করোনার ছোবলে অনাথ হওয়া ৫৭৭টি শিশুকে সুরক্ষা দেবে কেন্দ্র, আশ্বাস স্মৃতি ইরানির

08:53 AM May 26, 2021 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: গত এপ্রিলে করোনার (Coronavirus) দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়েছে দেশে। তারপর থেকেই পরিস্থিতি ভয়াবহ হয়ে উঠেছে। গত ১ এপ্রিল থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত সময়কালের হিসেব বলছে দেশে অন্তত ৫৭৭টি শিশু রয়েছে যাদের বাবা ও মা দু’জনেই করোনায় মারা গিয়েছেন। এই শিশুদের (Orphan) নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কেন্দ্র প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বলে জানিয়ে দিলেন কেন্দ্রীয় মহিলা ও শিশুকল্যাণমন্ত্রী স্মৃতি ইরানি (Smriti Irani)।

Advertisement

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

টুইটারে এই বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়েছেন তিনি। ঠিক কী লিখেছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী? তিনি লেখেন, ‘‘প্রতিটি বিপন্ন শিশু যারা করোনার কারণে বাবা, মা দু’জনকেই হারিয়েছে তাদের সুরক্ষা ও সমর্থন দিতে ভারত সরকার প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। ২০২১ সালের ১ এপ্রিল থেকে আজ দুপুর ২টো পর্যন্ত সময়কালে সমস্ত রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুসারে ৫৭৭টি শিশুর খোঁজ মিলেছে যাদের অভিভাবকেরা কোভিড-১৯-এ (COVID-19) মারা গিয়েছেন।’’

[আরও পড়ুন: ব্যক্তি স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ! নারদ মামলায় সুপ্রিম কোর্টে একাধিক প্রশ্নের মুখে CBI]

Advertising
Advertising

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী জানিয়ে দিয়েছেন, এই শিশুগুলি মোটেই পরিত্যক্ত নয়। বিভিন্ন জেলা কর্তৃপক্ষ সেদিকে নজর রাখছে। যদি এদের কাউন্সেলিংয়ের প্রয়োজন হয়, সেজন্য ‘ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ মেন্টাল হেলথ অ্যান্ড নিউরোসায়েন্সেস’ প্রস্তুত রয়েছে। এবং সেজন্য তহবিলেও যে কোনও ঘাটতি নেই তাও স্পষ্ট করে দেওয়া হয়েছে।

সূত্রানুসারে জানা যাচ্ছে, এবিষয়ে ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকটি বৈঠক করেছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রক। এমনকী কথা হয়েছে ইউনিসেফের সঙ্গেও। তবে একটি সমস্যা রয়েছে। মহিলা ও শিশুকল্যাণমন্ত্রকের তরফে বহু সমাজকর্মীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে যারা এই নিয়ে কাজ করছিলেন। কিন্তু এখনও পর্যন্ত তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করা সত্ত্বেও অতিমারীর ছোবলে অনাথ হওয়া শিশুদের সম্পর্কে তথ্য তাঁরা দেননি। তবে শিগগিরি সমস্ত তথ্য পেতে আশাবাদী মন্ত্রক।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

এদিকে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রকের সচিব রামমোহন মিশ্র জানিয়েছেন, এরই পাশাপাশি মোট ৯টি দেশে ১০টি ‘ওয়ান স্টপ সেন্টার’ খুলতে চলেছে ভারত। বাহরিন, কুয়েত, ওমান, কাতার, সংযুক্ত আরব আমিরশাহী, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা ও সিঙ্গাপুরে খোলা হবে কেন্দ্রগুলি। এছাড়া সৌদি আরবে খোলা হবে দু’টি কেন্দ্র। বিদেশমন্ত্রকের তত্ত্বাবধান এবং মহিলা ও শিশুকল্যাণমন্ত্রকের সাহায্যে এই দেশগুলিতে মহিলা নির্যাতনের বিরুদ্ধে আসা অভিযোগগুলি খতিয়ে দেখা হবে এর সাহায্যে।

[আরও পড়ুন: করোনার নয়া স্ট্রেনকে ‘ভারতীয়’ বলায় খারিজ হোক শশী থারুরের সাংসদ পদ, দাবি বিজেপির]

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
Advertisement
Next