নীরজকে অভিনব সম্মান ভারতীয় ডাক বিভাগের, সোনাজয়ীর গ্রামে বসল সোনালি লেটার বক্স

09:43 PM Jan 09, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: নীরজ চোপড়া (Neeraj Chopra)। ভারতীয়দের কাছে তিনি এক স্বপ্নের নাম। এক সোনালি স্বপ্ন। তাঁর হাত ধরেই গত বছর টোকিও অলিম্পিকে সোনা পেয়েছে ভারত। এবার ‘সোনার ছেলে’র প্রতি অভিনব সম্মান প্রদর্শন করল ভারতীয় ডাক বিভাগ। নীরজের হোম টাউন পানিপথের খান্দ্রায় এক সোনালি লেটার বক্স স্থাপন করা হল জ্যাভলিন থ্রোয়ার তরুণ নীরজের সাফল্যকে উদযাপন করতে। যা প্রতি মুহূর্তে সকলকে মনে করিয়ে দেবে নীরজের ঐতিহাসিক সোনালি সাফল্যের কথা।

Advertisement

লেটার বক্সের রং সাধারণত লাল হয়। কিন্তু নীরজের ক্ষেত্রে সেই প্রথা ভাঙল ডাক বিভাগ। সোনালি ওই লেটার বক্সে লেখা রয়েছে ‘২০২০ টোকিও অলিম্পিকে (Tokyo Olympics 2020) জ্যাভলিনের স্বর্ণপদকজয়ী নীরজ চোপড়ার সম্মানে’। লেটার বক্সটি নীরজের বাড়ির খুব কাছেই লাগানো হয়েছে। ইতিমধ্যেই ওই সোনালি লেটার বক্সের ছবি ভাইরাল হয়ে গিয়েছে নেট ভুবনে।

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1630720090-3');});

Advertising
Advertising

[আরও পড়ুন: Cristiano Ronaldo: ক্লাবের পারফরম্যান্সে ‘অখুশি’, ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড ছাড়তে চান রোনাল্ডো!]

৯০ দিন ধরে কোচ ক্লজ বার্তোনেইৎজ ও ফিজিওথেরাপিস্ট ইশান মারওয়াহার সঙ্গে ক্যালিফোর্নিয়ায় প্রশিক্ষণ নিচ্ছিলেন নীরজ। সামনেই বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ। সেদিকে লক্ষ্য রেখেই কড়া অনুশীলনে নিজেকে ডুবিয়ে রেখেছেন ন‌ীরজ। সম্প্রতি দেশে ফিরেছেন ‘সোনার ছেলে’। এর মধ্যেই তাঁকে এই অভিনব সম্মান প্রদর্শন করল ভারতীয় ডাক বিভাগ। নীরজ জানিয়েছেন, করোনা পরিস্থিতিতেও তাঁর অনুশীলনে কোনও খামতি নেই। তাঁর কথায়, ‘‘করোনা নিয়ে স্ট্রেস রয়েছে। তবু আমি তৈরি রয়েছি। কোচ বলেছেন, আরও মন দিতে পারলে আমি হয়তো এবার ৯০ মিটারের লক্ষ্যমাত্রাকেও টপকে যেতে পারি।’’

[আরও পড়ুন: দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠুন ‘দাদা’, সৌরভের আরোগ্য কামনা করে ফল-হেল্থ ড্রিঙ্কস পাঠালেন মমতা]

উল্লেখ্য, নীরজই প্রথম ভারতীয় অ্যাথলিট যিনি ভারতের হয়ে অলিম্পিকে স্বর্ণপদক জিতেছিলেন। এই বিভাগে ভারত শেষ বার পদক পেয়েছিল ১২১ বছর আগে। কিন্তু সেই পদক যিনি জিতেছিলেন, তিনি ব্রিটিশ-ভারতীয় নরম্যান প্রিচার্ড। কিন্তু কোনও ভারতীয়র অ্যাথলেটিক্সে সোনার পদক জেতার কৃতিত্ব নীরজেরই। দীর্ঘদিন‌ের খরা কাটিয়ে নয়া কীর্তি গড়েছেন তিনি।

Advertisement
Next