হাই কোর্টে সাময়িক স্বস্তি অনুব্রতকন্যার, হাজিরার নির্দেশ প্রত্যাহার বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের

06:33 PM Aug 18, 2022 |
Advertisement

গোবিন্দ রায়: হাই কোর্টে সাময়িক স্বস্তি অনুব্রতকন্যা সুকন্যা মণ্ডলের (Sukanya Mondal)। তাঁর বিরুদ্ধে জমা পড়া অতিরিক্ত হলফনামা প্রত্যাহার করে নিলেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় (Abhijit Ganguly)। অতিরিক্ত হলফনামায় অভিযোগ করা হয়েছিল, সুকন্যা মণ্ডল-সহ অনুব্রত ঘনিষ্ঠ ৬ শিক্ষক টেট পাস নন। যার ভিত্তিতে এদের টেট সার্টিফিকেট-সহ হাজিরার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু বৃহস্পতিবার সেই হাজিরার নির্দেশ প্রত্যাহার করলেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। যার ফলে সুকন্যা মণ্ডলকে এদিন টেট সার্টিফিকেট জমা করতে হয়নি।

Advertisement

বুধবার অতিরিক্ত হলফনামা পাওয়ার পরই অনুব্রত মণ্ডলের মেয়ে সুকন্যাকে (Sukanya Mandal) হাই কোর্টে হাজিরার নির্দেশ দেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। আরও ৫ জন অনুব্রত ঘনিষ্ঠকে আদালতে হাজিরার নির্দেশ দেওয়া হয়। সেই সঙ্গে এদের টেট পাশের সার্টিফিকেট এবং প্রাথমিকের নিয়োগপত্র আনতে বলা হয়। বীরভূমের অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে এই রায় কার্যকর করারও নির্দেশ দেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়।

[আরও পড়ুন: ‘মেয়ে টেট পাশ, সার্টিফিকেট আছে’, নিয়োগ দুর্নীতি প্রসঙ্গে মুখ খুললেন অনুব্রত]

আদালতের নির্দেশমতো এদিন আদালতে হাজিরা দেন সুকন্যা মণ্ডল-সহ ৬ অভিযুক্ত। কিন্তু তাঁদের হাজিরার পরই বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় জানিয়ে দেন, অনুব্রত মণ্ডলের মেয়ের বিরুদ্ধে যে অতিরিক্ত হলফনামা দাখিল হয়েছে, এসএসসি দুর্নীতি (SSC Scam) সংক্রান্ত মূল মামলার সঙ্গে সেটা আদালতে গ্রহণযোগ্য নয়। তাই সেই হলফনামা তিনি প্রত্যাহার করছেন। এই সংক্রান্ত মূল মামলার শুনানি আগামী ১ সেপ্টেম্বর। এই হলফনামা প্রত্যাহারের অর্থ আপাতত আদলতে সাময়িক স্বস্তি পেয়ে গেলেন সুকন্যা মণ্ডল। যদিও একইসঙ্গে এদিন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় জানিয়ে দেন, সুকন্যার নিয়োগ নিয়ে আদালতে আলাদা করে মামলা হলে, তা শুনবে আদালত।

Advertising
Advertising

[আরও পড়ুন: ভূমিপুত্র না হলেও মিলবে ভোটাধিকার, জম্মু ও কাশ্মীরে ঐতিহাসিক ঘোষণা নির্বাচন কমিশনের]

আদালতের এই সিদ্ধান্ত নিয়ে এদিন সরব হন তৃণমূলের রাজ্য সম্পাদক কুণাল ঘোষ। তাঁর বক্তব্য, সুকন্যার বিরুদ্ধে শুধু একটা অতিরিক্ত হলফনামার ভিত্তিতে কাল থেকে একটা প্রচার চলছে। বিচারপতির ওই হলফনামাটিকে এতটা গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়েছিল যে বীরভূমের পুলিশ সুপারকে দিয়ে তাঁকে আদালতে আনানো হল। মেয়েটি আজ কাগজপত্র নিয়ে এসেওছিল আদালতে। অথচ সে নিজের আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগও পেলেন না। তাঁর বিরুদ্ধে প্রচার হচ্ছিল, সেটার জবাব দেওয়ার সুযোগও তাঁকে দেওয়া হল না। আদালতের প্রতি পূর্ণ সম্মান দিয়েই বলছি, এটা কাম্য নয়। 

Advertisement
Next