গভীর রাতে বর্ধমানে ভোজ্য তেলের কারখানায় বিধ্বংসী আগুন, ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা

09:37 AM May 25, 2022 |
Advertisement

সৌরভ মাজি, বর্ধমান: গভীর রাতে বর্ধমানের (Bardhaman) গলসিতে ভোজ্যতেলের কারখানায় বিধ্বংসী আগুন। ঘটনাকে কেন্দ্র করে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়। রাত থেকে আগুন আয়ত্তে আনার চেষ্টায় দমকলের ছ’টি ইঞ্জিন। বেশ কয়েকঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও এখনও সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে আসেনি আগুন। প্রচুর ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

Advertisement

বর্ধমানের গলসির ভাসাপুরে ২ নম্বর জাতীয় সড়কের পাশে বিশাল এলাকা জুড়ে একটি ভোজ্যতেলের কারখানা রয়েছে। মঙ্গলবার রাত প্রায় বারোটা নাগাদ ওই কারখানা থেকে ধোঁয়া বের হতে দেখেন স্থানীয়রা। প্রথমে বিষয়টাকে বিশেষ গুরুত্ব না দিলেও ক্রমশ বাড়তে থাকে ধোঁয়া। ঢেকে যায় গোটা এলাকা। এরপরই খবর দেওয়া হয় থানা ও দমকলে। সঙ্গে সঙ্গে বুদবুদ ও বর্ধমান থানার পুলিশ পৌঁছয় ঘটনাস্থলে। যায় দমকল। এরপই জানা যায়, কারখানার যে অংশে ধানের ভূষি মজুত করে রাখা হত সেখানে আগুন ধরে গিয়েছে।

[আরও পড়ুন: ‘মুখ্যমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাতে চাই’, সুদূর মালদহ থেকে সাইকেলে কালীঘাট আসার আবেদন খুদে ‘কন্যাশ্রী’র]

Advertising
Advertising

তড়িঘড়ি আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার কাজে হাত লাগায় দমকলের আধিকারিকরা। তবে প্রথম থেকেই আধিকারিকরা চেষ্টা করেছেন যাতে আগুন মূল কারখানা অর্থাৎ যেখানে তেল মজুত করে রাখা হয় সেখানে আগুন ছড়াতে না পারে। যুদ্ধকালীন তৎপরতায় চলে কাজ। শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী, গোটা রাতের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে এলেও বুধবার সকালেও সম্পূর্ণ নেভানো সম্ভব হয়নি। এখনও চলছে কাজ।

কিন্তু কী থেকে এই অগ্নিকাণ্ড? দমকলের তরফে এখনও এ বিষয়ে স্পষ্টভাবে কিছু জানানো হয়নি। এক আধিকারিক জানিয়েছেন, আগুন সম্পূর্ণ না নেভা পর্যন্ত কারণ জানা সম্ভব নয়। পাশাপাশি ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণও এখনও জানা যায়নি। তবে প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে প্রচুর টাকার ক্ষতি হয়েছে। 

 [আরও পড়ুন: মোদির গুজরাটকে টপকে মহিলা কর্মসংস্থানে ভারতসেরা বাংলা, বলছে কেন্দ্রীয় রিপোর্ট]

Advertisement
Next