই সমীক্ষায়। সিএমসি ভেলোরের ট্রান্সফিউশন মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ডা. জয় জে মাম্মেন বলেছেন, “আমরা সমীক্ষা থেকে দেখেছি করোনার টিকার ফল দুর্দান্ত। সংক্রমণ অনেকাংশে কমাতে সাহায্য করে। সংক্রমণ হলেও তা অল্প মাত্রায় হয়। টিকাকরণ সংক্রমণের চেন ভাঙতে সক্ষম। সংক্রমণ ছড়ানোও রোধ করতে পারে। তবে কোভিশিল্ড না কোভ্যাক্সিন কোন টিকা বেশি কার্যকর, তা আমরা বলতে পারব না। কারণ খুব সংখ্যক মানুষই কোভ্যাক্সিন নিয়েছেন।”

[আরও পড়ুন: গুরুতর অসুস্থ সাহিত্যিক সমরেশ মজুমদার, শ্বাসনালীর সংক্রমণ নিয়ে ভরতি ICU-তে]

সমীক্ষা অনুযায়ী জানা গিয়েছে, ২১ জানুয়ারি থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত ৮,৯৯১ জন স্বাস্থ্যকর্মী টিকা নিয়েছেন। তাঁদের মধ্যে প্রায় ৮,৪০০ জন কোভিশিল্ড (Covishield) নিয়েছেন। টিকা নিয়েছেন, এমন কেউ আক্রান্ত হলেও মারা যাননি। তবে টিকা না নেওয়া ১,৬০৯ জন স্বাস্থ্যকর্মীর মধ্যে একজনের মৃত্যু হয়েছে। যে ৭,০৮০ জন স্বাস্থ্যকর্মী দু’টি ডোজ নিয়েছেন, তাঁদের আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা কমেছে ৬৫ শতাংশ। যাঁরা আক্রান্ত হয়েছেন, তাঁদের মধ্যে হাসপাতালে যেতে হয়নি ৭৭ শতাংশকে। যাঁরা হাসপাতালে গেছেন, তাঁদের ৯২ শতাংশের অক্সিজেনের সমস্যা হয়নি এবং ৯৪ শতাংশর ICU-এর প্রয়োজন হয়নি। দু’টি ডোজ নেওয়ার ৪৭ দিন পর প্রায় কেউই সংক্রমিত হননি। সমীক্ষায় দেখা গেছে, যাঁরা একটি ডোজ নিয়েছেন তাঁদের ক্ষেত্রেও টিকার ফলাফল যথেষ্ট ভাল। তাঁদের ক্ষেত্রে সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা ৬১ শতাংশ কমেছে এবং হাসপাতালে ভরতির প্রয়োজন কমেছে ৭০ শতাংশ।

সিএমসি ভেলোরের মাইক্রো বায়োলজির অধ্যাপক ডা. গগনদীপ কাঙ্গ বলেছেন, “টিকাগুলো দুর্দান্ত কাজ করছে। সংক্রমণের বিরুদ্ধেও ভাল, পরিস্থিতিও জটিল হতে দিচ্ছে না। সেকারণে ভেলোরের চিকিৎসকরা সকলকে অবশ্যই টিকা নেওয়ার পরামর্শ দিচ্ছেন। তাঁদের মতে, সম্পূর্ণ টিকাকরণ করোনার (Corona Virus) বিরুদ্ধে লড়াইকে অনেক সহজ করবে।

[আরও পড়ুন: ‘চার নম্বর বিয়ে?’ কনের সাজে ছবি পোস্ট করতেই ট্রোলড শ্রাবন্তী]

Advertisement
Next