হিমাচলে সলমন রুশদির বাড়িতে হামলা, দারোয়ানকে খুনের হুমকি

09:29 PM Nov 24, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল  ডেস্ক: তিন মাসের মধ্যে ফের আততায়ীদের নিশানায় খ্যাতনামা-বিতর্কিত সাহিত্য়িক সলমন রুশদি (Salman Rushdie)। এবার হামলা চলল তাঁর বাড়িতে। হিমাচল প্রদেশের (Himachal Pradesh) ‘আনিস ভিলা’য় বৃহস্পতিবার জনা কয়েক দুষ্কৃতী হামলা চালায় বলে অভিযোগ। চলে ভাঙচুর। বাসভবনের দারোয়ানকে খুনের হুমকিও দেওয়া হয়েছে। পুলিশের অভিযোগ দায়ের করেছেন তাঁর প্রতিবেশীরা। তদন্ত শুরুর পাশাপাশি বাংলোর নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

Advertisement

হিমাচলের সোলানের ফরেস্ট রোডে ‘আনিস ভিলা’। উত্তরাধিকার সূত্রে এই বাংলোটির মালিকানা পেয়েছেন ‘স্যাটানিক ভার্সাস’ খ্যাত রুশদি। তাই তিনি এই বাড়ি নিয়ে যথেষ্ট যত্নশীল। বৃহস্পতিবার সেই বাংলোতেই হামলা চালায় তাঁরই পরিচিত কয়েকজন। অভিযোগ, হাতুড়ি নিয়ে দরজা ভাঙা হয়, ঘরের কাঁচে আঘাত করে তারা। 

[আরও পড়ুন: আলিপুরদুয়ারে ভল্লুকের তাণ্ডব, প্রায় সাড়ে তিনঘণ্টার চেষ্টায় কাবু করল বনকর্মীরা]

‘আনিস ভিলা’র দেখভাল করেন রাজেশ ত্রিপাঠি। তাঁর কথায়, ”রুশদির পারিবারিক বন্ধু রানি শংকরদাস, অনিরুদ্ধ শংকরদাস ও গোবিন্দ রাম বুধবার বাড়িতে আসেন। আমি কথা বলছিলাম। আচমকাই গোবিন্দ রাম একটি হাতুড়ি নিয়ে দরজা ভাঙেন। আমি আটকাতে গেলে আমাকেও মারধর করা হয়। এমনকী খুনের হুমকিও দেন তিনি।” পরে তাঁরা চলে যান। পুলিশে খবর দেওয়া হলে তদন্ত শুরু হয়েছে।  

Advertising
Advertising

[আরও পড়ুন: ‘গদ্দার কখনও মুখ্যমন্ত্রী হতে পারে না’, পাইলটের উদ্দেশে ঝাঁজালো আক্রমণ গেহলটের]

আগস্টের ১২ তারিখ মার্কিন মুলুকে বক্তব্য রাখতে গিয়ে ছুরিবিদ্ধ হন সলমন রুশদি। নিউ ইয়র্কের (New York) চাউটাউকুয়া ইন্সটিটিউশনে ভাষণ দিতে যান তিনি। মঞ্চে আসতেই তাঁর দিকে তেড়ে যায় এক ব্যক্তি। এই অতর্কিত আক্রমণে স্তম্ভিত হয়ে যান সকলেই। অত্যন্ত দ্রুততার সঙ্গে রুশদিকে উপর্যুপরি ছুরির আঘাত করে ওই ব্যক্তি। তাঁকে কিল-চড়ও মারে হামলাকারী। এদিকে, সম্বিত ফিরে পেয়েই হামলাকারীকে ধরে ফেলেন সেখানে উপস্থিত নিরাপত্তারক্ষীরা। রুশদিকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে খবর।  ভেন্টিলেশনে ছিলেন রুশদি। পরে সুস্থ হয়ে ছাড়া পেলেও এক চোখের দৃষ্টি হারিয়েছেন বিশ্বখ্যাত সাহিত্যিক। এরপর টার্গেটে তাঁর হিমাচলের বাসভবন। এবং এখানে পরিচিতরাই হামলাকারীর ভূমিকায়। ফলে গোটা বিষয়টি নিয়ে সংশয় বাড়ছে। 

Advertisement
Next