Advertisement

সঙ্গমের সময় প্রেমিকাকে খুশি করতে পুরুষাঙ্গে এ কী করলেন যুবক?

09:40 PM Mar 08, 2021 |
Advertisement
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: পৃথিবীতে এমন অনেকেই আছেন যাঁরা শরীরে উল্কি আঁকাতে কিংবা পিয়ার্সিং করতে পছন্দ করেন। কেউ দেখতে ভাল লাগবে বলে তো কেউ আবার কেবল শখেই এই কাজ করে থাকেন। তবে অনেকেই এমন রয়েছেন যাঁদের সারা শরীর উল্কিতে ভরা। কেউ আবার ঠোঁটে, তো কেউ আবার জিভে পিয়ার্সিং করান। কিন্তু কখনও শুনেছেন নিজের পুরুষাঙ্গে কেউ পিয়ার্সিং বা ফুটো করিয়ে তাতে পুঁতি বসিয়েছেন! শুনতে অবাক লাগলেও এমনটাই ঘটিয়েছেন মেক্সিকোর (Mexico) এক যুবক। তাও আবার সঙ্গমের সময় নিজের পার্টনারকে খুশি করতেই এই কাজ করেছেন তিনি। যা শুনে অবাক হয়েছেন অনেকেই।

Advertisement

জানা গিয়েছে, মৌরিসিও ড্যানিয়েল গার্সিয়া নামে ওই যুবক নিজের শরীরে উল্কি আঁকাতে কিংবা পিয়ার্সিং করাতে খুবই পছন্দ করেন। ১৮ বছর বয়স থেকেই উল্কি আঁকিয়েছেন শরীরে। ১৫০রও বেশি উল্কি রয়েছে তাঁর শরীরে। এছাড়া ১৯টি পিয়ার্সিং থেকে শুরু করে চোখেও ট্যাটু তাঁর। কিন্তু এসবের পরেও পুরুষাঙ্গে নতুন করে পিয়ার্সিং করালেন। একটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, ইতিমধ্যে ভারতীয় মুদ্রায় চার লক্ষেরও বেশি টাকা এসবের পিছনে খরচ করে ফেলেছেন তিনি। তারপরও থেমে থাকেননি। ওই প্রতিবেদনে গার্সিয়াকে উদ্ধৃত করে জানানো হয়েছে, সঙ্গিনীকে সঙ্গমের সময় সুখ দিতেই তাঁর এই ভাবনা। ২০২০ সালের শেষ থেকে অপরাশেনের মাধ্যমে এই পিয়ার্সিং করানো শুরু করেছিলেন তিনি। যা চলতি বছরের শুরুতে শেষ হয়। তারপরই আবারও শিরোনামে উঠে আসেন গার্সিয়া।

[আরও পড়ুন: OMG! নিজেই নিজেকে বিয়ে করলেন এই মহিলা, প্রথা মেনে চুম্বনও করলেন, কীভাবে জানেন?]

ওই প্রতিবেদনে আরও জানানো হয়েছে, ০.৮ সেন্টিমিটার আকারের পুঁতিগুলো সিলিকনের তৈরি। তবে এগুলো পুরুষাঙ্গে লাগাতে প্রথম দিকে বেশ কষ্টও সহ্য করতে হয়েছিল তাঁকে। মোট দু’মাসে কাজটি সম্পূর্ণ হয়। তবে এগুলির জন্য অনেকেই যে তাঁকে উদ্দেশ্য করে বাঁকা মন্তব্যও করেন, সেকথাও জানিয়েছেন গার্সিয়া। তবে তাতে তিনি কিছু মনে করেন না। উল্কি এবং পিয়ার্সিং ভালবাসেন বলেই করান। এমনটাই সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন। তবে তাঁর নতুন কীর্তি কিন্তু ইতিমধ্যেই শিরোনামে উঠে এসেছে।

[আরও পড়ুন: হবু বরের নগ্ন ভিডিও ফাঁস করার ভয় দেখিয়ে ব্ল্যাকমেল! অভিযুক্ত হাওড়ার তরুণী]

Advertisement
Next