মারিওপোলের পর ফের ধাক্কা, ইউক্রেনীয় সেনাকে কোণঠাসা করে বড় জয় পেল রুশ ফৌজ

04:42 PM Jun 27, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বহু রক্ত ঝরিয়েও হল না শেষরক্ষা। ইউক্রেনীয় সেনাকে কোণঠাসা করে বড় জয় পেল রুশ ফৌজ। পূর্ব ইউক্রেনে মারিওপোলের পর এবার পুতিন বাহিনী দখল করল কৌশলগত দিক থেকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সেভেরদোনেৎস্ক শহর।

Advertisement

রয়টার্স সূত্রে খবর, শনিবার জেলেনস্কি বাহিনীকে হঠিয়ে পূর্ব ইউক্রেনের সেভেরদোনেৎস্ক শহর দখল করে ফেলেছে রাশিয়া (Russia)। এই খবরেরে সত্যতা স্বীকার করে নিয়েছে কিয়েভ। যদিও তাদের দাবি, কৌশলগত কারণে সেভেরদোনেৎস্ক থেকে পিছিয়ে সিভেরস্কি ডোনেৎস নদীর অন্য পারে লিসিচানস্ক শহরে জমা হয়েছে ফৌজ। এবং সেখানে উঁচু জায়গায় ঘাঁটি তৈরি করে লড়াই চালানো হচ্ছে। গত মাসে বন্দর শহর মারিওপোল দখল করে রুশ সেনা। তারপর সেভেরদোনেৎস্ক হচ্ছে দ্বিতীয় বড় শহর যেটি তারা দখল করেছে। তবে যুদ্ধের ফলে কার্যত ধূলিসাৎ হয়ে গিয়েছে শহরটি। এক সময় লক্ষাধিক মানুষের বাসস্থান প্রাণচঞ্চল সেভেরদোনেৎস্ক এখন ধ্বংসপুরী। শহরটি মেয়র ওলেকসান্দ্র স্ত্রয়ুক বলেন, “শহরের নিয়ন্ত্রণ রুশ সেনার হাতে। সেখানে নিজেদের মতো করে শাসনব্যবস্থা চালু করার চেষ্টা করছে তারা।

[আরও পড়ুন: গুলিতে ঝাঁজরা অন্তত ৬ পুলিশ অফিসার, মেক্সিকোয় চরমে বন্দুকবাজদের দৌরাত্ম্য]

এদিকে, যুদ্ধে বড় ধাক্কার পরও লড়াই চালিয়ে যাওয়ার বার্তা দিয়েছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি (Volodymyr Zelenskyy)। ভিডিও বার্তায় জাতির উদ্দেশে তিনি বলেন, “যে সমস্ত শহর আজ রাশিয়ার দখলে সেগুলো পুনরুদ্ধার করবে ইউক্রেন।” তবে সেভেরদোনেৎস্ক শত্রুর হাতে চলে যাওয়ায় তিনি যে ধাক্কা খেয়েছেন তা জেলেনস্কির কথায় স্পষ্ট হয়ে ওঠে। তিনি বলেন, “এই লড়াই কতদিন চলবে আমরা জানি না। আর কত আঘাত, ক্ষতি ও বলিদানের পর জয়ের আশা দেখতে পাওয়া যাবে তাও জানা নেই।”

Advertising
Advertising

উল্লেখ্য, ফেব্রুয়ারির ২৪ তারিখ ইউক্রেনে ‘বিশেষ সামরিক অভিযান’ শুরু করে রাশিয়া। কিন্তু এখনও কিয়েভ দখল করতে পারেনি তারা। লড়াইয়ে কয়েক হাজার সেনা ও বিপুল অস্ত্র খুইয়ে গত এপ্রিলে সামরিক অভিযানের প্রথম পর্বে ইতি টানার কথা ঘোষণা করে রাশিয়া। তারপর গত মাসে মারিওপোল শহর দখল করে তারা। একইসঙ্গে দোনবাস অঞ্চলে অভিযান তীব্র করে তোলে পুতিনের বাহিনী। এখনও দোনবাসের ডোনেৎস্ক ও লুহানস্ক অঞ্চলে রুশপন্থী বিদ্রোহীদের সঙ্গে তুমুল লড়াই চলছে ইউক্রেনীয় ফৌজের।

[আরও পড়ুন: রাশিয়ার বিরুদ্ধে খড়গহস্ত G-7 দেশগুলি, সোনা আমদানি বন্ধের সিদ্ধান্ত]

Advertisement
Next