কাটছে ইনভেস্টর জট, সৌরভের হাত ধরে ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের সঙ্গে গাঁটছড়ার পথে ইস্টবেঙ্গল

06:33 PM May 22, 2022 |
Advertisement

কৃশানু মজুমদার: সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের (Sourav Ganguly) হাত ধরে ইস্টবেঙ্গলে (East Bengal) আসতে চলেছে ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড (Manchester United)। বিনিয়োগকারী নিয়ে কাটতে চলেছে দীর্ঘদিনের জট। এখনও সরকারিভাবে কোনও ঘোষণা না হলেও ইস্টবেঙ্গলের সঙ্গে গাঁটছড়া যে ম্যান ইউ-এর হচ্ছেই, তা দিনের আলোর মতো পরিষ্কার বলেই মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। সূত্রের খবর, চলতি মাসে একাধিক বার ম্যান ইউ কর্তাদের সঙ্গে ইস্টবেঙ্গল কর্তাদের বৈঠক হয়। এবং সেই বৈঠক ফলপ্রসূ হয়েছে বলেই খবর। আপাতত ইস্টবেঙ্গল সমর্থকরা আশায় বুক বাঁধতেই পারেন। ইস্টবেঙ্গলের সঙ্গে জুড়ে যাচ্ছে ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের নাম!

Advertisement

এর আগে আইপিএলেও শোনা গিয়েছিল ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের নাম। আইপিএলে (IPL) দল কিনতে আগ্রহ দেখিয়েছিল ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের কর্ণধার গ্লেজার্স পরিবার। বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ফুটবল ক্লাব ম্যান ইউয়ের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে যুক্ত গ্লেজার্সরা। শোনা যাচ্ছিল, এক প্রাইভেট ইউকুইটির মাধ্যমে আইপিএলে দল কেনার দরপত্র তুলেছে ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের কর্ণধাররা। কিন্তু শেষপর্যন্ত আইপিএলে আর আসা হয়নি ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের। আইপিএলে না হলেও ম্যাঞ্চেস্টার এবার ইস্টবেঙ্গলের সঙ্গে জুড়ে আইএসএলে নামবে, তা বলাই বাহুল্য। 

[আরও পড়ুন:ইডেনে প্লে-অফের আগে চিন্তা আবহাওয়া, বৃষ্টিতে খেলা না হলে কী হবে ফলাফল?]

আর ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডকে এবঙ্গে আনার ভগীরথ একজনই। তিনি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। তখন ঘোর খারাপ সময় ভারতীয় ক্রিকেটে। গড়াপেটার ছায়া থাবা বসিয়েছে। ঠিক সেই সময়ে সৌরভের হাতে ওঠে জাতীয় দলের ক্যাপ্টেনের আর্মব্যান্ড। তার পরের ঘটনা ভারতীয় ক্রিকেটে ইতিহাস হয়ে রয়েছে। ইনভেস্টর নিয়ে প্রবল সমস্যায় ছিল ইস্টবেঙ্গল, তা তো সবারই জানা। ঠিক এই সময়ে আবার এগিয়ে এলেন মহারাজ। লাল-হলুদের ত্রাতার ভূমিকাতেই ব্যাট ধরলেন তিনি। ইস্টবেঙ্গলে ছড়িয়ে দিলেন আলো।

Advertising
Advertising

শ্রী সিমেন্ট সরে যাওয়ার পরে ইনভেস্টর নিয়ে সত্যি সত্যিই সমস্যা একটা ছিল ইস্টবেঙ্গলে। একাধিক সংস্থার সঙ্গে কথাবার্তাও বলেন তাঁরা। বাংলাদেশের বসুন্ধরা গ্রুপের সঙ্গেও আলোচনা হয় লাল-হলুদ শীর্ষকর্তাদের। আলোচনা সারতে পদ্মাপাড়েও গিয়েছিলেন লাল-হলুদ কর্তারা। কিন্তু শেষমেশ সেই চুক্তি আর হয়নি। 

ইনভেস্টর সমস্যা দূর করার জন্য প্রাক্তন ভারত অধিনায়কের সঙ্গে দেখা করেছিলেন ইস্টবেঙ্গলের শীর্ষ কর্তা দেবব্রত সরকার। ঘটনাপ্রবাহ তার পরে গতি পেয়েছে। দুই পক্ষের একাধিক বার কথাবার্তা হয়েছে বলেই খবর। সব মিলিয়ে ইস্টবেঙ্গলে ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের সৌরভে সুরভিত।

শ্রী সিমেন্টের সঙ্গে বিচ্ছেদের পরে ইস্টবেঙ্গল সমর্থকরা আশঙ্কিত হয়েছিলেন। ক্লাবের ভবিষ্যৎ নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় লেখালেখি হয়েছিল খুব। কথায় বলে, সবুরে মেওয়া ফলে। সঠিক সময়ে মাস্টারস্ট্রোক লাল-হলুদের। 

সপ্তসাগর পাড়ের ক্লাব ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড আসছে এই বঙ্গে। হাত ধরছে ইস্টবেঙ্গলের। ভারতীয় ফুটবলে এমন ঐতিহ্যের মেলবন্ধন আর সম্ভবত ঘটেনি স্মরণকালের মধ্যে। শতবর্ষের ইস্টবেঙ্গলের ঐতিহ্যও তো কম নয়। আপাতত তাই আর একটু সময়ের অপেক্ষা। নতুন এই গাঁটছড়া, নতুন এই সম্পর্কের রসায়নে ইস্টবেঙ্গল যে মাঝের সময়ের আঁধার কাটিয়ে আলোর রোশনাই ছড়াবে, সেই আশায় বুক বাঁধছেন দেশবিদেশের অসংখ্য ইস্টবেঙ্গল অনুরাগীরা।

[আরও পড়ুন: মরণ-বাঁচন ম্যাচে লিগ টেবিলের লাস্ট বয়কে হারাতে পারল না দিল্লি, মুম্বইয়ের জয়ে প্লে-অফে কোহলিরা]

Advertisement
Next