IPL 2022: রাজস্থানের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে 'ইডেনের রাজা' রজতেই ভরসা আরসিবির

04:43 PM May 27, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মধ্যপ্রদেশ টিমে রজত পাতিদারের (Rajat Patidar) একটা ডাকনাম আছে। ‘সঙ্কটমোচন’! আসলে রনজি ট্রফি বা ঘরোয়া ক্রিকেটের অন্যান্য টুর্নামেন্টে টিম যখনই সঙ্কটে পড়ে, পরিত্রাতা হিসেবে অধিকাংশ সময় আবির্ভূত হন তিনি– পাতিদার!

Advertisement

বুধবারের ইডেনের পর মনে হচ্ছে, মধ্যপ্রদেশ সংসারে সতীর্থদের দেওয়া ডাকনামটা একেবারে যথার্থ। তিনি শ্রীযুক্ত ‘সঙ্কটমোচন’ই বটে। যে অসীম চাপ সামলে পাতিদার ইডেনে গতকাল সেঞ্চুরি করে গেলেন, তা দেখার মতো। বিরাট-ম‌্যাক্সওয়েল-ডু’প্লেসি কেউ পারেননি বুধবার। সেই অবস্থা থেকে তাঁর সেঞ্চুরি। যা দেখে রবি শাস্ত্রী বিমুগ্ধ ভাবে বলে দিলেন, “খেলা দেখে কে বলবে, রিজার্ভ প্লেয়ার। মনে হল, দশ বছর ধরে চুটিয়ে আইপিএল খেলছে!”

[আরও পড়ুন: ফের ঘর গোছানো শুরু মোহনবাগানের, পাঁচ বছরের জন্য সবুজ-মেরুনে আশিক]

আসলে চাপ শব্দটা নতুন নয় পাতিদারের জীবনে। কেরিয়ারের প্রথম থেকে সেটা সামলে আসছেন। মধ্যপ্রদেশ ব্যাটারের ব্যাটিং টেকনিক পুরোদস্তুর বদলে দিয়েছিলেন যিনি, সেই প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার অময় খুরেশিয়া এ দিন ফোনে বলছিলেন, “চাপ রজত প্রথম থেকেই নিতে পারত। আমি ওর ব্যাট সুইং ঠিক করেছিলাম। টপ হ্যান্ড নিয়ে খেটেছিলাম। কিন্তু চাপ সামলানোর ক্ষমতা রজতের সহজাত ছিল।”

Advertising
Advertising

মধ্যপ্রদেশ রনজি টিমে যাঁর অধিনায়কত্বে কেরিয়ার শুরু রজতের, সেই দেবেন্দ্র বুন্দেলাও এ দিন বললেন, “কত ম্যাচ যে রজত তিন নম্বরে নেমে চাপ সামলে আমাদের জিতিয়েছে, ভাবা যাবে না।” এবং এঁরা কেউই চাপের সঙ্গে লড়ে ইডেন এলিমিনেটরে রজতের ৫৪ বলে ১১২ নটআউট দেখে এতটুকু অবাক নন। আর শুধুমাত্র প্রশংসার ফুলবর্ষণই নয়। পাতিদারকে নিয়ে মজার তথ্যও ভাসছে। যেমন গত নিলামে টিম না পেয়ে ভেবেছিলেন বিয়েটা করে ফেলবেন। কিন্তু পরে আরসিবি (Royal Challengers Banglalore) তাঁকে ডেকে নেওয়ায় বিয়ে পিছিয়ে দিয়েছেন রজত।

বুধবারের ইডেনে নায়ক নম্বর দুই যিনি, আরসিবির সেই হরিয়ানা অলরাউন্ডার হর্ষল প্যাটেল (Harshal Patel) আবার স্বীকার করে নিলেন শেষ দিকে একটু টেনশনে পড়ে গিয়েছিলেন। লখনউয়ের শেষ তিন ওভারে জিততে যখন ৪১ রান দরকার, দু’টো ওয়াইড সহ অতিরিক্ত ছ’রান দিয়ে বসেন হর্ষল। পরে অবশ্য সামলে নিয়ে কৃপণ বোলিং করে ম্যাচ জিতিয়ে দেন আরসিবিকে। খেলা শেষে হর্ষল বলছিলেন, “নার্ভাস হয়ে পড়েছিলাম। দু’টো ওয়াইড সহ বাড়তি ছ’রান দিয়ে ফেলায় চাপ আরও বাড়ে। পরে ঠিক করি, প্রথম দু’ওভারে যে ভাবে বল করেছি, সে ভাবেই করব।’’ 

[আরও পড়ুন: হেরে যাওয়ার ভয়! ম্যাচের মধ্যেই প্যানিক অ্যাটাক প্রাক্তন বিশ্বসেরা টেনিস খেলোয়াড়ের]

 

Advertisement
Next