Advertisement

‘পাকিস্তান মুর্দাবাদ’স্লোগান তুলে রাস্তায় আফগান মহিলারা, বিদ্রোহ রুখতে গুলি তালিবানের

04:52 PM Sep 07, 2021 |
Advertisement
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: তালিবানকে সমর্থন করেছে পাকিস্তান (Pakistan)। পঞ্জশির দখলে তালিবানকে মদত জুগিয়েছে তারাই। দাবি অন্তত তেমনই। আফগানিস্তানের অন্দরে বাড়ছে ক্ষোভ। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে স্লোগান দিয়ে মঙ্গলবার রাস্তায় নামলেন আফগান মহিলারা। তাদেরও রেহাই দিল না তালিবান। মহিলাদের উপরই এলোপাথাড়ি গুলি চালাল জেহাদিরা। হতাহতের খবর এখনও মেলেনি।

Advertisement

মঙ্গলবার কাবুলের রাস্তায় তালিবানের (Taliban Terror) বিরুদ্ধে সরব আম আফগানিরা। মিছিলে পুরুষরা থাকলেও বোরখা পরিহিত মহিলাদের সংখ্যা ছিল অনেক বেশি। হাতে ছিল প্ল্যাকার্ড, আফগানিস্তানের (Afghanistan) পতাকা। মুখে ছিল পাকিস্তান, আইএসআইয়ের বিরুদ্ধে স্লোগান। মিছিল কিছুক্ষণ চলার পরই এলোপাথাড়ি গুলি ছোড়ে তালিব জেহাদিরা।

[আরও পড়ুন: Afghanistan Crisis: পঞ্জশিরে তালিবানের ঘাঁটিতে হামলা রহস্যময় যুদ্ধবিমানের, নিহত বেশ কয়েকজন জঙ্গি]

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে সেই মিছিলের ভিডিও।সেখানে দেখা গিয়েছে রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করছেন আফগান নাগরিকরা। তাঁদের মুখে শোনা গিয়েছে, ‘স্বাধীনতা চাই’ থেকে ‘পাকিস্তান দূর হঠো’ স্লোগান। আইএসআই ‘দূর হঠো’ স্লোগানও শোনা গিয়েছে তাদের গলায়। সম্মিলিতভাবে তাদের দাবি, পঞ্জশির দখলের অধিকার নেই কারওর। সে পাকিস্তান বা তালিবান যেই হোক না কেন। আমাদের স্বাধীনতা দিতেই হবে।” এদিন সেই বিদ্রোহী কণ্ঠস্বর দমাতেই মরিয়া ছিল তালিবান। মহিলাদের উপরে হামলা চালাতেও দ্বিধা করল না তারা। 

[আরও পড়ুন: Afghanistan Crisis: সেনা প্রত্যাহারের পর আফগানিস্তান থেকে প্রথমবার উদ্ধার ৪ মার্কিন নাগরিক]

 

 

উল্লেখ্য, আজ থেকে নয়, সেই আশির দশক থেকেই সোভিয়েত-বিরোধী লড়াইয়ের মুখ ছিল পঞ্জশির। আফগান মুজাহিদ কমান্ডার আহমেদ শাহ মাসুদ ছিলেন সেই আন্দোলনের পুরোধা। সময় দাঁড়িয়ে থাকে না। এই মুহূর্তে তালিবানের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সেই পঞ্জশিরেরই আরেক নেতার নাম উঠে আসছে। তিনি আহমেদ মাসুদ। পঞ্জশিরের কিংবদন্তি ‘সিংহ’ আহমেদ শাহ মাসুদের বড় ছেলে। পাক বিমানবাহিনীর এবং তালিবানের হামলায় পঞ্জশির উপত্যকার জনবসতিগুলি হাতছাড়া হয়েছে মাসুদ বাহিনীর। তবে তাজিক যোদ্ধারা হিন্দুকুশের দুর্গম পাহাড়ি এলাকা নিয়ন্ত্রণে রেখেছেন বলে খবর। সেখান থেকে তালিবান বাহিনীর বিরুদ্ধে দীর্ঘকালীন গেরিলা যুদ্ধও চালাতে পারেন তিনি। একই রণকৌশলে আশির দশকে সোভিয়েত সেনার মোকাবিলা করেছিলেন ‘সিনিয়র মাসুদ’। ফলে লড়াই এখনও শেষ হয়নি বলেই মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

Advertisement
Next