জাপানে শুরু কোয়াড গোষ্ঠীর বৈঠক, উদ্বোধনী ভাষণেই চিনকে নিশানা মোদির

08:40 AM May 24, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: জাপানে শুরু কোয়াড (QUAD) গোষ্ঠীর বৈঠক। মঙ্গলবার উদ্বোধনী ভাষণেই চিন বিরোধী শুরু বেঁধে দেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। টোকিওয় নমো স্পষ্ট বলেন, ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের স্বাধীনতা বজায় রাখতে কোয়াড বা চতুর্দেশীয় জোট বদ্ধপরিকর।

Advertisement

[আরও পড়ুন: তাইওয়ানকে বাঁচাতে প্রয়োজনে যুদ্ধে নামবে মার্কিন সেনা, এশিয়া সফরে চিনকে কড়া বার্তা বাইডেনের]

কোয়াড সম্মেলনে যোগ দিতে সোমবার জাপানে পৌঁছন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এনিয়ে দ্বিতীয়বার সশরীরে মিত্র দেশগুলির এই বৈঠকে যোগ দিয়েছেন তিনি। বলে রাখা ভাল, ভারত, আমেরিকা, জাপান ও অস্ট্রেলিয়াকে নিয়ে তৈরি হয়েছে কোয়াড জোট। মূলত, চিনকে নজরে রেখেই এই জোট তৈরি হয়েছে। তবে করোনা মহামারীর বিরুদ্ধেও নেমেছে কোয়াড। ভারতের উৎপাদনী শক্তিকে কাজে লাগিয়ে গোটা বিশ্বে ভ্যাকসিন পৌঁছে দিয়ে ‘টিকা কূটনীতি’তে বেজিংকে টেক্কা দেওয়ার পদক্ষেপ করছে এই জোট। মঙ্গলবার অর্থাৎ আজ থেকে শুরু হয়েছে জোটের বৈঠক। জানা গিয়েছে, আজ জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদার সঙ্গে বৈঠক করবেন প্রধানমন্ত্রী। এছাড়াও মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে আলাদা করে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করবেন মোদি। সদ্য নির্বাচিত অস্ট্রেলীয় প্রধানমন্ত্রী অ্যান্টনি অ্যালবানিজও উপস্থিত রয়েছেন কোয়াড সম্মেলনে।

এদিন উদ্বোধনী ভাষণে প্রধানমন্ত্রী মোদি বলেন, “করোনা মহামারীর নিদারুণ প্রকোপ সত্ত্বেও ভ্যাকসিন জোগান দিতে সমন্বয় গড়ে তুলেছি আমরা। শুধু তাই নয়, জলবায়ু পরিবর্তন, বিপর্যয় মোকাবিলা, অর্থনৈতিক সহযোগিতার মতো ক্ষেত্রেও একজোট হয়ে কাজ করেছে কোয়াড। এর ফলে ইন্দো-প্যাসিফিক বা ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে শান্তি, সমৃদ্ধ ও স্থিতাবস্থা বজায় রয়েছে।” চিনকে স্পষ্ট বার্তা দিয়ে মোদি বলেন, “ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলের স্বাধীনতা বজায় রক্ষায় আমাদের উদ্দেশ্য।”

Advertising
Advertising

এদিকে, কোয়াড বৈঠকের আগে ইন্দো-প্যাসিফিকে চিনকে কাবু করতে ‘ইন্দো-প্যাসিফিক ইকনমিক ফ্রেমওয়ার্ক ফর প্রসপারিটি’ (আইপিইএফ)-এর ঘোষণা করেন আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন (Joe Biden)। কোয়াড বৈঠকের দেশগুলির মধ্যে অর্থনৈতিক সংযোগ সাধনের প্রয়াসে স্বাভাবিক ভাবেই ক্ষুব্ধ বেজিং। তারা আগাম ক্ষোভ জানিয়ে রবিবারেই বলেছে, চিনকে আটকানোর জন্যই এই কৌশল। আমেরিকা, ভারত এবং জাপান-সহ মোট তেরোটি দেশ এতে যুক্ত। ফলে প্রত্যেকেই তাদের সুবিধে এবং চাহিদার দিকটি সামনে আনবে। চলবে তা নিয়ে দরকষাকষি। নীতিগত ভাবে ভারত যে এই পরিকল্পনার সঙ্গেই রয়েছে, এর আগেই সেই ইঙ্গিত দিয়েছিল সাউথ ব্লক।

[আরও পড়ুন: মাঙ্কিপক্সের উৎস কী? সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়াচ্ছে নানা গুজব, সতর্ক করছেন বিশেষজ্ঞরা]

Advertisement
Next