Advertisement

পুলিশের অনুমতি সত্ত্বেও ঝাড়গ্রামে তৃণমূলের মিছিলে বাধা, পথে বসে বিক্ষোভ তারকা প্রার্থীর

07:22 PM Mar 23, 2021 |
Advertisement
Advertisement

সুনীপা চক্রবর্তী, ঝাড়গ্রাম: মিছিলের অনুমতি নেওয়া ছিল আগেই। তারপরেও ঝাড়গ্রামে (Jhargram) তৃণমূলকে মিছিল করতে না দেওয়ার অভিযোগ উঠল প্রশাসনের বিরুদ্ধে। প্রতিবাদে মঙ্গলবার রামগড়ের রাস্তায় বসে বিক্ষোভ দেখালেন সাঁওতালি সিনেমার তারকা তথা তৃণমূল প্রার্থী বীরবাহা হাঁসদা (Birbaha Hansda)। সঙ্গে ছিলেন দলীয় কর্মীরা।

Advertisement

স্থানীয় সূত্রে খবর, ঝাড়গ্রামের রামগড়ে মিছিল করার কথা ছিল তৃণমূলের। দুপুর তিনটে থেকে সন্ধে সাতটা পর্যন্ত মিছিল করার কথা তাঁদের। মিছিলের প্রশাসনিক অনুমতিও ছিল। এদিকে এদিন ওই এলাকায় সভা করার কথা ছিল বিজেপিরও। গেরুয়া শিবির কর্মীরা এলাকায় জড়ো হয়ে মাইক বাঁধতে শুরু করেন। ফলে তৃণমূলের মিছিল ভেস্তে যায়।

[আরও পড়ুন : ফের উদয় ওয়েইসির! বাংলার কিছু আসনে প্রার্থী দিতে চায় AIMIM]

প্রশাসনের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ তুলে রামগড়ের রাস্তায় বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন তৃণমূল প্রার্থী বীরবাহা হাঁসদা। এমনকী, নির্বাচন কমিশনের জেলা অফিসে অভিযোগও দায়ের করেন তৃণমূল কর্মীরা। এর পরই রাস্তা আটকে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন তৃণমূল কর্মীরা। প্রশাসনের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে থাকেন তাঁরা। 

এদিকে রামগড়ের ওই সভাস্থলে সভা করার কথা ছিল শুভেন্দু অধিকারী। কিন্তু এই উত্তপ্ত পরিস্থিতিতে পুলিশ বিজেপির তারকা প্রচারক শুভেন্দুকে রামগড় ঢুকতে দেয়নি। বাতিল হয় বিজেপির সভা। লালগড় থানার সামনে আটকে দেয়। নয়াগ্রাম, গিধনিতে সভা করার পর বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারীর বিকেলে লালগড় থানার রামগড়ে পদযাত্রা এবং জনসভা করার কথা ছিল।

[আরও পড়ুন : বিনয়পন্থীদের পালটা তিন প্রার্থী ঘোষণা গুরুংপন্থীদের, কাকে সমর্থন করবে তৃণমূল?]

এদিকে সভা বাতিল হলেও রামগড়ে রাত পর্যন্ত ছিল উত্তেজনা। যুযুধান দু’পক্ষ। বিজেপির লোকজন বিভিন্ন জায়গায় জমায়েত করে শ্লোগান দিতে থাকে। পুরো এলাকায় মোতায়েন রয়েছে কেন্দ্রীয় বাহিনী,পুলিশ। ঝাড়গ্রাম আসনের তৃণমূল প্রার্থী বীরবাহা হাঁসদা বলেন, “বিজেপি সুবিধা করে দিচ্ছে কমিশন। আমাদের অনুমতি থাকা সত্বেও আমাদের কর্মসূচিতে বাধা দেওয়া হচ্ছে। আর বিজেপির অনুমতি না থাকা সত্ত্বেও সভা করতে দেওয়া হচ্ছে। এটা কেন হবে? কমিশনকে জানানো সত্ত্বেও কোনও পদক্ষেপ নেয় নি। তাই পথে বসে ছিলাম।” অন্যদিকে বিজেপির ঝাড়গ্রাম জেলা বিজেপির সভাপতি তুফান মাহাতোকে বারে বারে ফোন করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।

ছবি: প্রতীম মৈত্র

দেখুন ভিডিও:

Advertisement
Next