Advertisement

জোর করা চলবে না, বিয়েতে লাগবে মহিলাদের সম্মতি, আচমকাই ভোলবদল তালিবানের

04:49 PM Dec 04, 2021 |

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ফের দেশবাসীর সামনে ভাবমূর্তি ফেরানোর চেষ্টায় তালিবান (Taliban)। এবার তাদের ফরমান আফগান মহিলাদের বিয়েকে কেন্দ্র করে। যাদের ভবিষ্যৎ ইতিমধ্যে অন্ধকারে ঠেলে দেওয়া হয়েছে। তবুও নয়া ফরমানে ঘোষণা করা হয়েছে, আফগান নারী পণ্য নন। তাই জোর করে মেয়েদের বিয়ে দেওয়া চলবে না। বিয়ের আগে বাড়ির মেয়ের সম্মতিও নিতে হবে।

Advertisement

নয়া ফরমান জারি করেছে তালিবানে তথ্য ও সংস্কৃতিমন্ত্রী জাবিউল্লাহ মুজাহিদ। তার মতে, “আমরা সবসময় মহিলাদের সম্মানকে অগ্রাধিকার দিয়েছি। তাই আমরা কখনও আমাদের দেশের পণ্য বলে মনে করি না। আমরা মনে করি বিয়েতে একজন পুরুষের যেমন মতামত দেওয়ার অধিকার আছে, ঠিক তেমন-ই একজন মহিলার সেই অধিকার আছে।”

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1630720090-3');});

[আরও পড়ুন: Cyclone Jawad: বাংলায় কতটা প্রভাব ফেলবে ঘূর্ণিঝড় ‘জাওয়াদ’? জানিয়ে দিল আবহাওয়া দপ্তর]

তা-হলে কেন ক্ষমতা দখলের পর আফগান (Afghanistan) মহিলাদের বোরখার আড়ালে ঠেলে দেওয়া হল? কেন সরকারি ও বেসরকারি সব জায়গা থেকে মহিলাদের নিষিদ্ধ করা হল? কেন দেশের সিনেমা-নাটকে মহিলাদের অভিনয়ের উপর ফতোয়া জারি করা হল? এতদিন পরেও অবশ্য এই প্রশ্নের কোনও উত্তর নেই তালিবান প্রশাসনের কাছে। কূটনৈতিক মহলের মতে, তালিবান শাসকরা খুব ভালভাবেই জানে, আফগানিস্তান তো বটেই, এমনকী, তামাম দু্‌নিয়া তাদের বিশ্বাস করে না। তাই গত তিন মাস ধরে ভাবমূর্তি ফেরাতে মরিয়া তারা। আর তাই বারবার অস্ত্র করা হচ্ছে দেশের মহিলাদের।

প্রসঙ্গত, ১৯৯৬ থেকে ২০০১- এই সময়ে আফগানিস্তানে মহিলাদের বাড়ি থেকে একা বেরনোর কোনও অনুমতি ছিল না। সেই পরিস্থিতি এখন অনেক বদলেছে বলেও এদিন দাবি করেছে জাবিউল্লাহ। তার দাবি, “আমরা চাই মহিলারা আবার স্কুলে ফিরুন। পড়াশোনা শুরু করুন।” কিন্তু কে বিশ্বাস করে এই কথা। কারণ, বাস্তবের সঙ্গে এই বক্তব্যের জমিন-আসমান ফারাক থেকেই যাচ্ছে।

[আরও পড়ুন: একবার চার্জ দিলেই সাইকেল চলবে ১০০ কিমি, জানেন দাম কত?]

Advertisement
Next