জনরোষে পিছু হটল জিনপিং প্রশাসন, দেশ থেকে কঠোর কোভিড বিধি তুলে নিল চিন

01:20 PM Dec 07, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: প্রজা ঐক্যবদ্ধ হলে রাজা পিছু হটতে বাধ্য হয়। সে শাসন ব্যবস্থা যতই শক্ত ধাতের হোক। নভেম্বরের শেষ সপ্তাহ থেকে চিনে (China) তুমুল আকার ধারণ করে লকডাউন (Lockdown) বিরোধী প্রতিবাদ। ‘হয় স্বাধীনতা দাও, নয় মৃত্যু দাও’ স্লাগান তুলে পথে নামে আমজনতা। বিক্ষোভকারীদের অধিকাংশই ছিল নবীন প্রজন্ম। ক্ষুব্ধ জনতা চিনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের (Xi Jinping) ইস্তফার দাবি তোলে। এই অবস্থায় দেশ থেকে কড়া কোভিড বিধিনিষেধ তুলে নিল চিনা সরকার। আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, বিমান-বাস-ট্রেন যাত্রা-সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে এতদিন কোভিড পরীক্ষা বাধ্যতামূলক ছিল। তা শিথিল করা হয়েছে। এছাড়াও কোভিডে আক্রান্তদের নিজের বাড়িতে নিভৃতবাসের অনুমতি দিয়েছে শি জিনপিং প্রশাসন।

Advertisement

এশিয়ার অন্য দেশগুলির তুলনায় চিনে কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা বর্তমানে বেশি। নভেম্বর শেষেও বেজিং-সহ একাধিক শহরে নতুন করে করোনা সংক্রমণ ছড়িয়েছে। সেখানে দৈনিক করোনা (Coronavirus) আক্রান্তের সংখ্যা ৪ হাজার ছুঁইছুঁই। এর মধ্যেই দিনের পর দিন লকডাউনে নাজেহাল মানুষ মুক্ত জীবনের দাবিতে প্রশাসন বিরোধী বিভোক্ষ শুরু করে। আগুনে ঘি পড়ে একটি বহুতলে আগুন লাগার ঘটনায় ১০ জনের মৃত্যুতে। অভিযোগ, বহুতলটির চারপাশে লকডাউন থাকায় সেই বহুতলের বাসিন্দারা পালিয়ে প্রাণে বাঁচতে পারেননি। এই অবস্থায় লকডাউন মানবেন না, এই অবস্থানে অনড় হন চিনের নাগরিকদের অধিকাংশ। চিনা প্রশাসনের নীতির বিরুদ্ধে লাগাতার প্রতিবাদ করে যাচ্ছেন তাঁরা। সেই সঙ্গে চিনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের (Xi Jinping) ইস্তফারও দাবি তোলেন বিক্ষোভকারীরা।

[আরও পড়ুন: রাজতন্ত্রের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ, রাজা চার্লসের দিকে ডিম ছুঁড়লেন ব্রিটিশ যুবক]

এই অবস্থায় কার্যত বাধ্য হয়ে জনতার দাবি মেনে লকডাউন তুলে নিল চিনা সরকার। সংবাদ সংস্থার খবর, ইতিমধ্যে এই বিষয়ে ঘোষণা করেছে প্রশাসন। বিভিন্ন ক্ষেত্রে কোভিড পরীক্ষা বাধ্যতামূলক ছিল। সেই বিধি শিথিল করা হয়েছে। এছাড়াও এতদিন নিয়ম ছিল, কোভিড আক্রান্তদের সরকারি কোয়ারেন্টাইন সেন্টার থাকতে হবে। সেই নিয়মও তুলে নিয়েছে জিনপিং প্রশাসন। কোভিডে আক্রান্তদের নিজের বাড়িতেই নিভৃতবাসের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।
এদিকে জনতা-প্রশাসন ডামাডোলের মধ্যেই ফের মহমারীর জন্য চিনকে দায়ী করা হয়েছে। সেই দাবি করেছেন খোদ এক চিনা বিজ্ঞানী। ইউহান শহরের বিতর্কিত গবেষণাগারের এক প্রাক্তন বিজ্ঞানী বিস্ফোরক দাবি করেছেন, করোনা ভাইরাস মানুষের তৈরি! আমেরিকার মদতেই এই কাজ করেছে চিন! তাঁর এই মন্তব্যের পরে শোরগোল পড়ে গিয়েছে। অনেকের দাবি, জৈব অস্ত্র হিসেবে ওই আণুবীক্ষণিক জীবগুলিকে তৈরি করেছিল লালফৌজ।
Advertising
Advertising
Advertisement
Next