Advertisement

UP election 2022: ‘ফাঁপা বুলি নয়, ক্ষমতায় এলে ৪০ লক্ষ চাকরি’, উত্তরপ্রদেশে ঢালাও কর্মসংস্থানের আশ্বাস কংগ্রেসের

01:45 PM Jan 21, 2022 |

সোমনাথ রায়, নয়াদিল্লি: আগামী ১০ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হচ্ছে উত্তরপ্রদেশের (Uttar Pradesh বিধানসভা নির্বাচন (UP election 2022)। ভোটের দামামা পুরোদস্তুর বেজে গিয়েছে রাজ্যে। যোগী আদিত্যনাথই ফিরবেন নাকি বিরোধী দল বাজিমাত করবে, তা নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে। এই পরিস্থিতিতে শুক্রবার দলের যুব ইস্তেহার প্রকাশ করল কংগ্রেস (Congress)। প্রতিশ্রুতি দিল রাজ্যের যুব সম্প্রদায়ের সমস্যার সমাধান করার। বিশেষ করে বেকারত্ব দূর করতে যে তারা দৃঢ়প্রতিজ্ঞ, সেকথা পরিষ্কার জানিয়ে দিল কংগ্রেস। কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী (Rahul Gandhi) ও কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী (Priyanka Gandhi) দু’জনই উপস্থিত ছিলেন অনুষ্ঠানে। সেখানে রাহুলের ডাক, ‘‘নতুন ভারতের দিশা দেখানোর কাজ উত্তরপ্রদেশ থেকেই শুরু হোক।’’

Advertisement

‘ভারতী বিধান’ নামের ওই ইস্তেহারে দেওয়া হয়েছে ঢালাও প্রতিশ্রুতি। তার মধ্যে অন্যতম ৪০ লক্ষ চাকরির প্রতিশ্রুতি। এর মধ্যে ৮ লক্ষ চাকরি মেয়েদের জন্য সংরক্ষিত। ১ লক্ষ অধ্যাপকের শূন্যপদ পূরণ। সেই সঙ্গে অঙ্গনওয়ারি কর্মীদের জন্যও গুরুত্বপূর্ণ পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1630720090-3');});

কেবল চাকরির প্রতিশ্রুতিই নয়, যোগী সরকারকে খোঁচা মেরে রাহুল গান্ধীর দাবি, কীভাবে রোজগারের পথ সৃষ্টি হবে, সেটা দেখাতে চায় কংগ্রেস। কোনও ‘মিথ্যে সংখ্যা’ নয়, যুব সম্প্রদায়ের সঙ্গে কথা বলে তাঁদের চাহিদামতো চাকরি তৈরি করা হবে। সেই সঙ্গে রাহুল দাবি করেন, গত ৫ বছরে রাজ্যে চাকরি হারিয়েছেন ১৬ লক্ষ জন। অথচ প্রতিশ্রুতি ছিল প্রতি বছরে ২ কোটি কর্মসংস্থানের। কংগ্রেস নেতার কথায়, ‘‘সত্যিটা সবাই দেখতে পাচ্ছেন।’’

Advertising
Advertising

একই সুর লক্ষ করা গিয়েছে প্রিয়াঙ্কার কথাতেও। তিনি বলেন, ‘‘যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও উত্তরপ্রদেশের তরুণরা চাকরি পান না। কেবল ভুয়ো সংখ্যা বলে মানুষকে বোকা বানানো হয়েছে।’’ সেই সঙ্গে পরীক্ষা পদ্ধতিতেও ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ তুলেছেন তিনি। জানিয়ে দেন, কোনও ভাবেই প্রশ্নপত্র ফাঁসের মতো দুর্নীতি বরদাস্ত করা হবে। সরকারি জায়গা থেকে ফাঁস হলে কঠোরতম সাজারও আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে যোগী সরকার শিক্ষাখাতে বাজেট কমালেও কংগ্রেস তা বাড়াবে বলেও ইস্তাহারে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে, মনে করিয়ে দিয়েছেন প্রিয়াঙ্কা।

কংগ্রেসের আরও প্রতিশ্রুতি, তারা ক্ষমতায় এলে প্রতিযোগিতামূক পরীক্ষার ক্ষেত্রে কোনও রকম ফি নেওয়া হবে না। বরং বাস-ট্রেনে পরীক্ষার্থীদের কোনও ভাড়াও দিতে হবে না। শুধু তাই নয়, পরীক্ষার তারিখ ঘোষণার সময়ই জানিয়ে দেওয়া হবে ফলাফল প্রকাশ কিংবা ইন্টারভিউয়ের তারিখও। জানিয়ে দেওয়া হবে কবো নিয়োগ হবে সেটাও। এবং তা মানা না হলে দেওয়া হবে কড়া শাস্তি। এবং এই পুরো প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতা আনতে তৈরি হবে জব ক্যালেন্ডার।
প্রাথমিকে দেড় লক্ষ, মাধ্যমিকে ৩৮ হাজার, উচ্চমাধ্যমিকে ৮ হাজার, ডাক্তারিতে ৬ হাজার, পুলিশে ১ লক্ষ, অঙ্গনওয়াড়িতে ২০ হাজার, ২৭ হাজার সহকারীর শূন্যপদ রয়েছে বলে জানানও হয়েছে। সেই সঙ্গে সংস্কৃত বিশ্ববিদ্যা‌লয়ে ২ হাজার ও উর্দু শিক্ষকদের ক্ষেত্রে ৪ হাজার শূন্যপদের কথাও মনে করিয়ে কংগ্রেসের প্রতিশ্রুতি, তাঁরা ক্ষমতায় এলে এই সব শূন্যপদ পূরণ করা হবে বলেও।

লাইব্রেরি, ফ্রি ওয়াইফাই, মেস, হোস্টেল— সবক্ষেত্রেই পরিকাঠামো আরও উন্নত করবে বলেও আশ্বাস দিয়েছে কংগ্রেস। এছাড়া বিভিন্ন সংরক্ষণের ক্ষেত্রে বৃত্তি, সাফাইকর্মীদের বিশেষ প্রশিক্ষণের কথাও জানানো হয়েছে।

উত্তরপ্রদেশের তরুণ সম্প্রদায়ের মধ্যে নেশায় জড়িয়ে পড়ার প্রবণতাও যে বাড়ছে সেকথা মনে করিয়ে দেওয়া হয়েছে ইস্তেহারে। লখনউয়ে কেন্দ্র তৈরি করে নেশাগ্রস্তদের কাউন্সেলিং করে যুব সম্প্রদায়কে নেশার ফাঁদ থেকে বের করে আনার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে কংগ্রেস। সেই সঙ্গে খেলাধুলোর জন্যও রয়েছে বহু প্রতিশ্রুতি। যার মধ্যে রয়েছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অ্যাকাডেমি কিংবা স্থানীয় ক্রীড়ার ক্ষেত্রের বিশেষ জোনাল অ্যাকাডেমি গড়ার আশ্বাস।

এদিনের অনুষ্ঠানে যথারীতি বিজেপিকে লাগাতার আক্রমণ করে গিয়েছে রাহুল গান্ধী। তাঁর দাবি, বিজেপি যে দেশের কথা ভাবছে না তা পরিষ্কার হয়ে গিয়েছে। অথচ ছোট দলগুলির পক্ষেও সেভাবে লড়াই করা সম্ভব নয়। যা একমাত্র কংগ্রেসই করতে পারে। রাহুলের আরজি, উত্তরপ্রদেশ থেকেই এর শুরুয়াৎ হোক। এই রাজ্যের নির্বাচনই যে লোকসভা নির্বাচনের অভিমুখ ঠিক করে দেবে সেকথা মনে করিয়ে রাহুলের সতর্কবার্তা, উত্তরপ্রদেশে ভাল ফল না হলে দেশের ক্ষেত্রেও তা ভাল হবে না।

কিন্তু সরকার গড়ার ক্ষেত্রে যদি জোট গড়ার পরিস্থিতি তৈরি হয় তাহলে কী করবে কংগ্রেস? এদিন এই প্রসঙ্গে প্রিয়াঙ্কা জানিয়েছেন, যদি ভোটের পরে এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়, তাহলে তাদের দলের নীতির সঙ্গে যাদের মিলবে সেই সব দলকে সমর্থন করবে ‌কংগ্রেস।

Advertisement
Next