Advertisement

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলতে পারবে রিয়াল, বার্সা-সহ বিদ্রোহী ১২ দল? কী জানাল UEFA?

08:23 PM Apr 23, 2021 |
Advertisement
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিদ্রোহী লিগের মহাজোটে ইউরোপের যে বারোটা মহাশক্তিধর ক্লাব নাম লিখিয়েছিল, তাদের একটা নাম হয়েছে। ‘ডার্টি ডজন’! উয়েফার (UEFA) নিয়ন্ত্রণ থেকে যাঁরা বেরিয়ে গিয়ে আলাদা টুর্নামেন্ট করতে চেয়েছিল, যার নাম সুপার লিগ। ঠিক হয়েছিল আগামী বছর থেকে আর চ্যাম্পিয়ন্স লিগ খেলবে না। বরং খেলবে সুপার লিগ। যেখানে ইউরোপের বারোটা শক্তিশালী ক্লাব খেলবে নিজেদের মধ্যে, যেখানে ওঠা—নামা বলে কোনও বস্তু থাকবে না। কিন্তু রিয়াল মাদ্রিদ (Real Madrid) তথা সুপার লিগ প্রেসিডেন্ট ফ্লোরেন্তিনো পেরেজের সেই প্রচেষ্টা সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে সুপার লিগ ভূমিষ্ঠ হওয়ার আটচল্লিশ ঘণ্টার মধ্যে। ফিফা হুমকি দিয়েছিল। উয়েফা হুমকি দিয়েছিল। শেষ পর্যন্ত বারোটার মধ্যে দশটা ক্লাবই সুপার লিগের মহাজোট ছেড়ে বেরিয়ে যায়। এবং তার পর দেখার বিষয় ছিল, বিদ্রোহী ১২ নিয়ে উয়েফা কী করে? তারা কি চ্যাম্পিয়ন্স লিগে খেলতে দেবে তাদের? নাকি শাস্তি হবে?

Advertisement

ঘটনা হল, ফুটবলবিশ্বে এমন একটা সমান্তরাল শক্তি গঠনের চেষ্টা সত্ত্বেও পার পেয়ে যাচ্ছে ‘ডার্টি ডজন’! উয়েফা এ দিন সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলল যে, এ বছরের চ্যাম্পিয়ন্স লিগ কিংবা ইউরোপা লিগ-কোনও টুর্নামেন্ট থেকেই এই বিদ্রোহী ১২টি দলকে বহিষ্কার করা হবে না। তারা খেলতে পারবে, এত দিন যেমন খেলছিল। রিয়াল মাদ্রিদের মতো ক্লাব তো সুপার লিগ থেকে এখনও সরেও দাঁড়ায়নি। কিন্তু তা সত্ত্বেও বিদ্রোহী ১২ দলকে নিঃশর্ত মুক্তি দিয়ে দিল উয়েফা!

[আরও পড়ুন: RCB জার্সি হাতে পেপ গুয়ার্দিওলা, অধিনায়ক বিরাটের কাছে জানালেন বিশেষ আরজিও]

এ দিন এক বিবৃতিতে উয়েফা জানিয়ে দেয় যে, সুপার লিগের জোট গড়ার কারণে তারা বিদ্রোহী বারোটা ক্লাবের বিপক্ষে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে পারত। কিন্তু ফুটবলের বৃহত্তর স্বার্থের কথা ভেবে তারা সে সব কিছু করছে না। বরং তারা অতীতকে ঝেড়ে ফেলে ফুটবলকে প্রোমোট করতে চায়। উয়েফা মনে করে, মাঠ ও মাঠের বাইরে, দু’জায়গায় ভাল করলেই ক্লাবগুলোর পক্ষে ঘুরে দাঁড়ানো সম্ভব। যদিও শোনা যাচ্ছিল যে, বিদ্রোহী জোট গড়ার অপরাধে রিয়াল মাদ্রিদকে এবারের মতো বহিষ্কার করতে পারে উয়েফা। জুভেন্তাসকে আবার এক বছর নির্বাসিত করা হতে পারে। কিন্তু আদতে সে সব কিছুই ঘটল না।

ইউরোপের এই শক্তিধর ক্লাবকে নির্বাসনে পাঠালে তার প্রতিক্রিয়া কতটা মারাত্মক হতে পারে, তা নিয়ে তেমন নিশ্চিত ছিল না উয়েফা। মনে করা হচ্ছে, সেই কারণে তারা কড়া শাস্তির রাস্তায় গেল না। সুপার লিগের কফিনে এ দিনই শেষ পেরেক পড়ে গেল। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইনভেস্টমেন্ট ব্যাঙ্ক জেপি মর্গ্যান সুপার লিগ থেকে সরে গেল। যাদের সাড়ে তিন বিলিয়ন পাউন্ড দেওয়ার কথা ছিল লিগে। পরিস্থিতি নিজেদের নিয়ন্ত্রণে আসায় উয়েফা প্রধান সেফেরনি হুমকিও দিয়েছিলেন যে, বিদ্রোহীদের তিনি ‘দেখে নেবেন।’ কিন্তু আদতে কিছুই হল না। বরং ‘অপরাধ’ করেও ‘নিঃশর্ত জামিন’ পেয়ে গেল বিদ্রোহী বারো!

[আরও পড়ুন: অবসর ভেঙে ফিরবেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে? জল্পনা উসকে দিলেন পাক পেসার আমির]

Advertisement
Next