Advertisement

‘করোনা মাতা’ই দূর করবে ভাইরাসকে, উত্তরপ্রদেশে একসঙ্গে পুজো শতাধিক মহিলার

09:38 PM May 16, 2021 |
Advertisement
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা (Covid-19) সংক্রমণে বিধ্বস্ত গোটা দেশ। পরিস্থিতি সামলাতে বেশিরভাগ রাজ্যই লকডাউনের পথে হেঁটেছে। রাজনৈতিক হোক কিংবা ধর্মীয়- যেকোনও সমাবেশেই নিষেধাজ্ঞা জারি। কিন্তু এর মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে এমন একটি ছবি, যা দেখলে আঁতকে উঠবেন অনেকেই। করোনা আবহেই প্রায় শতাধিক মহিলা একসঙ্গে ‘করোনা মাতার’ পুজো সারছেন। অথচ নেই কোনও সামাজিক দূরত্ববিধি মানার নিয়ম। তাও আবার কোথায়, না খোদ যোগী আদিত্যনাথের (Yogi Adityanath) রাজ্য উত্তরপ্রদেশে (Uttar Pradesh)। ওই মহিলাদের দাবি, এতেই নাকি করোনার প্রকোপ থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে। আর এখানেই উঠছে প্রশ্ন, যে রাজ্যের নদীতে করোনায় আক্রান্তদের মৃতদেহ ভাসছে, সেখানে কীভাবে কেউ এই কাণ্ড ঘটায়।

Advertisement

একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, সম্প্রতি ঘটা এই ঘটনাটি উত্তরপ্রদেশের কুশিনগর জেলার একটি গ্রামের। কুশিনগর এবং বারাণসীর কয়েকশো মহিলা করোনা মাতার পুজো করতে জড়ো হন। পুজোর জন্য জড়ো হওয়া মহিলাদের দাবি, করোনা মাতা প্রচণ্ড রাগ করার জন্যই দেশজুড়ে এভাবে বেড়ে চলেছে কোভিডের জেরে মৃত্যুর ঘটনা। তাই তাকে শান্ত করার লক্ষ্যেই তাঁদের পুজো।

[আরও পড়ুন: ভ্যাকসিন নিলেই বিনামূল্যে মিলবে বিয়ার! টিকাকরণে গতি আনতে নজরকাড়া উদ্যোগ ডাক্তারের]

এই প্রসঙ্গে সুরিলি দেবী নামে এক মহিলা আবার বলেন, “একদিন নয়, এভাবে টানা ২১ দিন ধরে করোনা মাতার পুজো করতে হবে। তাহলেই ‘করোনা মাতা’ রুদ্ররূপ ত্যাগ করে শান্ত হবেন।” কিন্তু কীভাবে জানলেন এভাবে করোনা দূর হবে? এই প্রশ্নের উত্তরে ওই মহিলা জানান, পণ্ডিতরাই তাঁদের এভাবে করোনা মাতার পুজো করতে বলেছেন। তাতেই নাকি দূর হবে ভয়ংকর এই ভাইরাস। আরেক মহিলা বলেন, “করোনা মাতার পুজো করলে আর কিছুর প্রয়োজন নেই। তাঁর আশীর্বাদেই আমরা সুস্থ থাকব এবং তিনিই বাকিদের সুস্থ করে তুলবেন।”

এই ঘটনার কথা প্রকাশ্যে আসতেই নেটিজেনরা রীতিমতো সমালোচনায় মুখর হয়েছেন। কেউ কেউ এই ঘটনার জন্য শিক্ষার অভাবকেই দায়ী করছেন। কেউ কেউ আবার ওই মহিলাদের শাস্তির দাবিও তুলেছেন। ভাবিজি পাঁপড় থেকে গো-মূত্র, গোবর কিংবা যজ্ঞের নিদান-দেশ থেকে করোনা দূর করতে এর আগে এরকম আজব দাবি অনেকেই করেছেন। তাতেই এবার যুক্ত হল করোনা মাতার পুজোর বিষয়টি।

[আরও পড়ুন: রাখে হরি মারে কে! শ্মশানে দাহ করার আগেই কেঁদে উঠলেন করোনায় ‘মৃত’ বৃদ্ধা]

Advertisement
Next