হেনস্তার অভিযোগে জার্মানিতে সরকারি হেফাজতে গুজরাটি দম্পতির সন্তান, হস্তক্ষেপ বিদেশ মন্ত্রকের

01:51 PM Nov 27, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: জার্মান (Garmany) প্রবাসী এক গুজরাটি দম্পতির বিরুদ্ধে কঠিন অভিযোগ এনেছে সে দেশের শিশু সুরক্ষা কমিশন (Child Protection Rights Commision)। সদ্যোজাত কন্যাসন্তানের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেছেন তাঁরা, এমনটাই অভিযোগ। এমনকী যৌন হেনস্তারও অভিযোগ আনা হয়েছে পরিবারটির বিরুদ্ধে। এমত অবস্থায় মা-বাবার কাছে শিশুটি সুরক্ষিত নয়, এমন দাবিতে শিশুটিকে নিজেদের হেফাজতে রেখেছে কমিশন। তবে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় মাসে একবার সন্তানকে দেখার অনুমতি মিলছে। এই অবস্থায় ভারতের বিদেশ মন্ত্রকের সাহায্যপ্রার্থী গুজরাটি দম্পতি। মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, তারা দ্রুত উপযুক্ত ব্যবস্থা নিচ্ছে।

Advertisement

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1652782001027-0'); });

যে ঘটনার কারণে দম্পতিকে সন্তান প্রতিপালনে অযোগ্য মনে করে শিশু সুরক্ষা কমিশন, তা ঘটেছিল ২০২১ সালে সেপ্টেম্বর মাসে। মেয়ে আরিহার বয়স তখন আট মাস। ওই সময় ভারত থেকে জার্মানিতে বেড়াতে আসেন দম্পতির দুই তরফের বাবা-মা। দম্পতির দাবি, একদিন দিদার কারণে আঘাত পায় আট মাসের আরিহা। এর পরেই আসরে নামে জার্মানির শিশু সুরক্ষা কমিশন।

window.unibots = window.unibots || { cmd: [] }; unibots.cmd.push(()=>{ unibotsPlayer('sangbadpratidin'); });

[আরও পড়ুন: করোনা বাড়লেও লকডাউন মানতে নারাজ চিনারা, জিনপিং সরকারের অবসানের দাবিতে রাজপথে জনতা]

আহত আরিহাকে তারা নিজেদের হেফাজতে নেয়। অভিযোগ আনে, ভারতীয় দম্পতি শিশু প্রতিপালনের অযোগ্য। শিশুটির যৌন হেনস্তা হয়েছে বলেও দাবি করে কমিশন। এরপর প্রচুর অনুনয়ে প্রথমে সপ্তাহে একদিন, পরে মাসে একদিন সন্তানের সঙ্গে মা-বাবাকে মিলিত হওয়ার অনুমতি দেয় শিশু সুরক্ষা কমিশন। যদিও এখনও পর্যন্ত কমিশনের তোলা অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি। এই অবস্থায় কমিশনের কাছে ভারতীয় দম্পতি আবেদন করেন, তাঁদের কাছে না দেওয়া হলে আমেদাবাদে অথবা মুম্বইয়ে থাকা আত্মীয়দের কাছে পাঠানো হোক আরিহাকে। যদিও এখনও অবধি এই বিষয়ে কোনওরকম হেলদোল দেখায়নি জার্মান শিশু সুরক্ষা কমিশন।

Advertising
Advertising

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1652782050143-0'); });

[আরও পড়ুন: ভারত মহাসাগর নিয়ে ১৯ দেশের বৈঠক চিনের, অথচ আমন্ত্রিত নয় ভারতই]

এই বিষয়ে বিদেশ মন্ত্রকের সাহায্য চায় গুজরাটি দম্পতি। মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, ইতিমধ্যে তারা জার্মান প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রকের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। মন্ত্রকের বিবৃতি, “বিষয়টির সংবেদনশীলতা ও গোপনীয়তা সম্পর্কে আমরা সচেতন। বার্লিনের ভারতীয় দূতাবাস পরিবারটিকে প্রয়োজনীয় সহায়তা করছে।” 

Advertisement
Next