‘একবার না পারিলে…’, ৩৯ বারের চেষ্টায় গুগলে চাকরি, যুবককে কুর্নিশ নেটিজেনদের

05:46 PM Jul 27, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: “পারিব না একথাটি বলিও না আর, একবার না পারিলে দেখো শতবার”। কবির এই বাণীকে সত্যি প্রমাণিত করলেন আমেরিকার (America) বাসিন্দা এক যুবক। ৩৯ বারের চেষ্টায় টেক জায়েন্ট সংস্থা গুগলে (Google) চাকরি পেলেন তিনি। সম্প্রতি নিজেই তাঁর পরের পর ব্যর্থতা ও শেষের সাফল্যের কাহিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় (Social Media) শেয়ার করেন যুবক। ভাইরাল হয়েছে সেই পোস্ট। অনুপ্রেরণা জাগানো কাহিনি জেনে সকলেই কুর্নিশ জানাচ্ছেন যুবককে।

Advertisement

সানফ্রান্সিসকোর (San Francisco) বাসিন্দা যুবকের নাম টেলর কোহেন (Tyler Cohen)। বর্তমানে তিনি ডুরড্যাশ নামের একটি সংস্থায় অ্যাসোসিয়েট ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত। তবে সে আর বেশিদিন নয়, কারণ ইতিমধ্যে গুগল তাদের কর্মী হিসেবে কোহেনকে নির্বাচিত করেছে। তবে তার জন্য দীর্ঘ অপেক্ষা করতে হয়েছে। কার্যত ব্যর্থতার সিঁড়ি বেয়েই সাফল্যের স্বাদ পেয়েছেন তিনি।

[আরও পড়ুন: লোকের ব্যঙ্গ-বিদ্রুপকে বুড়ো আঙুল, নিজের গোঁফ নিয়ে গর্বিত কেরলের এই মহিলা]

৩৯ বারের চেষ্টায় সাফল্যের স্বাদ পাওয়ার কথা যে পোস্টে জানান যুবক, সেখানে নিজের ইমেল বক্সের স্ক্রিনশট শেয়ার করেন। দেখা গিয়েছে একাধিকবারের আবেদনপত্র। ২০১৯ সালের ২৫ অগস্টে প্রথমবার আবেদন করেন কোহেন। একই বছরের সেপ্টেম্বরে ফের আবেদনপত্র পাঠান গুগলে। এভাবেই চলতে থাকে একের পর এক ব্যর্থতার পালা। এর মধ্যেই কোভিড মহামারী আসে পৃথিবীতে, লকডাউন হয়। কিন্তু কোনও কিছুতেই স্বপ্ন থেকে সরে যাননি তিনি। তার ফলই পেলেন। অবশেষ ২০২২ সালের ১৯ জুলাই সাফল্যের স্বাদ পান কোহেন। টেক জায়েন্ট সংস্থা গুগল নিজেদের কর্মী হিসেবে সানফ্রান্সিসকোর কোহেনকে নির্বাচিত করে। বলা বাহুল্য সংস্থার সেই মেল পাওয়া মাত্র দীর্ঘশ্বাস ছাড়েন যুবক। 

Advertising
Advertising

[আরও পড়ুন: OMG! একমাসের বিদ্যুতের বিল ৩ হাজার কোটিরও বেশি! অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে গৃহকর্তা]

সোশ্যাল মিডিয়ার ইমেল বক্সের স্ক্রিনশট শেয়ার করার পাশাপাশি ক্যাপশানে কোহেন লেখেন, “অধ্যবসায় এবং উন্মাদনার মধ্যে একটি সূক্ষ্ম লাইন আছে। আমি এখনও বোঝার চেষ্টা করছি, এই দুইয়ের মধ্যে কোনটা রয়েছে আমার ভেতরে। ৩৯ বার প্রত্যাখ্যান, ১ বার সাফল্য।” ভাইরাল হয় পোস্ট। শোরগোল পড়ে যায় নেটিজেনদের মধ্যে। পোস্টটিতে ৩৫ হাজার লাইক পড়ে। শয়ে শয়ে মন্তব্যে ভরে যায় কমেন্ট বক্স। সকলেই কোহেনের কাহিনিতে অনুপ্রাণিত। কুর্নিশ জানাচ্ছেন যুবককে। 

Advertisement
Next