কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে ফ্যাকাল্টি পদে নিয়োগ পিএইচডি ছাড়াই, নয়া নির্দেশিকা UGC-র

11:13 AM Oct 03, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে ফ্যাকাল্টি নিয়োগের ক্ষেত্রে নয়া নির্দেশিকা জারি করল বিশ্ববিদ‌্যালয় মঞ্জুরি কমিশন বা ইউজিসি (UGC)। নতুন নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে, পিএইচডির (PHD) মতো শিক্ষাগত যোগ্যতা না থাকলেও যে কোনও ক্ষেত্রে একজন বিশিষ্ট পেশাদার দেশের যে কোনও কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে ফ্যাকাল্টি হিসেবে কাজের জন্য যোগ্য বিবেচিত হতে পারেন। এই পদের নাম নির্ধারণ করা হয়েছে ‘প্রফেসর অফ প্র্যাকটিস’।

Advertisement

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1652782001027-0'); });

‘প্রফেসর অফ প্র্যাকটিস’ (Professor of Practice) পদে যোগ‌্য বিবেচিত হতে কোনও ব্যক্তিকে তাঁর নিজস্ব ক্ষেত্র বা পেশায় অসাধারণ অবদান রাখতে হবে। থাকতে হবে কমপক্ষে ১৫ বছরের চাকরির অভিজ্ঞতা। তবে এই পদের জন্য কোনও প্রথাগত শিক্ষাগত যোগ্যতার প্রয়োজন নেই। প্রযুক্তি, বিজ্ঞান, সাহিত্য, সমাজবিজ্ঞান, আইন, গণমাধ‌্যম, সশস্ত্র বাহিনী, চারুকলা- যে কোনও ক্ষেত্রের পেশাদাররাই এই পদে নিযুক্ত হতে পারবেন।

window.unibots = window.unibots || { cmd: [] }; unibots.cmd.push(()=>{ unibotsPlayer('sangbadpratidin'); });

[আরও পড়ুন: অভাবের গলি থেকে জাতীয় দলের রাজপথে মুকেশ, ‘মা দুর্গার কৃপা’, বললেন বাংলার পেসার]

কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট শিক্ষক পদের ১০ শতাংশ পদে ‘প্রফেসর অফ প্র্যাকটিস’ অর্থাৎ কর্মক্ষেত্রে অভিজ্ঞ ব‌্যক্তিদের নিযুক্ত করা যাবে। সর্বোচ্চ তিন বছরের জন্য এই নিয়োগে কোনও প্রবেশিকা পরীক্ষা নেওয়া হবে না। বিশেষ ক্ষেত্রে কর্মজীবন এক বছর বাড়ানো যাবে বলেও অনুমতি দিয়েছে ইউজিসি। শিক্ষকদের বেতনের দেবে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। পাশাপাশি পড়ুয়ারা চাইলে দু’টি পাঠ্যক্রম বা অ্যাকাডেমিক প্রোগ্রামে একসঙ্গে পড়তে পারেন বলেও কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলিকে নির্দেশ দিয়েছে উচ্চ শিক্ষা ক্ষেত্রের নিয়ন্ত্রক বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন।

Advertising
Advertising

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1652782050143-0'); });

[আরও পড়ুন: আরও কমল দেশের দৈনিক করোনা সংক্রমণ, ২৪ ঘণ্টায় পজিটিভ তিন হাজারের সামান্য বেশি]

কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ করে কিছু পাঠ্যক্রম তৈরি করতেও বলা হয়েছে। জাতীয় শিক্ষানীতি অনুযায়ী, শিল্প ক্ষেত্র এবং বাস্তবের মধ্যে পড়ুয়াদের যোগাযোগ তৈরির জন্যই এই উদ্যোগ ইউজিসির। এর ফলে কাজের জন‌্য অনেক বেশি ক্ষেত্র উন্মুক্ত হবে বলে আশা প্রকাশ করা হয়েছে ইউজিসির তরফে।

Advertisement
Next