Advertisement

Exclusive: সেমিফাইনালে খেতে হয়েছিল কামড়, সেই প্রতিপক্ষকে ক্ষমা করেছেন? মুখ খুললেন রবি কুমার

07:20 PM Aug 12, 2021 |
Advertisement
Advertisement

টোকিও অলিম্পিকে কুস্তির ফ্রি স্টাইলের ৫৭ কেজি বিভাগে অল্পের জন্য সোনা হাতছাড়া হয়েছে তাঁর। ফাইনালে উঠলেও হেরেছেন রাশিয়ান প্রতিদ্বন্দ্বীর কাছে। তবে কুস্তিগির রবি কুমার দাহিয়ার লড়াইকে কুর্নিশ জানিয়েছে গোটা দেশ। টোকিও থেকে ফিরেই মুখোমুখি হলেন সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটালের। শুনলেন সোমনাথ রায়।

Advertisement

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

রবি কুমার দাহিয়া (Ravi Kumar Dahiya)। টোকিও অলিম্পিকে (Tokyo Olympics) অনন্য ইতিহাস রচনা করেছেন তিনি। কুস্তির ফাইনালে অল্পের জন্য সোনা হাতছাড়া হলেও লড়াই করেছেন যথেষ্ট। ফাইনালে উঠলেও হেরেছেন রাশিয়ান প্রতিদ্বন্দ্বীর কাছে। তবে রবির লড়াইকে কুর্নিশ জানিয়েছে গোটা দেশ। বিশেষ করে ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে যেভাবে হারিয়েছেন কাজাখস্তানের প্রতিযোগী নুরিস্লাম সানায়েভকে, তা নিয়ে যথেষ্ট শোরগোলও পড়ে গিয়েছিল সংবাদমাধ্যমে। এমনকী হাতে কামড়ও খেয়েছেন ভারতীয় কুস্তিগির। সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটালকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সেই প্রসঙ্গেই মুখ খুললেন রবি কুমার দাহিয়া।

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1628750382106-0'); });
googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1628750799038-0'); });

টোকিও থেকে ভারতে আসার পরই সংর্বধনার জোয়ারে ভেসে গিয়েছেন অলিম্পিকে পদকজয়ীরা। বাদ পড়েননি রবিও। তবে এখনও বাড়ি ফেরা হয়নি কুস্তিগিরের। তবে বাড়িতে না গেলেও আরেক বাড়ি অর্থাৎ দিল্লির ছত্রশাল স্টেডিয়ামে কিন্তু চলে এসেছেন তিনি। দেখা করেছেন কোচ সতপাল সিংয়ের সঙ্গে। নিজের অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিয়েছেন অন্যান্যদের সঙ্গেও। আর সেখানেই সংবাদ প্রতিদিনের মুখোমুখি হয়েছিলেন তিনি।

[আরও পড়ুন: Tokyo Olympics-এ সোনাজয়ের পর এবার নয়া সাফল্য Neeraj Chopra’র]

সাক্ষাৎকারে কথা প্রসঙ্গে রবি জানালেন, নিজের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার ব্যাপারে। পাশাপাশি জানা গেল, ছোট থেকেই বাড়ি ছেড়ে এতটা দূরে থাকতেন তিনি। বাবা এসে দিয়ে যেতেন খাবার। কীভাবে আরও উন্নতি সম্ভব কুস্তিতে, সেকথাও জানাতে ভুললেন না তিনি। তবে এরপরই সেমিফাইনাল ম্যাচ নিয়ে আলোচনায় উঠে আসে কাজাখস্তানের প্রতিযোগীর কথা। তাঁকে হাতে কামড়ের ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে রবি কুমার জানান, “কুস্তিতে এই ধরনের কাজ করা নিয়মবিরুদ্ধ। রেফারি তাঁকে ওয়ার্নিং দিয়েছিলেন। এরপর ওই ধরনের কাজ করলে তাঁকে ব্যান করা হবে। আসলে ওই মঞ্চে নিজের সেরাটাই দিতে চাই। নুরিস্লামও ম্যাচ জিততে চেয়েছিল, আমিও জেতার জন্য সেরাটা দিয়েছিলাম।” রবি কি এই কাজের জন্য কাজাখস্তানের প্রতিযোগীকে ক্ষমা করেছেন? ভারতীয় কুস্তিগির জানিয়ে দেন, “পরদিনই আমার কাছে এসে ক্ষমা চেয়েছিল নুরিস্লাম। আমরা আসলে খুবই ভাল বন্ধু। আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় বহুবার একে-অপরের বিরুদ্ধে লড়াইও করেছি।” এরপরই নিজের পরবর্তী লক্ষ্যের কথাও জানিয়ে দিলেন তিনি। স্পষ্ট বলে দিলেন, রুপো বা ব্রোঞ্জ নয়, এবার তাঁর লক্ষ্য সোনা জয়।

[আরও পড়ুন: India vs England: দ্বিতীয় টেস্টে রুটকে রুখতে প্রয়োজন অশ্বিনের, বলছেন VVS Laxman]

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

Advertisement
Next