আগামী মরশুমে ইস্টবেঙ্গলের কোচ হওয়া নিয়ে জল্পনা! কী বলছেন হাবাস?

09:49 PM May 28, 2022 |
Advertisement

আইএসএলের মাঝপথে মোহনবাগানের রিমোট কন্ট্রোল ছেড়ে দিয়ে চলে গিয়েছিলেন তিনি। টুর্নামেন্টের অন্যতম সফল কোচের এই সিদ্ধান্তে বিস্মিত হয়ে গিয়েছিলেন অনেকেই। আইএসএল এখন শেষ। আবারও তাঁকে নিয়েই জোর চর্চা। ইস্টবেঙ্গল নাকি তাঁকে প্রস্তাব দিয়েছে, আইএসএলে ফেরার সম্ভাবনা আবার
নাকি তৈরি হয়েছে তাঁর। তাঁকে নিয়ে জল্পনা যখন তীব্র, তখন তিনি, আন্তোনিও লোপেজ হাবাস (Antonio Lopez Habas) কী বলছেন? লাল-হলুদের দায়িত্বে কি দেখা যাবে এই স্পেনীয় কোচকে? প্রাক্তন দল মোহনবাগান সম্পর্কেই বা তাঁর মূল্যায়ন কী? সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটালের সামনে অকপট হাবাস। শুনলেন কৃশানু মজুমদার

Advertisement

কেমন আছেন আপনি? এখন কী করছেন?
হাবাস-আমি বেশ ভালই আছি। পরিবারের সঙ্গে বেশ সুন্দর সময় কাটাচ্ছি। ব্যবসার কাজও দেখতে হচ্ছে আমাকে। এবং অতি অবশ্যই প্রতিদিন ফুটবল দেখছি।

নতুন কোনও ক্লাবে কোচিং করানোর পরিকল্পনা আছে? প্রস্তাব পেয়েছেন?
হাবাস
-দক্ষিণ আমেরিকায় কোচিং করানোর প্রস্তাব পেয়েছিলাম। কিন্তু আমি যে ধরনের প্রজেক্টে কাজ করতে চাই, এই প্রস্তাব সেরকম ছিল না। আইএসএলের কয়েকটা ক্লাবের সঙ্গেও যোগাযোগ হয়েছিল কিন্তু কথাবার্তা আর পূর্ণতা পায়নি। আন্তর্জাতিক ফুটবল অ্যাকাডেমির প্রজেক্ট নিয়ে এই মুহূর্তে কাজ করছি।

Advertising
Advertising

[আরও পড়ুন: আইপিএলের ফাইনালে যায় দু’নম্বরিরাই! ১১ বছরের ট্র্যাডিশন ধরে রাখল রাজস্থান]

সেটা কী ধরনের প্রজেক্ট?
হাবাস
-এটা এমন একটা প্রজেক্ট যা স্পেনে শুরু হলেও যে কোনও জায়গায় তা নিয়ে যাওয়া যায়। আমার একটা ওয়ার্কিং গ্রুপ রয়েছে। তাদের মাধ্যমেই ট্রেনিং টিমের সঙ্গে সমন্বয় সাধন করি।

ইস্টবেঙ্গল ক্লাব ইনভেস্টর পেয়ে গিয়েছে। ওরা ভাল দলই গড়বে। আইএসএল-এও খেলবে। কোচ হিসেবে ইস্টবেঙ্গলে কি আপনাকে দেখা যাবে?
হাবাস
-আমি অনুমান, আন্দাজের উপর ভিত্তি করে কোনও কথা বলতে পছন্দ করি না। আমি একজন পেশাদার কোচ। এবং পেশাদার কোচদের জীবনে না বলে কিছু হয় না।

না আপনাকে নিয়ে তো জোর গুঞ্জন। ইস্টবেঙ্গল কর্তারা কি আপনাকে কোচ হওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন?
হাবাসইস্টবেঙ্গলের (East Bengal) সঙ্গে সরকারি ভাবে আমার যোগাযোগই হয়নি।

মোহনবাগান ছেড়ে চলে যাওয়ার পরে পুরনো ক্লাবের খেলা কি আর দেখেছেন? আপনার সময়ের মোহনবাগান আর এখনকার মোহনবাগানের মধ্যে কি কোনও পার্থক্য দেখতে পাচ্ছেন?

হাবাস– দলটা তো আমার হাতেই তৈরি। ২০১৯-২০ মরশুমে আমরা চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলাম। ২০২০-২১ মরশুমে মুম্বইয়ের কাছে হেরে রানার্স হয়েছিলাম। যদিও আমাদের আর মুম্বইয়ের পয়েন্ট একই ছিল। দল ছাড়ার পরে আমি বেশ কয়েকটা খেলা দেখেছি মোহনবাগানের। ট্যাকটিক্যালি খুব একটা পরিবর্তন আমার চোখে পড়েনি। কিন্তু দলের নিজস্বতা কিছুটা হলেও পরিবর্তন হয়েছে। প্রতিদ্বন্দ্বিতার এই বিশ্বে দলের একটা নিজস্বতা থাকা দরকার। একটা আইডেন্টিটি থাকা দরকার। দলের কোচও পরিবর্তন হয়েছে। আর নতুন কোচ নিজের ধ্যান ধারণা, চিন্তাভাবনা প্রয়োগ করতে চায়। এটাই নিয়ম। তবে আমি এটা বলছি না যে এখনকার থেকে আমার সময়টাই ভাল ছিল।

আপনি সিনিয়র একজন কোচ। জুয়ান ফেরান্দো আপনার থেকে জুনিয়র। ফেরান্দোকে কেমন লাগছে?

হাবাস– আমার মতে ফেরান্দো খুব ভাল কাজ করছে। সামনে ওর উজ্জ্বল এক ভবিষ্যৎ পড়ে রয়েছে। কিন্তু তারুণ্যের কিছু দুর্বলতা থেকে যায়, কিছু ভুল ভ্রান্তি থাকে। আপনি বিশ্বের কয়েক জন প্রবীণ কোচকে জিজ্ঞাসা করে দেখুন, তাঁরা বলবেন ৪০ বছর বয়সের থেকে ৬০ বছর বয়সে এসে তাঁরা বিচক্ষণ হয়েছেন, তাঁদের দক্ষতা বেড়েছে, তাঁরা আরও পরিণত হয়েছেন। আসলে অভিজ্ঞতাই বড় ব্যাপার। অভিজ্ঞতাই একজন
কোচকে সমৃদ্ধ করে।

এএফসি কাপে নিশ্চয় মোহনবাগানের খেলা দেখেছেন? গোকুলামের কাছে হেরে বাকি দুটো ম্যাচে মোহনবাগান দাঁড়াতেই দেয়নি প্রতিপক্ষকে।
হাবাস– এএফসি কাপ টুর্নামেন্টে মোহনবাগানের খেলা দেখেছি। গ্রুপে প্রতিপক্ষের থেকে বহুগুণে এগিয়ে ছিল মোহনবাগান। মালদ্বীপে অনুষ্ঠিত টুর্নামেন্টে আমরাও বাকিদের থেকে এরকমই এগিয়ে ছিলাম।

ডেভিড উইলিয়ামস মোহনবাগান ছেড়ে মুম্বই সিটি এফসি-তে যাচ্ছেন। রয় কৃষ্ণও দল ছাড়বেন বলে শোনা যাচ্ছে। কয়েকজনকে নতুন করে নেওয়া হচ্ছে। 
হাবাস– ডেভিড উইলিয়ামস (David Williams) ও রয় কৃষ্ণ– দু’ জনেই খুব ভাল প্লেয়ার। আমার মতে ওরা ক্লাবকে নিজেদের সর্বস্ব দিয়েছে। প্লেয়ার, কোচ দল পরিবর্তন করে। বিশ্বের সব জায়গায় একই নিয়ম। কোচ, প্লেয়ার পরিবর্তন হলেও বড় ক্লাবের কিন্তু ভারসাম্য বদলায় না।

আগেও বলেছেন, তবুও জিজ্ঞাসা করছি, আইএসএলে কি আবার দেখা যাবে আপনাকে? ইস্টবেঙ্গল বা অন্য কোনও ক্লাবের দায়িত্ব নিয়ে কি এ দেশে ফিরবেন?

হাবাস– ভবিষ্যতে কী হবে কেউ বলতে পারে না। এখনও স্বপ্ন দেখি আমি কোচিং করাচ্ছি ভারতে। কোচিং করানোর জন্য আমি এখনও শারীরিক ও মানসিক দিকে থেকে শক্তিশালী। ক্লাবের প্রজেক্ট,তাদের দূরদৃষ্টি, কতটা সিরিয়াস তারা, তার উপরে সব নির্ভর করছে। সব দিক বিচার করে তবে আমি কোনও প্রস্তাবে রাজি হব। ভারতে, বিশেষ করে কলকাতায় কোচিং করাতে পেরেছি, এটা ভাবতেও আমার গর্ব বোধ হয়।

[আরও পড়ুন: নেতাদের হাল হকিকত জানতে নয়া পদক্ষেপ, সমীক্ষা করে ব্লক সভাপতি চূড়ান্ত করছেন অভিষেক]

Advertisement
Next