Advertisement

Pegasus Row: ‘জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থে’পেগাসাস কাণ্ডে সুপ্রিম কোর্টে হলফনামা দিতে নারাজ কেন্দ্র

03:54 PM Sep 13, 2021 |
Advertisement
Advertisement

সোমনাথ রায়, নয়াদিল্লি: পেগাসাস কাণ্ডে (Pegasus) সরগরম জাতীয় রাজনীতি। ফোনে আড়ি পাতার অভিযোগে মামলা গড়িয়েছে সুপ্রিম কোর্টে। সোমবার শীর্ষ আদালতে মামলার শুনানি চলাকালীন কেন্দ্রীয় সরকার জানিয়েছে যে পেগাসাস সংক্রান্ত বিষয়ে ‘গোপন করার মতো কিছুই নেই’। তবে ‘জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থে বিস্তারিত হলফনামা পেশ করা সম্ভব নয়’।

Advertisement

[আরও পড়ুন: ‘আমাদের ফোনে অস্ত্র ঢুকিয়ে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী’, পেগাসাস ইস্যুতে বিস্ফোরক Rahul Gandhi]

সুপ্রিম কোর্টে শুনানির সময়ে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে সলিসিটর জেনারেল তুষার মেহেতা আদালতে জানান, দেশের এবং মানুষের সুরক্ষার স্বার্থে কেন্দ্রীয় সরকার পেগাসাস সংক্রান্ত হলফনামা জমা দিতে পারবে না। তুষার মেহতা আরও জানিয়েছেন, পেগাসাস সংক্রান্ত একটি কমিটি গঠন করবে সরকার যারা এই বিষয়ে তদন্ত করবে। বৃহত্তর জনস্বার্থ এবং জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থে কেন্দ্র এই বিষয়ে হলফনামা জমা দিতে চায় না। আদলতে মেহেতা বলেন, “আমরা কী সফটওয়্যার ব্যবহার করি তা সন্ত্রাসবাদীরা জেনে নিক এমনটা হতে দেওয়া যায় না।” আদালতে সলিসিটর জেনারেল আরও জানান, বিষয়টি পরীক্ষা করে সরকার মনে করেছে এইধরনের কোনও ঘটনার বিতর্ক হলফনামায় হতে পারে না। তা আদালতের বিতর্কের বিষয়ও হতে পারে না। কিন্তু ঘটনাটি গুরুত্বপূর্ণ হওয়ায় কমিটি এই বিষয়ে তদন্ত করবে।একটি সফটওয়্যার ব্যবহার করা হয়েছে কিনা তা জনগণ, কোর্ট অথবা হলফনামার বিতর্কের বিষয় হতে পারে না কারণ ঘটনাটির নিজস্ব সমস্যা রয়েছে।

এদিন কেন্দ্রের বিরুদ্ধে কিছুটা উষ্মাপ্রকাশ করে সুপ্রিম কোর্ট মন্তব্য করে যে, জাতীয় নিরাপত্তার পক্ষে করা সওয়াল আদালত বোঝে। এখানে আদালতের বিচার্য বিষয় হচ্ছে ব্যক্তিবিশেষের ফোনে আড়ি পাতার অভিযোগ। এই বিচয়ে বিচারপতি সূর্যকান্ত বলেন, “গতবারও জাতীয় নিরাপত্তার বিষয়টি উঠেছে। আমরা স্পষ্ট করে দিয়েছিলাম যে এই বিষয়ে কেউ হস্তক্ষেপ করতে চায় না। আমরা যেটা জানতে চাইছি তা হল, ব্যক্তিবিশেষের ফোনে আড়ি পাতার অভিযোগ উঠেছে। হলফনামা দাখিল করে জানান, তেমনটা করার জন্য কি অনুমতি দেওয়া হয়েছিল? যদি কেউ অভিযোগ করেন, যে তাঁর ব্যক্তিগত পরিসরে অনুপ্রবেশ করা হয়েছে, তবে তা গুরুতর বিষয়। এবং আমরা তা খতিয়ে দেখব।”

উল্লেখ্য, দেশের সাংবাদিক, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব এবং বিশিষ্টদের ফোনে আড়ি পাতার ঘটনায় আদালতের নজরদারিতে তদন্তের আবেদন জানিয়েছিল এডিটর্স গিল্ড (Editors Guild)। এ ছাড়াও পেগাসাস ইস্যুতে তদন্তের দাবিতে সুপ্রিম কোর্টে আরও বেশ কয়েকটি পিটিশন দাখিল হয়েছিল। সব মিলিয়ে ১২টি পিটিশন জমা পড়েছে। সংসদের বাদল অধিবেশন জুড়ে পেগাসাস বিতর্ক বারবার মাথাচাড়া দিয়েছে। বিরোধী নেতাদের দেখা গিয়েছে ওয়েলে নেমে বিক্ষোভ দেখাতে। তাই বহুবারই অধিবেশন মুলতুবি করতে হয়েছে স্পিকার কিংবা চেয়ারম্যানকে। এমনকী, নির্দিষ্ট সময়ের কয়েকদিন আগেই শেষ করে দেওয়া হয়েছিল অধিবেশনও।

[আরও পড়ুন: উত্তরপ্রদেশ বিজ্ঞাপন বিতর্ক: ভুল সংবাদপত্র নাকি প্রশাসনের? জানতে চেয়ে RTI তৃণমূল নেতার]

Advertisement
Next