ভারত যা বলে সেটাই হয়, বিসিসিআইকেই ‘বিশ্ব ক্রিকেটের রাজা’মেনে নিলেন আফ্রিদি

07:48 PM Jun 21, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিশ্বক্রিকেটে রাজত্ব করছে একটিই বোর্ড। তারা হল ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড (BCCI)। আর কোনও রাখঢাক না রেখে এবার ব্যাপারটা মেনেই নিলেন শাহিদ আফ্রিদি (Shahid Afridi)। বলে দিলেন, “ওরা যা বলে, সেটাই হয়।”

Advertisement

চলতি বছর দেশের মাটিতে দশ দল নিয়ে সফল ভাবে আইপিএল (IPL 2022) আয়োজন করেছে বিসিসিআই। সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের বোর্ডে ঢুকেছে বিপুল অর্থ। যার জন্য আগামী পাঁচ বছরের আইপিএলের মিডিয়া স্বত্ত্ব কেনা নিয়েও আগ্রহ ছিল তুঙ্গে। নিলামে সেই স্বত্ত্বও বিক্রি হয়েছে আকাশছোঁয়া দামে। সেই সঙ্গে বোর্ড সচিব জয় শাহ জানিয়ে দিয়েছেন, সমস্ত আন্তর্জাতিক সিরিজ বন্ধ রেখে আগামী দিনে আড়াই মাস ধরে চলবে আইপিএল। ক্ষমতার শিখরে পৌঁছে না গেলে এমন ঘোষণা করা সম্ভব নয়। আর সেই জায়গা থেকেই বিসিসিআইয়ের শক্তির কথা মেনে নিচ্ছেন আফ্রিদি।

[আরও পড়ুন: স্বাস্থ্য বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য বদলের বিল পাশ বিধানসভায়, প্রতিবাদে রাজভবনে BJP]

প্রাক্তন পাক অধিনায়ক জানেন, আইপিএলের সূচি দীর্ঘায়িত হলে তার প্রভাব পড়বে পাকিস্তানের ক্রীড়াসূচিতেও। অথচ দু’দেশের মধ্যে সম্পর্কের ভাঙনের কারণে আইপিএলে খেলার সুযোগ পান না পাকিস্তানি ক্রিকেটাররাও। ফলে বড়সড় ক্ষতির মুখে পড়তে হবে পাক ক্রিকেট বোর্ডকে। সমস্যায় পড়বেন ক্রিকেটাররাও। তাই এসব বুঝেই একটি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বুমবুম আফ্রিদি বলেছেন, “পুরো বিষয়টাই এখন টাকার খেলা। আর তার সবচেয়ে বাজার হল ভারত। ওরা যেটা বলে, সেটাই হয়।”

Advertising
Advertising

৪৮ কোটি টাকারও বেশি দামে আইপিএলের টিভি এবং ডিজিটাল স্বত্ত্ব বিক্রি করেছে বিসিসিআই। তিনদিন ধরে রীতিমতো টাকার খেলা চলেছে নিলামে। বিক্রিবাটা চূড়ান্ত হওয়ার পরই এ নিয়ে মুখ খুলেছিল পাক বোর্ড (PCB)। জানিয়েছিল, জুলাইয়ে বার্মিংহামে কমনওয়েল্থ গেমসের সময় আইসিসি বোর্ড মিটিং অনুষ্ঠিত হবে। সেখানে এই বিষয়টিও হয়তো উঠে আসবে। তারা আরও বলে, ক্রিকেটের এহেন উন্নতিতে তারা খুশি। কিন্তু এতে আন্তর্জাতিক ম্যাচের জন্য ক্রিকেটারদের পাওয়া যাবে না। যার প্রভাব পড়বে পাকিস্তান ক্রিকেটেও। সেই কারণেই বিষয়টি আইসিসির বৈঠকে উত্থাপন করতে চান পিসিবি কর্তারা।

[আরও পড়ুন: বাজপেয়ীর ঘনিষ্ঠ থেকে বিরোধীদের রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী! কেমন ছিল যশবন্ত সিনহার রাজনৈতিক যাত্রাপথ?]

Advertisement
Next