Advertisement

India vs South Africa: জমে গেল দ্বিতীয় টেস্ট, প্রোটিয়াদের ২৪০ রানের টার্গেট দিল ভারত

06:09 PM Jan 05, 2022 |

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: জমে গেল জোহানেসবার্গ টেস্ট (Johannesburg)। প্রথম ইনিংসের পর দ্বিতীয় ইনিংসেও সুবিধা করে উঠতে পারলেন না ভারতীয় ব্যাটাররা। পূজারা, রাহানে, শার্দূল ঠাকুর (Shardul Thakur) ছাড়া আর কোনও ভারতীয় ব্যাটার সেভাবে কেউ রান পেলেন না। যার জেরে ভারতের দ্বিতীয় ইনিংস শেষ হয়ে গেল ২৬৬ রানে। দ্বিতীয় ইনিংসে ভারতের লিড ২৩৯ রানের।

Advertisement

কথায় আছে, পুরনো চাল ভাতে বাড়ে। সেই প্রবাদকে সত্য প্রমাণ করলেন টিম ইন্ডিয়ার পুরনো দুই স্তম্ভ। একজন চেতেশ্বর পূজারা আরেকজন অজিঙ্কে রাহানে (Ajinkya Rahane)। চাপের মুখে ভারতের ইনিংসকে বিপর্যয়ের মুখ থেকে বাঁচালেন এই দুই তারকাই। যাদের টেস্ট কেরিয়ারই এখন বড়সড় প্রশ্নের মুখে। মূলত পূজারা এবং রাহানের শতরানের জুটিতে ভর করেই জোহানেসবার্গ টেস্টে প্রোটিয়াদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে থাকল ভারত।

Advertising
Advertising

[আরও পড়ুন: তাঁর নামের আগে ‘লর্ড’ কেন? মুখ খুললেন ভারতীয় পেসার শার্দূল ঠাকুর]

দ্বিতীয় দিনের শেষে ভারতের স্কোর ছিল ২ উইকেটের বিনিময়ে ৮৫। রাহুল (KL Rahul) এবং মায়াঙ্কের উইকেটের পতনের পর পূজারা এবং রাহানে ইনিংসের হাল ধরেছিলেন। সেই জুটিই এদিন ভারতের স্কোর পৌঁছে দিলেন দেড়শো রানের ওপারে। দলগত ১৫৫ রানের মাথায় আউট হন রাহানে। তাঁর সংগ্রহ ৫৮ রান। কিছুক্ষণ বাদে ফিরে যান পূজারাও (Cheteshwar Pujara)। তিনি করেন ৫৩ রান। এরপর পন্থ দ্রুত প্যাভিলিয়নে ফেরত যান। ১৬ রান করে ফেরেন অশ্বিনও। শেষদিকে দুর্দান্ত ব্যাটিং করেন হনুমা বিহারী এবং শার্দূল ঠাকুর। বিহারী করেন অপরাজিত ৪০ এবং শার্দূল ৫টি চার এবং একটি ছক্কা হাঁকিয়ে করেন ২৮ রান। ফলে ভারতের ইনিংস শেষ হয় ২৬৬ রানে।

[আরও পড়ুন: এবাদাতে কুপোকাত কিউয়িরা, নিউজিল্যান্ডের মাটিতে টেস্ট জিতে ইতিহাস বাংলাদেশের]

দক্ষিণ আফ্রিকার (South Africa) মাটিতে প্রথমবার টেস্ট সিরিজ জেতার ইতিহাস গড়তে ভারতকে প্রোটিয়াদের আউট করতে হবে এই ২৩৯ রানের মধ্যে। অন্যদিকে প্রোটিয়ারা চাইবে যেভাবেই হোক ২৪০ রানের লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছে সিরিজে সমতা ফেরাতে। তবে, জোহানেসবার্গের পিচে পেসাররা যেভাবে মদত পাচ্ছেন, তাতে প্রোটিয়াদের জন্য কাজটা বেশ কঠিনই হতে চলেছে। গত ১১ বছরে শেষ ইনিংসে ২০০’র বেশি রান প্রটিয়ারা তাড়া করেছে মাত্র এক বার। তাই এই মুহূর্তে ভারত যে খানিকটা হলেও স্বস্তির জায়গায়, সেটা বলে দেওয়াই যায়।

Advertisement
Next