‘আর নিতে পারছি না’, ৮ বছর ধরে স্বামীর অকথ্য অত্যাচারে নিউ ইয়র্কে আত্মঘাতী ভারতীয় মহিলা

03:37 PM Aug 07, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ১৫ লক্ষ টাকা পণ আর পুত্রসন্তান। শ্বশুরবাড়ি ‘সামান্য’ চাহিদা। কিন্তু স্বামী, শ্বশুর-শাশুড়ি সেই চাহিদা মেটাতে পারেননি নিউ ইয়র্কের (New York) মনদীপ কৌর। আর তারই শাস্তিস্বরূপ ৮ বছর ধরে মারধর সহ্য করতে হয়েছে। শেষপর্যন্ত অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে দুই কন্যাসন্তানকে রেখে আত্মঘাতী হলেন মনদীপ (Mandeep Kaur)। তবে মৃত্যুর আগে ভিডিও রেকর্ড করে মৃত্যুর কারণ জানিয়ে গিয়েছেন।

Advertisement

মনদীপ কৌরের মৃত্যুর পর থেকে উত্তাল সোশ্যাল মিডিয়া। প্রবাসে থাকা ভারতীয় মহিলা, যাদের উপর এধরনের অত্যাচার হয়, তাদের পাশে দাঁড়াতে টুইটারে শুরু হয়েছে ‘দ্য কৌর মুভমেন্ট’ (The Kaur Movement)। নেটিজেনদের দাবি, সুবিচার পাক মনদীপ ও তার দুই মেয়ে।

[আরও পড়ুন: মধ্যপ্রাচ্যে ঘনাচ্ছে যুদ্ধের মেঘ, ইজরায়েল-প্যালেস্তাইন সংঘর্ষে মৃত বেড়ে ২৪, রয়েছে ৬ শিশুও]

২০১৫ সালে উত্তরপ্রদেশের (Uttar Pradesh) বিজনৌর জেলার রণজোধবীরের সিংয়ের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন মনদীপ। আমেরিকায় ট্রাক চালাতেন রণজোধবীর। বিয়ের পর আমেরিকাতেই সংসার পাতেন মনদীপ। ছিলেন শ্বশুর-শাশুড়িও। সেখানেই রণজোধবীর এবং তাঁর পরিবারের মুখোশ খুলে যায়। ভিডিওতে মনদীপ জানিয়েছেন, তিনদিনের জন্য মনদীপকে অপহরণ করেছিল রণজোধবীর। সেই খবর পেয়ে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেছিল মনদীপের পরিবারের সদস্যরা। এরপর কার্যত হাতে পায়ে ধরে সেই অভিযোগ থেকে রেহাই পায় রণজোধবীর। কিন্ত মনদীপ রেহাই পাননি।

Advertising
Advertising

মৃত্যুর আগে রেকর্ড করা ভিডিওতে মনদীপ জানিয়েছেন, “সব কিছু সহ্য করেছি, ভেবেছি, এক দিন তিনি বদলে যাবেন। আট বছর হয়ে গেল। রোজ আর মার খেতে পারছি না।” মৃত্যুর আগে তিনি স্পষ্ট করে দিয়েছেন, “আমার মৃত্যুর জন্য শ্বশুরবাড়ির সদস্য এবং স্বামী দায়ী। ওরা আমাকে বাঁচতে দিল না। ৮ বছর ধরে প্রতিদিন আমাকে মারঘর করা হয়েছে।” তাঁর কথায়, “তবু সব ভুলে আমি নিউ ইয়র্কে চলে এসেছিলাম। নতুন করে সব শুরু করেছিলাম। কিন্তু কোনও কারণ ছাড়াই ও আমাকে মারত। নেশা করে থাকুক আর না থাকুক তাও গায়ে হাত তুলত।”

[আরও পড়ুন: বাহিনীর জওয়ানদের মানসিক পরিস্থিতির কাউন্সেলিং করাক কেন্দ্র, পরামর্শ বিজেপি বিধায়কেরই]

অকথ্য অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে অবশেষে আত্মহত্যা করে মনদীপ। শ্বশুরবাড়ির সদস্য এবং স্বামীর বিরুদ্ধে উত্তরপ্রদেশে অভিযোগ দায়ের হয়েছে। তবে এ প্রসঙ্গে তাদের তরফে কোনও প্রতিক্রিয়া মেলেনি।

Advertisement
Next