Advertisement

Post Poll Violence: হাই কোর্টের রায়ের পরই Supreme Court-এ ক্যাভিয়েট দাখিল মামলাকারীর

07:29 PM Aug 19, 2021 |
Advertisement
Advertisement

শুভঙ্কর বসু: রাজ্যে ভোট পরবর্তী হিংসা মামলায় কলকাতা হাই কোর্টের (Calcutta HC) রায় ঘোষণার পরই একতরফা শুনানি আটকাতে ক্যাভিয়েট দাখিলের পথে হাঁটলেন এক মামলাকারী। বৃহস্পতিবার বিকেলেই সুপ্রিম কোর্টে (Supreme Court) ক্যাভিয়েট দাখিল করলেন মামলাকারী অনিন্দ্যসুন্দর দাস। হাই কোর্টের এই রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে যদি শীর্ষ আদালতে মামলা হয়, তাহলে যেন একতরফা শুনানি না হয়, তা নিশ্চিত করতেই আইনি নিয়ম মেনে ক্যাভিয়েট দাখিল করেছেন তিনি।

Advertisement

ভোট পরবর্তী হিংসা (post poll violence) নিয়ে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের (NHRC) দাবিতে কার্যত সিলমোহরই দিয়েছে কলকাতা হাই কোর্টের ৫ বিচারপতির বৃহত্তর বেঞ্চ। এই মামলার তদন্ত সিবিআইকে (CBI) দেওয়া হয়েছে। ভোট পরবর্তী হিংসায় খুন ও ধর্ষণের মতো ঘটনার তদন্ত করবে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। বাড়ি ভাঙচুর করা, আগুন লাগানো, মারধর করা, ঘরছাড়া করার মতো অপেক্ষাকৃত কম অশান্তির ঘটনায় সিট (SIT) গঠন করার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। সেই রিপোর্ট আগামী ছ’সপ্তাহের মধ্যে জমা দিতে হবে।

[আরও পড়ুন: সোমেন মিত্রর স্ত্রী শিখাকে ফোন Mamata Banerjee-র, TMC-তে যোগদানের আহ্বান

হাই কোর্টের এই রায়ে খুশি নয় শাসকদল তৃণমূল (TMC)। সাংসদ সৌগত রায় (Sougata Roy) বলেন, “আমি এই রায়ে অখুশি। কারণ, আইনশৃঙ্খলা পুরোপুরি রাজ্যের বিষয়, তাতে সিবিআইয়ের নাক গলানো কাম্য নয়। রাজ্য সরকার নিশ্চয়ই এর বিচার করবে এবং প্রয়োজন মনে করলে আপিলে যাবে। যদি রায় বলবৎ থাকে, তাহলে সিবিআই বা সিট যা তদন্ত করার করবে।” 

[আরও পড়ুন: Corona vaccine: রাজ্যে ৩ কোটি টিকাকরণ, পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মাত্র ২,২৪৯! বিভ্রান্ত স্বাস্থ্যদপ্তরই]

সৌগতর আরও দাবি, ”জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের (NHRC) কোনও এক্তিয়ার নেই রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি দেখার। তবে হাই কোর্ট দায়িত্ব দিয়েছিল মানবাধিকার কমিশনকে। তাদের মধ্যেও এমন লোক ছিল যারা প্রত্যক্ষভাবে বিজেপি (BJP) করত। আমরা হাই কোর্টে আপত্তি জানিয়েছিলাম। তারা এরকম রায় দিলে আমাদের আর কী করার আছে? আমরা তো আর হাই কোর্টের রায়কে প্রভাবিত করতে পারব না। সরকার নিশ্চয়ই শীর্ষ আদালতে যাবে।” এরপরই অন্যতম মামলাকারী অনিন্দ্যসুন্দর দাস ইঙ্গিত পেয়ে আগে আগেই সুপ্রিম কোর্টে ক্যাভিয়েট (Caviet)দাখিল করলেন। এরপর শীর্ষ আদালতে এ নিয়ে মামলা দায়ের হলে তাঁদের অজ্ঞাতসারে কোনওভাবেই শুনানি হবে না।

Advertisement
Next