Advertisement

Bengal Polls LIVE UPDATE: কোচবিহারে গুলিকাণ্ডে কমিশনকে রিপোর্ট পর্যবেক্ষকদের

06:50 PM Apr 10, 2021 |
Advertisement
Advertisement

বঙ্গে আজ চতুর্থ দফার ভোট। উত্তরবঙ্গের আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার-সহ মোট ৫ রাজ্যের ৪৪ টি বিধানসভা কেন্দ্রে লড়াই। ভাগ্যপরীক্ষা বেশ কয়েকজন হেভিওয়েট ও তারকা প্রার্থীর। রাজ্যের মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়, অরূপ বিশ্বাসদের পাশাপাশি ভোটযুদ্ধে অবতীর্ণ তারকা প্রার্থী পায়েল, শ্রাবন্তীরাও। করোনা আবহে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকাল থেকে শুরু হয়েছে ভোটপর্ব। ভোটের যাবতীয় খুঁটিনাটি জানতে চোখ রাখুন: 

Advertisement

সন্ধে ৬.২০: কোচবিহারে গুলিকাণ্ডে কমিশন-সহ বিজেপি ও তৃণমূলকে কাঠগড়ায় তুললেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি।

সন্ধে ৬.১০: মাথাভাঙায় গুলিকাণ্ডে কমিশনকে রিপোর্ট দিলেন পর্যবেক্ষক ও পুলিশ পর্যবেক্ষক। আত্মরক্ষা ও বুথ বাঁচাতেই গুলি চালানো হয়েছে। CISF ও রাজ্য পুলিশের ৩ জনের অস্ত্র ছিনতাইয়ের অভিযোগ রয়েছে রিপোর্টে।

বিকেল ৫.৩০: এখনও পর্যন্ত রাজ্যের ৫ জেলায় ভোট পড়েছে ৭৫.৯০ শতাংশ। ভোটের হার সবচেয়ে বেশি রাজনৈতিক অশান্তিতে দিনভর খবরের শিরোনামে থাকা কোচবিহারে, ৭৯.৭৭ শতাংশ।

বিকেল  ৫.০২: নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে আজ নয়, রবিবারই শীতলকুচি যাবেন মুখ্যমন্ত্রী। জানালেন মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়।

বিকেল ৪.৫৬: কেন্দ্রীয় সরকারের পুলিশের গুলিতে খুন, সব পরিকল্পনা করে ঘটানো হয়েছে। শিলিগুড়িতে সাংবাদিক বৈঠকে শীতলকুচির ঘটনা নিয়ে সরব মুখ্যমন্ত্রী। গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে জিততে পারবে না, তা বুঝেই হিংসার পথ নিচ্ছে বিজেপি। মন্তব্য় তাঁর। বললেন, ”সিআইডি আলাদা তদন্ত করে দেখবে, কারা গুলি চালাল। এখনও আমার সরকার আছে, এটা আমার করণীয়।”

বিকেল ৪.৪৪: কোচবিহারের শীতলকুচির ঘটনায় ৪ জনের মৃত্য়ুতে শোকপ্রকাশ, টুইট  সীতারাম ইয়েচুরির।

বিকেল ৪.৩০: ”আজকে কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিচালনা এবং তাতে মানুষের মৃত্যুর ঘটনার আমরা তীব্র নিন্দা করছি। গণতন্ত্রের উৎসবকে রক্তের হোলি দিয়ে কলুষিত করবার এই ঘৃণ্য ‘খেলা’র তীব্র প্রতিবাদ জানানো উচিত সকল গণতন্ত্রপ্রিয়, শান্তিকামী মানুষের। সত্ত্বর এই ঘটনার বিচারবিভাগীয় তদন্ত দাবি করছি। এই ঘটনার জন্য মুখ্যমন্ত্রীও নিজের দায় অস্বীকার করতে পারেন না। তিনি বারংবার নিজের সমর্থকদের হিংসাত্মক করে তুলতে চেয়েছেন, উসকানি দিয়েছেন। বারবার এই বিষয়ে নির্বাচন কমিশনের কাছে দরবার করা সত্ত্বেও তারা এব্যাপারে উদাসীন থেকেছে। দুঃখজনকভাবে, মুখ্যমন্ত্রী বাংলার সমাজের একাংশকে নিজের ব্যক্তিগত সম্পত্তি মনে করেন ও তাঁদের প্রাণের বিনিময়ে গদি বাঁচাতে বিন্দুমাত্র অনুশোচনা বোধ করেন না। শীতলকুচির এই মর্মান্তিক ঘটনা ভারতের গণতন্ত্রের ইতিহাসে একটি কালো দিন।” কোচবিহারের ঘটনায় বিবৃতি মহম্মদ সেলিমের।

দুপুর ৩.৫৬:  আজ বিকেলেই শিলিগুড়ি যাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।  বিকেল ৫টায় সার্কিট হাউসে সাংবাদিক বৈঠক।

দুপুর ৩.২০:  কোচবিহারের পাতলাখাওয়ায় আরও এক বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার। মৃতের নাম অমল দাস।  তাঁকে খুন করে দেহ ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে প্রাথমিক অভিযোগ।

দুপুর ৩.০৪:  মাথাভাঙায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে ৪ জনের মৃত্যু। বাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযোগ নিয়ে রাজ্য নির্বাচন কমিশনে তৃণমূলের প্রতিনিধিদল। নালিশ ডেরেক, সৌগত, সুব্রত মুখোপাধ্যায়দের। 

 

দুপুর ২.২২:  সোনারপুর দক্ষিণে ভোটকেন্দ্র ঘুরে দেখছেন বিজেপি প্রার্থী অঞ্জনা বসু।

বেলা ২.০০: শীতলকুচির ১২৬ নম্বর বুথ, যেখানে কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে গুলি চালানোর অভিযোগ উঠেছে, সেখানে CRPF মোতায়েন ছিল না। বিবৃতি দিয়ে দাবি CRPF-এর। 

বেলা ১.৫৬: মাথাভাঙায় গুলি চালানোর ঘটনার ব্যাখ্যা দিলেন এসপি দেবাশিস ধর। বললেন, “এক যুবক অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। তার চিকিৎসা করছিল স্থানীয় কয়েকজন। সেই সময় তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করছিল বাহিনীর কয়েক জন জওয়ান। ঠিক তখন গুজব ছড়ায়, সিআইএসএফের মারে ওই যুবক অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তার পরই প্রায় তিনশো সাড়ে তিনশো গ্রামবাসী, যাঁদের মধ্যে অধিকাংশই মহিলা, জওয়ানদের ঘিরে ধরে। উত্তেজনা ছড়ায়। অস্ত্র ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা চলে। এমনকী, ব্যালট ছিনতাইয়ের অবস্থা তৈরি হয়। তখন নিয়ম মেনেই গুলি চালায় বাহিনী। ১৫ রাউন্ড গুলি চলে। ৪ জনের মৃত্যু হয়।” 

বেলা ১.৪৫: বেলা দেড়টা পর্যন্ত রাজ্যে ভোট পড়ল ৫২.৮৯ শতাংশ।

বেলা ১.৩৯: রবিবার শীতলকুচি যাচ্ছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কালো ব্যাজ পরে রাজ্যজুড়ে মিছিল করবেন তৃণমূল নেতা-কর্মীরা। 

বেলা ১.১০: শীতলকুচির ১২৬ নম্বর বুথে ভোট বন্ধের নির্দেশ কমিশনের। বিকেল ৫টার মধ্যে গোটা ঘটনার পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট তলব করল কমিশন। 

বেলা ১২.৪৮: দিনহাটায় সাংবাদিক হেনস্থার প্রতিবাদে কমিশনে অভিযোগ করল তৃণমূল।

বেলা ১২.৪৪: কোচবিহারে সিআইএসএফের গুলিতে চারজনের মৃত্যুর ঘটনায় শোকপ্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বললেন, “কোচবিহারে যা হয়েছে তা দুঃখজনক। যাঁদের মৃত্যু হয়েছে ওঁদের পরিবারের জন্য সমবেদনা রইল।” মোদির অভিযোগ, “বিজেপির প্রতি মানুষের সমর্থন দেখে তৃণমূল ও তাঁর গুন্ডাবাহিনীর ভয় পাচ্ছে। তাই এসব করছে।”

বেলা ১২.২৪: জোরপাটকির ঘটনায় নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছে তৃণমূল। 

বেলা ১২.১১: পাঁচলা জয়রামপুর ১৮৫ নম্বর বুথে মেরে রক্তাক্ত করে দেওয়ার অভিযোগ কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে। অভিযোগ, বাড়িতে বসে ভাত খাচ্ছিলেন এক ব্যক্তি। তখনই মারধর করা হয়। এই ঘটনায় মোট জখম ৯।

বেলা ১২.০২: ভাঙড় বিধানসভায় সাঁইআটি গ্রামে ২৫১-২৫২ বুথে ভোটাদের ভোটদানে বাধা। অভিযোগের তির তৃণমূলের দিকে। অভিযোগ অস্বীকার তৃণমূলের। ঘটনাস্থলে এসেছে কেন্দ্রীয় বাহিনী।

বেলা ১২.০০: গলফগ্রিনের সত্যরঞ্জন খাস্তগীর স্কুলে বাবা মায়ের সঙ্গে ভোট দিলেন সায়নী ঘোষ।

সকাল ১১.৩০: মাথাভাঙায় তিনশো-চারশো লোক কেন্দ্রীয় বাহিনীর উপর হামলা চালিয়েছিল বলে দাবি করেছে নির্বাচন কমিশন। বাহিনীর জওয়ানদের ঘিরে বিক্ষোভ দেখানো হয়েছিল। বাধ্য হয়ে গুলি চালিয়েছে বাহিনী, দাবি কমিশনের। পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট তলব করল কমিশন। 

সকাল ১১.২৮: মাথাভাঙার ঘটনার তীব্র নিন্দা করলেন তৃণমূল নেত্রী দোলা সেন। সিআরপিএফের এক্তিয়ার নিয়ে প্রশ্ন করায় রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে শোকজ করেছিল কমিশন। এই ঘটনা মমতার অভিযোগকে সত্য বলে প্রমাণ করছে বলে দাবি করলেন দোলা। তাঁর কথায়, এই ঘটনার জবাব দিক কমিশন। 

সকাল ১১.১৮: বেলা ১১ টা পর্যন্ত বাংলায় ভোটের হার ১৬.৬৫ শতাংশ।

 

সকাল ১১.১২: উত্তরবঙ্গের মাথাভাঙার জোড়পাটকিতে কাঠগড়ায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানরা। অভিযোগ, তাদের গুলিতে মৃত ৪। সিআরপিএফের গুলিতেই মৃত্যু, জানাল নির্বাচন কমিশন। জোড়পাটকিতে গুলির ঘটনায় আহত আরও চার জন। 

সকাল ১১.০৬: আক্রান্ত তৃণমূল প্রার্থী উদয়ন গুহরায়। জয় শ্রীরাম স্লোগান দিয়ে তৃণমূল প্রার্থীর গাড়িতে হামলা চালানোর অভিযোগ উঠেছে বিজেপির আশ্রিত গুণ্ডাদের বিরুদ্ধে। 

সকাল ১১.০৪: টালিগঞ্জের ২৯১ নম্বর বুথে ভুয়ো ভোটারকে হাতে নাতে ধরলেন বাবুল সুপ্রিয়। মৃত ভোটারের কার্ড নিয়ে একজন ভোট দিতে এসেছিলেন। উল্লা নামের এক সমাজবিরোধীর মাযের কার্ড নিয়ে অন্য এক মহিলা এই ভোট দিতে এসেছিলেন বলে অভিযোগ। ফলস ভোটার কার্ড নিতে গিয়ে নিগৃহীত হয়েছেন খোদ বিজেপি প্রার্থী।

সকাল ১০.৫১: মাথাভাঙার জোরপাটকিতে গুলি। একাধিক ব্যক্তির গুলিবিদ্ধ হন বলে অভিযোগ। 

সকাল ১০৪৮: গড়িয়ার ব্রহ্মপুরে বিজেপি প্রার্থী বাবুল সুপ্রিয়কে ঘিরে বিক্ষোভ। 

সকাল ১০.৪২: ভাঙড়ের নওশাদ সিদ্দিকিকে ঘিরে বিক্ষোভ। ১৫১, ১৫২ নম্বর বুথে ঢুকতে বাধা। দুষ্কৃতীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করেন নওসাদ। পরে বুথের পিছন দিকে এলে তাঁকে ঘিরে ফের বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে দুষ্কৃতীরা। এই ঘটনায় একজন তৃণমূল কর্মীকে আটক করা হয়েছে। 

সকাল ১০.৪২: ভেটাগুড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ে ভোট দিলেন বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিক।

সকাল ১০.২১; চুঁচুড়ার বিজেপি প্রার্থী লকেট চট্টোপাধ্যায়কে ঘিরে কালো পতাকা। উঠল গো ব্যাক স্লোগানও। স্থানীয় সূত্রের খবর, চুঁচুড়ার সংখ্যালঘু অধ্যুষিত ঈশ্বরবাহা এলাকার বুথে গিয়েছিলেন লকেট। সেখানে ভোটারদের লাইনে গন্ডগোল হয়। লকেট যেতেই তাঁকে ঘিরে শুরু হয় বিক্ষোভ।  পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে লাঠিচার্জ করে পুলিশ। পরে লকেটের গাড়ি ভাঙচুরও করে বলে অভিযোগ।

সকাল ১০.১১: বালির একাধিক বুথে ছাপ্পা পড়ছে বলে অভিযোগ আনলেন বিজেপি প্রার্থী বৈশালী ডালমিয়া।

সকাল ১০.০০: হরিদেবপুরের আধাসেনার সঙ্গে তৃণমূল প্রার্থী রত্না চট্টোপাধ্যায়ের তর্কাতর্কি। অভিযোগ, ভোটের লাইনে দাঁড়িয়ে ভোটারদের প্রভাবিত করছিলেন বিজেপি কর্মীরা। জওয়ানদের বিরুদ্ধে নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ তুলেছেন রত্না চট্টোপাধ্যায়।

সকাল ৯.৪৯: হুগলি-সহ একাধিক জেলার একাধিক বুথে তৃণমূল এজেন্টদের বসতে বাধা। কমিশনে অভিযোগ দায়ের তৃণমূলের। 

সকাল ৯.৩০: উলুবেড়িয়া পূর্বে ভোট দিলেন বিজেপির তারকা প্রার্থী হিরণ চট্টোপাধ্যায়। 

 

সকাল ৯.২৬: দক্ষিণ কলকাতার গাঙ্গুলি বাগানের এক বুথে সিপিএম এজেন্টের চোখে লঙ্কা গুড়ো ছেটানোর অভিযোগ। এই ঘটনায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ। উল্লেখ্য, সুজন চক্রবর্তীর এজেন্ট দীপ্তি লাহিড়ি। নির্দল এজেন্ট সুনন্দা দাস তাঁর চোখে লঙ্কার গুড়ো ছিটিয়েছেন বলে অভিযোগ।

সকাল ৯.২৫: ভেটাগুড়ি রুইয়ের কুঠিতে তৃণমূলের ব্লক সভাপতির মোটর বাইক পুড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ। উদয়ন গুহর নেতৃত্বে পুলিশকে ঘিরে বিক্ষোভ।

সকাল ৯.২২: দিনহাটার ভেটাগুড়িতে পুলিশকে ঘিরে বিক্ষোভ। ভোটারদের ভয় দেখানো এবং তৃণমূলের বুথ এজেন্টকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ। তৃণমূলের দাবি, কেন্দ্রীয় বাহিনীর উপস্থিতিতেই বিজেপি এই কাণ্ড ঘটিয়েছে। রাস্তায় বসে বিক্ষোভ দেখালেন মহিলারা। 

সকাল ৯.০০: উলুবেড়িয়া থেকে বিজেপি কর্মীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার। আত্মহত্যা নাকি রাজনৈতিক খুন তা এখনও জানা যায়নি। 

সকাল ৮.৫৪: বালির একাধিক বুথে বিজেপি এজেন্টকে বসতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ তুললেন বিজেপি প্রার্থী বৈশালী ডালমিয়া। অভিযোগের তির তৃণমূল। বৈশালী বলেন, “তৃণমূল ভয় পেয়েছে। তাই এসব করছে।” একই অভিযোগ করেছেন কসবার বামপ্রার্থী শতরূপ ঘোষও। 

সকাল ৮.৫১: প্রথমবারের জন্য নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন টলি পাড়ার সেলেব কাঞ্চন মল্লিক। ভোটের দিন কোন্নগরের শকুন্তলা কালীবাড়িতে পুজো দিয়ে দিন শুরু করলেন তিনি। 

সকাল ৮.৪৭: শীতলকুচিতে গুলিবিদ্ধ বিজেপি কর্মীর মৃত্যু। প্রথমবার ভোট দিতে এসেছিলেন তিনি।  সিতাই থেকে উদ্ধার দেহ। শীতলকুচির ঘটনায় সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং অফিসারকে ফোন কমিশনের কর্তাদের। ঘটনার বিবরণ চাইলেন তাঁরা। 

সকাল ৮.৪৪: মহিলা ও যুব সমাজকে রেকর্ড সংখ্যক ভোটদানের আরজি প্রধানমন্ত্রীর। টুইট করলেন মোদি। টুইট করলেন মমতাও।

 

সকাল ৮.২৭: আলিপুরদুয়ারে  বিশেষভাবে সক্ষম এক মহিলাকে ভোটকেন্দ্র নিয়ে গেলেন কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ান।

সকাল ৮.২২: আইডিতে সমস্যা থাকায় টালিগঞ্জের গান্ধি কলোনি ভারতী বালিকা বিদ্যালয় বুথে বিজেপি এজেন্টকে বসতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠছিল। ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দিলেন বিজেপি প্রার্থী বাবুল সুপ্রিয়। 

 

সকাল ৮.০৮: কোচবিহারের শীতলকুচির পাঠানটুলিতে গুলিবিদ্ধ বিজেপির কর্মী। জখম একাধিক কর্মী। এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত আটক এক। বোমাবাজির অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে লাঠিচার্জ কেন্দ্রীয়বাহিনীর। 

সকাল ৮.০৮: উত্তরবঙ্গের দিনহাটা, শীতলকুচি, নাটাবাড়ি, তুফানগঞ্জের একাধিক বুথে তৃণমূলের এজেন্টদের ঢুকতে না দেওয়ার অভিযোগ। কমিশনে অভিযোগ জানাল তৃণমূল। 

সকাল ৮.০৪: পুজো দিয়ে দিন শুরু করলেন বিজেপি প্রার্থী লকেট চট্টোপাধ্যায়।

সকাল ৮.০৩: ভোট দিলেন ভাঙড়ের বিজেপি প্রার্থী সৌমি হাতি। 

সকাল ৭.৫০: সকাল সকাল ভাঙড়ের বুথ ঘুরে দেখলেন আইএসএফ প্রার্থী নওসাদ সিদ্দিকি। 

সকাল ৭.৪৮: মহেশতলা ২২ নম্বর বুথ সন্তোষপুর পাবলিক হাই মাদ্রাসার ইভিএম খারাপ ছিল।

সকাল ৭.৪৪: কসবার ১০৭ নম্বর বুথে বাম এজেন্টকে বসতে না দেওয়ার অভিযোগ। কাঠগড়ায় তৃণমূল।

সকাল ৭.৩৮: শীতলকুচিতে দফায়-দফায় উত্তেজনা। বিজেপি-তৃণমূলের সংঘর্ষে রণক্ষেত্র। বিজেপি পোলিং এজেন্টকে মারধরের অভিযোগে আটক তৃণমূল নেতা। 

সকাল ৭.১৬: ভোট শুরুর কয়েক মিনিটের মধ্যে উত্তর হাওড়ার গোলাবাড়িতে বোমাবাজির অভিযোগ। তৃণমূল-বিজেপি কর্মীদের মধ্যে অশান্তি। ভোটারদের ভয় দেখাতেই বোমাবাজি হয় বলে অভিযোগ। 

সকাল ৭.১৬: সোনারপুর উত্তরের ১৪১ নম্বর বুথে ইভিএম খারাপ। ভোটগ্রহণে দেরি।

সকাল ৭.১১: বালির লালবাবা কলেজে উত্তেজনা। বুথের ভিতরেই তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষের অভিযোগ। কেন্দ্রীয় বাহিনীর তৎপরতায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

সকাল ৭.০৮: মাথাভাঙার মানাবাড়িতে আক্রান্ত তৃণমূল। তৃণমূলের বুথ সভাপতি, কর্মীদের বাড়িতে ভাঙচুর, বোমাবাজির অভিযোগ।  কাঠগড়ায় বিজেপি।

সকাল ৭.০৩: দিনহাটা কেন্দ্রের ভেটাগুরিতে ভোটারদের লম্বা লাইন। বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিক এই বুথের ভোটার।

সকাল ৬.৫২: বাড়ি থেকে হেলমেট পরে বের হলেন কোচবিহারের নাটাবাড়ির তৃণমূল প্রার্থী তথা রাজ্যের বিদায়ী মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ। মন্ত্রীর দাবি, আত্মরক্ষার আগাম ব্যবস্থা। 

সকাল ৬.৪৮: বেহালা পূর্বের ১৪৪ নম্বর বুথ এলাকায় উত্তেজনা। বিজেপির নেতা কর্মীদের বাড়িতে হামলার অভিযোগ উঠেছে। গেরুয়া শিবিরের অভিযোগের তির তৃণমূলের দিকে। যদিও অভিযোগ মানতে রাজি নয় ঘাসফুল শিবির। 

সকাল ৬.৪৬: শীতলকুচির ডাকঘড়া হাই স্কুলের বুথে মকপোল নিয়ে গন্ডগোল। ভোটের সংখ্যায় হেরফের হচ্ছে বলে খবর। 

সকাল ৬.৩৯: নির্বাচনের আগের রাতে ভাঙড় থানার আইসিকে সরানো হয়। তাঁকে সরানোর দাবিতে সকাল থেকে নির্বাচন কমিশনের দপ্তর ঘেরাও করে রাখে আইএসএফের সর্মথকরা। তাঁদের দাবিকে মান্যতা দিয়ে নির্বাচন কমিশনের এই সিদ্ধান্ত বলে জানিয়েছে আইএসএফ নেতৃত্ব।

সকাল ৬.৪০: ভাঙড়ের রাঙামাটিতে তৃণমূলের কার্যালয়ে ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ আইএসএফের কর্মীদের বিরুদ্ধে। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করে আব্বাস সিদ্দিকির অনুগামীদের পালটা দাবি, তৃণমূল কর্মীরা নিজেরাই দলীয় কার্যালয় ভাঙচুর করেছে। 

সকাল ৬.৩৩: সকাল সকাল যাবদপুরের শহিদ স্মৃতি কলোনিতে উত্তেজনা। বিজেপির পোলিং এজেন্টকে মারধরের অভিযোগ। বিজেপি প্রার্থীকে বুথ থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ। প্রার্থী রিঙ্কু নস্করের অভিযোগ, তৃণমূল কর্মীরা বিজেপির এজেন্টকে বের করে দিয়েছে। কেন্দ্রীয় বাহিনীর উপস্থিতিতেই এই ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি তাঁর। তবে উপস্থিত ভোটাররা বিজেপি প্রার্থীর বিরুদ্ধে পালটা অশান্তি ছড়ানো অভিযোগ তুলেছেন। যাদবপুরের আরেক বুথে সিপিএম এজেন্টকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে।

সকাল ৬.৩০: নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তায় মুড়েছে ৫ জেলা। আলিপুরদুয়ারে ৯৯, বারুইপুর ৪৫, চন্দননগর ৮৪, কোচবিহার ১৮৮, ডায়মন্ড হারবার ৩৯, হুগলি ৯১, হাওড়া ১৪০, কলকাতায় ১০১, জলপাইগুড়ি ৬ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। আকাশপথেও চলছে নজরদারি।

করোনা আবহে ভোট। ভোটকেন্দ্রে যাওয়ার আগে জেনে রাখুন নির্বাচন কমিশনের নির্দেশিকা। ভোট দিন, সতর্ক থাকুন।

Advertisement
Next