Advertisement

জোগানে টান? কোভিশিল্ডের দু’টি ডোজের মাঝে বাড়ছে ব্যবধান

04:56 PM May 13, 2021 |
Advertisement
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: টিকার দ্বিতীয় ডোজের খোঁজে হন্যে হয়ে ঘুরছেন বহু মানুষ। অবিযোগ উঠছে প্রথম করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিলেও দ্বিতীয় ডোজ পাওয়া যাচ্ছে না। এমন পরিস্থিতিতে টিকার দ্বিতীয় ডোজ দেওয়ার উপর জোর দিয়েছে কেন্দ্র। তবু ঘাটতি মিটছে না। এর মাঝেই কোভিশিল্ডের দ্বিতীয় ডোজ নিয়ে তাৎপর্যপূর্ণ সুপারিশ করল কেন্দ্রীয় সরকারি প্যানেল National Immunization Technical Advisory Group। তাঁদের এই সুপারিশ NEGVA তে পাঠানো হয়। শেষে তাঁদের সুপারিশেই চূড়ান্ত সিলমোহর দিল কেন্দ্র। 

Advertisement

কী সুপারিশ করল National Immunization Technical Advisory Group? কোভিশিল্ডের দুটি ডোজের মধ্যে পার্থক্য বাড়ানোর যেতে পারে। প্যানেলের প্রস্তাব, কোভিশিল্ডের দুটি ডোজের মধ্যে ব্যবধান বাড়িয়ে ১২-১৬ সপ্তাহ করা যেতে পারে। তবে কোভ্যাক্সিনের দুটি ডোজের মধ্যকার ব্যবধান বাড়ানোর প্রয়োজন নেই। তাঁদের সুপারিশ মেনে নেয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকও। 

[আরও পড়ুন: করোনা আবহে পিছিয়ে গেল UPSC পরীক্ষা, দেখে নিন পরিবর্তিত সময়সূচি]

উল্লেখ্য, টিকাকরণের প্রথম ভাগে দু’টি ডোজের মধ্যে ব্যবধান ছিল ৪ সপ্তাহ। পরে তা বাড়িয়ে আট সপ্তাহ অর্থাৎ ৫৬ দিন করা হয়। এবার ফের সেই ব্যবধান বাড়ানোর সুপারিশ করা হল। দেশজুড়ে বাড়তে থাকা টিকা সংকটের মধ্যে কেন্দ্রীয় প্যানেলের এই সুপারিশ অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ।

ইতিমধ্যে এই সুপারিশ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জয়রাম রমেশ। টুইটারে তিনি লেখেন, “প্রথমে বলা হল, কোভিশিল্ডের দুটি ডোজের মধ্যে ৪ সপ্তাহের ব্যবধান রাখা দরকার। তারপর তা বাড়িয়ে ৬-৮ সপ্তাহ করা হল। এখন আবার এই ব্যবধান বাড়িয়ে ১২-১৬ সপ্তাহ করা হচ্ছে। কেন বারবার নির্দেশিকা বদল করা হচ্ছে? এর পিছনে কি কোনও বৈজ্ঞানিক কারণ আছে? নাকি টিকার জোগান পর্যাপ্ত নয়, তাই দুটি ডোজের মধ্যেকার ব্যবধান বাড়ানো হচ্ছে।” এর পরই কেন্দ্রীয় সরকারকে তাঁর খোঁচা, মোদি সরকারের কাছ থেকে এইটুকু স্বচ্ছতা কি আমরা আশা করতে পারি না?

[আরও পড়ুন: আগামী দু’মাসেই দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসবে, আশাবাদী স্বাস্থ্যমন্ত্রক]

Advertisement
Next