কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলির মাধ্যমে প্রতিহিংসা চরিতার্থ করছে মোদি সরকার, নতুন রাষ্ট্রপতিকে নালিশ বিরোধীদের

02:04 PM Jul 26, 2022 |
Advertisement

সোমনাথ রায়, নয়াদিল্লি: দেশের নতুন রাষ্ট্রপতি (President of India) দ্রৌপদী মুর্মুকে (Draupadi Murmu) অভিনন্দন জানালেন বিরোধী সাংসদরা। তবে সেই সঙ্গেই সেই চিঠিতে মূল্যবৃদ্ধি ও প্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্যে জিএসটি (GST) বৃদ্ধি নিয়ে আলোচনায় সরকারের অনমনীয়তা নিয়ে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন তাঁরা। পাশাপাশি অভিযোগ জানিয়েছেন, মোদি সরকার বিরোধীদের প্রতি প্রতিহিংসাবশতই কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলির ক্ষমতার অপব্যবহার করছে।

Advertisement

সোমবার সকালে দেশের ১৫ তম রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ নেন দ্রৌপদী মুর্মু। তিনিই দেশের প্রথম আদিবাসী রাষ্ট্রপতি। মঙ্গলবারই তাঁকে চিঠি লিখলেন বিরোধীরা। চিঠির শুরুতেই রাষ্ট্রপতিকে সহৃদয় অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানান তাঁরা। কিন্তু এরপরই লেখা হয়েছে, ”অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক ভাবে সংসদের বাদল অধিবেশন বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে সরকারের অনমনীয় জেদের জন্য। মূল্যবৃদ্ধি ও নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্যে জিএসটির বিষয়ে কোনও আলোচনাই চাইছে না সরকার।”

[আরও পড়ুন: শাশুড়িকে বেহুঁশ করে শ্বশুরবাড়িতে লুট, সঙ্গী প্রেমিক! বধূর কীর্তিতে শোরগোল বনগাঁয়]

পাশাপাশি আরও লেখা হয়েছে, ”কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলিকে যেভাবে বিরোধী দলগুলির প্রতি প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতে অপব্যবহার করছে মোদি সরকার, সে বিষয়েও আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চাইছি আমরা। আইন আইনের পথেই চলবে। কিন্তু যেভাবে সেটাকে ব্য়বহার করা হচ্ছে সেভাবে ব্যবহার করা যায় না।” চিঠিতে এই দুই বিষয়েই রাষ্ট্রপতির দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছে।

Advertising
Advertising

প্রসঙ্গত, এবারের বাদল অধিবেশনের শুরু থেকেই অধিবেশন বাধাপ্রাপ্ত হয়েছে। কংগ্রেস বারবার প্রশ্ন তুলেছে, কেন মূল্যবৃদ্ধি ও জিএসটি নিয়ে কোনও আলোচনা করতে চাইছে না কেন্দ্র, যেখানে বিরোধী দলগুলি সকলেই এই নিয়ে আলোচনা করতে চাইছে। বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা জয়রাম রমেশ জানিয়েছেন, অতীতে ২৬৭ নম্বর আইন মেনে নোটবন্দি, জম্মু ও কাশ্মীর ইস্যুর মতো নানা বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। সেক্ষেত্রে কেন এবার কেন্দ্র আলোচনা করতে চাইছে না। এবার সেই প্রতিরোধের ঢেউ পৌঁছল রাষ্ট্রপতিকে লেখা চিঠিতেও। এখন দেখার, রাষ্ট্রপতি এই চিঠির কোনও উত্তর দেন কিনা।

[আরও পড়ুন: Partha Chatterjee: ১০ বছরের সম্পর্ক, যৌথভাবে সম্পত্তি কিনেছিলেন পার্থ-অর্পিতা! জোরাল দাবি ইডির]

Advertisement
Next