‘কোনও মহিলাকে হিজাব খুলতে বাধ্য করা যায় না’, পোশাক বিতর্কে মন্তব্য বক্সিং চ্যাম্পিয়ন নিখাতের

09:31 PM May 24, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: তাঁর বয়স তখন মাত্র ১০। একবার স্টেডিয়ামে গিয়ে দেখেছিলেন, মেয়েকে সব খেলায় অংশ নিলেও কেউ বক্সিং খেলছেন না। বাবাকে প্রশ্ন করেছিলেন, মহিলারা কি বক্সিং করতে পারে না? বাবা বলেছিলেন, “মহিলারা সব পারে। শুধু দুনিয়া মনে করে, কঠিন খেলা বলে বক্সিংটা মহিলাদের জন্য নয়।” তারপরই বক্সিং রিংয়ে নেমে এই ছুতমার্গ ভেঙে দেওয়ার প্রতিজ্ঞা করেছিলেন। বাকিটা ইতিহাস। কথা হচ্ছে নিখাত জারিনের (Nikhat Zareen)। বক্সিংয়ে বিশ্বজয় করে যিনি রাতারাতি দেশবাসীর চোখের মণি হয়ে উঠেছেন।

Advertisement

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1652782001027-0'); });

মহিলাদের বিশ্ব বক্সিং চ্যাম্পিয়নশিপের (Women’s World Championship) ৫২ কেজি বিভাগের ফাইনালে সোনা জেতেন নিখাত। মেরি কম, সরিতা দেবী, জেনি আরএল এবং লেখা কেসির পর পঞ্চম ভারতীয় হিসেবে এই কৃতিত্ব অর্জন করেন তেলেঙ্গানার বক্সার। নিজের এই সাফল্য়ের কৃতিত্ব বাবাকেই দিতে চান তিনি। সেই অল্প বয়সে বাবা এভাবে অনুপ্রেরণা না দিলে হয়তো এতদূর পৌঁছতে পারতেন না তিনি। মহিলারাও যে পুরুষদের থেকে কোনও অংশে কম নয়, সেটাই আর দুনিয়ার কাছে প্রমাণ করে দিয়েছেন তিনি। বলছেন, “আমায় শুধু বক্সিং রিংয়ে নয়, সমাজ, মানুষের মানসিকতার সঙ্গেও লড়াই করতে হয়েছে। আমার এই সাফল্য যদি একটি মেয়েকেও অনুপ্রেরণা জোগাতে পারে, সেটাই হবে আমার সবচেয়ে বড় উপহার।”

[আরও পড়ুন: আগামী মরশুমে আইপিএলে ফিরছেন, জল্পনা উড়িয়ে জানিয়ে দিলেন ডিভিলিয়ার্স]

কখনও হিজাব পরে বক্সিং (Boxing) রিংয়ে নামতে বলা হয়নি নিখাতকে? এমন প্রশ্নের উত্তরে ২৫ বছরের বক্সার বলে দিচ্ছেন, তাঁর পরিবার কখনও তাঁকে হিজাব করে প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে বলেননি। কিন্তু বক্সিংয়ে মহিলাদের হিজাব পরে খেলার অধিকার আছে। তাই নিখাতের কথায়, “কাউকে হিজাব পরতে কিংবা খুলতে বলা যায় না। এটা সম্পূর্ণ তাঁর নিজের পছন্দের ব্যাপার। কারণ হিজাব পরে খেলায় কোনও নিষেধাজ্ঞা নেই।”

Advertising
Advertising

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1652782050143-0'); });

এমনিতে ধর্মের পথ অনুসরণ করতেই ভালবাসেন নিখাত। এককথায় যাকে বলে ধার্মিক। তবে নিখাত এও স্পষ্ট করে দেন, তাঁর কাছে বক্সিং ধর্মেরও ঊর্ধ্বে। জানান, অনুশীলনের জন্য একাধিকবার নমাজ পরারও সময় পাননি। তাঁর বিশ্বাস, ভাল কাজের মধ্যেই প্রার্থনা লুকিয়ে রয়েছে। অন্যের সঙ্গে ভাল ব্য়বহার ও ভাল কাজ করলেই উপরওয়ালা খুশি হন। রিং ও রিংয়ের বাইরের নিখাতের এই চিন্তাধারাও যে আগামীদের উদ্বুদ্ধ করবে, তা বলাই বাহুল্য।

[আরও পড়ুন: মোদির গুজরাটকে টপকে মহিলা কর্মসংস্থানে ভারতসেরা বাংলা, বলছে কেন্দ্রীয় রিপোর্ট]

Advertisement
Next