‘লাস্ট বয়’হওয়ার জন্য ইস্টবেঙ্গলে আসিনি, আইএসএলে নামার আগে লক্ষ্য জানালেন স্টিফেন

02:10 PM Oct 10, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দেখতে দেখতে এসে গেল এবারের আইএসএল (ISL)। এই মেগা টুর্নামেন্টের দিকে তাকিয়েই দল গড়েছে ইস্টবেঙ্গল (Emami East Bengal)। নতুন দল। নতুন কোচ। নতুন স্বপ্ন। শুক্রবার বল গড়াচ্ছে ইন্ডিয়ান সুপার লিগের। প্রথম ম্যাচে স্টিফেন কনস্ট্যানটাইনের (Stephen Constantine) ইস্টবেঙ্গলের সামনে ইভান ভুকোম্যানোভিচের কেরালা ব্লাস্টার্স। এবার নিয়ে দ্বিতীয় বার কেরালা ব্লাস্টার্সের দায়িত্বে ভুকোম্যানোভিচ। সেখানে স্টিফেন কনস্ট্যানটাইন প্রথম বার লাল-হলুদ শিবিরের দায়িত্বে।

Advertisement

শুক্রবারের ম্যাচের আগে স্টিফেন কনস্ট্যানটাইন প্রেস কনফারেন্সে বললেন, ”ভারতের জাতীয় দলের দায়িত্ব ছাড়ার পরে আমি ইচ্ছা করেই আর কোনও ভারতীয় ক্লাবে যোগ দিইনি। তিনবছর হয়ে গেল। ইস্টবেঙ্গল আমাকে ভাল প্রস্তাব দিয়েছে। সেই কারণেই আমি এখানে।”  

[আরও পড়ুন: দেশে ফিরতেই গ্রেপ্তার ধর্ষণে অভিযুক্ত নেপালি ক্রিকেটার, ‘আমি নির্দোষ’, দাবি লামিছানের]

 

Advertising
Advertising

দু’ দফায় ভারতীয় দলকে কোচিং করিয়েছেন কনস্ট্যানটাইন। একবার ২০০২-২০০৫ পর্যন্ত জাতীয় দলের কোচ ছিলেন। পরে আবার ২০১৫-২০১৯ পর্যন্ত সুনীল ছেত্রীদের কোচিং করিয়েছেন কনস্ট্যানটাইন। অর্থাৎ দু’ দফায় কনস্ট্যানটাইন সাত বছর জাতীয় দলকে কোচিং করিয়েছেন।

আর সাত বছর কোচিং করানোর ফলে তিনি ভারতীয় ফুটবলারদের হাতের তালুর মতো চেনেন। কনস্ট্যানটাইন বলছেন, ”সাত বছর ভারতে কোচিং করানোর পরে অপেক্ষায় ছিলাম মিস্টার মোদি আমাকে পাসপোর্ট দেবেন। ভারতীয় প্লেয়াররা কী অনুভব করে, কী মনে করে তা আমি ভালই বুঝি। আর এটাই আমার কাছে অ্যাডভান্টেজ। তবে অতীত নিয়ে ভাবতে চাই না। গত মরশুমে কী হয়েছে বা তার আগের মরশুমে কী হয়েছে, তা আমি পরিবর্তন করতে পারব না। পরে কী হতে চলেছে সেটাই আমি কেবল পরিবর্তন করতে পারি।”

আগের দু’ মরশুমে হতশ্রী পারফরম্যান্স করেছে ইস্টবেঙ্গল। গতবার ইস্টবেঙ্গল শেষ করেছিল সবার শেষে। আইএসএলের আগে কনস্ট্যানটাইন বিশেষ সময় হাতে পাননি। সেই প্রসঙ্গে সাহেব কোচ বলছেন, ”খুব অল্প সময় হাতে পেয়েছি। আর ওই সময়ে আমরা কঠিন পরিশ্রম করেছি। ছ’ সপ্তাহ আগে আমি যখন এসেছিলাম, তখন আমার হাতে মাত্র ১২ জন ফুটবলার ছিল। এখন আমাদের স্কোয়াডে ২৬-২৭ জন প্লেয়ার আছে। আগামিকালই বোঝা যাবে আমরা কতটা ভাল বা কতটা খারাপ। এটুকু বলতে পারি, আমরা শেষ হয়ে যাওয়া গল্প নই। কালকের ম্যাচ হারব না এই প্রতিশ্রুতি দিতে পারি বা শেষ স্থান পাওয়ার জন্য আমি ইস্টবেঙ্গলে আসিনি।”

মেগা টুর্নামেন্টে নামার আগে ডুরান্ড কাপ খেলেছে লাল-হলুদ শিবির। কিন্তু সেই টুর্নামেন্টে ছাপ কাটার মতো কিছু করতে পারেনি ইস্টবেঙ্গল। মুম্বই সিটি এফসি-কে হারিয়ে ডুরান্ড কাপ শেষ করেছিল কনস্ট্যানটাইনের ছেলেরা। ইস্টবেঙ্গল কোচ বলছেন, ”জনসমক্ষে আমি লন্ড্রির কাপড় কাচতে যাব না। ৪ আগস্ট যখন আমি এসেছিলাম, সেই সময় থেকেই সমস্যাগুলো ছিল। এখন আমি আগামিকালের ম্যাচ নিয়েই শুধু ভাবছি।”

প্রতিপক্ষ কেরালা ব্লাস্টার্স সম্পর্কে লাল-হলুদের সাহেব কোচ বলছেন, ”কেরালা ব্লাস্টার্স খুব ভাল দল। এবার নিয়ে দ্বিতীয় বছর কেরালার সঙ্গে রয়েছে ইভান। প্লেয়াররা একে অপরকে চেনে। বোঝাপড়াও ভাল। ম্যাচটা আমাদের জন্য কঠিনই হতে চলেছে। আমার মতে শুধু প্রথম ম্যাচ নয় আইএসএলের সবক’টি ম্যাচই আমাদের জন্য কঠিন হতে চলেছে।”

টুর্নামেন্ট শুরুর আগে নিজেদের লক্ষ্যটা স্থির করে ফেলেছেন কনস্ট্যানটাইন। তিনি বলছেন, ”টেবিলের একেবারে শেষ স্থান পাওয়ার লক্ষ্য নিয়ে আমরা খেলতে নামছি না। দল হিসেবে আমরা নতুন, দলে নতুন প্লেয়ার। আমাদের সময় দিতে হবে। উপর থেকে নীচ পর্যন্ত দল পুনর্গঠন করেছি। ভারতীয় মানসিকতা হল আইএসএলে ২০টি ম্যাচই জিততে হবে। তবে এভাবে তো চলে না।একেকটা ম্যাচ নিয়ে কেবল ভাবছি। আগামিকাল কেরল।” বাকি ম্যাচ নিয়ে পরে ভাববেন বহু যুদ্ধের সৈনিক স্টিফেন কনস্ট্যানটাইন।

[আরও পড়ুন: লক্ষ্য টি-২০ বিশ্বকাপ, অসম্পূর্ণ দল নিয়েই অস্ট্রেলিয়া উড়ে গেল ভারত]

 

Advertisement
Next